চট্টগ্রাম, মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০ , ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মিরসরাইয়ে অঘোষিত লকডাউন

মহাসড়ক ফাঁকা, দোকানপাট বন্ধ, ঘর থেকে বের হয়নি মানুষ

এম মাঈন উদ্দিন, নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশ: ২৬ মার্চ, ২০২০ ৭:১০ : অপরাহ্ণ

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) মানুষ ঘর থেকে বের হয়নি। ব্যবস্ততম ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক ছিল ফাঁকা, দোকানপাট বন্ধ ছিল।

প্রতিবারের মতো এবার ২৬ মার্চে শহীদ মিনারমুখী মানুষ দেখা যায়নি, ছিল না জনকোলাহল। অন্য দিনগুলোর চাইতে তাই ব্যতিক্রমই বলতে হবে স্বাধীনতা দিবসের এই দিনটিকে।

উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব জসীম উদ্দিন ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রুহুল আমিন ছোট পরিসরে শহীদ বেদিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন।

সকাল থেকে সেনাবাহিনীর সদস্যরা উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় টহল দেওয়া ছাড়াও সচেতনতামূলক মাইকিং এবং সিভিল প্রশাসনের কাজে সহায়তা করছেন তারা।

খবর নিয়ে জানা গেছে, উপজেলা সদর বাইয়ারহাট পৌরসভা, মিঠাছড়া, বড়দারোগাহাট, আবুতোরাব, বড়তাকিয়াসহ গ্রামীণ বাজারের সকল দোকানপাট বন্ধ ছিলো। গুটিকয়েক স্বল্পআয়ের মানুষ চোখে পড়েছে।

তবে বাজার ছাড়া গ্রামের দোকানগুলো খোলা ছিল। সেখানে গ্রামের লোকজন খোশ মেজাজে আড্ডায় মেতেছেন। হাসপাতাল খোলা থাকলেও রোগী তেমন ছিলোনা। করোনা আতংকে মানুষ হাসপাতালে যাচ্ছে না।

বারইয়ারহাট শেফা ইনসান হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. এস এ ফারুক বলেন, হাসপাতাল ২৪ ঘন্টা খোলা রয়েছে। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে রোগী অনেক কমে গেছে। আতংকে মানুষ হাসপাতালে আসতেছে না।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে বিভিন্ন এলাকায় জীবাণুনাশক স্প্রে করছেন ও বাড়ি বাড়ি গিয়ে মাস্ক বিতরণ করেছেন শতাব্দী ক্লাব, এসটি লায়নসহ বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের কর্মীরা।

মিরসরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রুহুল আমিন জানান, ঘোষনা অনুযায়ী মিরসরাইয়ে সব দোকানপাট বন্ধ ছিলো। ২৬ মার্চের বড় কোন প্রোগ্রাম হয়নি। শুধু শহীদ বেদিতে ফুল দিয়েছি। সেনাবাহিনী উপজেলার বিভিন্ন স্থানে টহল অব্যাহত ছিলো। আমি মিরসরাইয়ের জনসাধারণকে অনুরোধ করবো করোনাভাইরাস প্রতিরোধে জরুরী কাজ ছাড়া ঘর থেকে বের হওয়ার প্রয়োজন নেই।

Print Friendly and PDF

———