চট্টগ্রাম, শনিবার, ৪ এপ্রিল ২০২০ , ২১শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

করোনা সতর্কতা: চবিতে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ

প্রকাশ: ১৩ মার্চ, ২০২০ ৯:৫৭ : পূর্বাহ্ণ

বিশ্বব্যাপী মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সতর্কতার অংশ হিসেবে অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্যাম্পাসে সব ধরনের সভা-সমাবেশ, জনসমাগম নিষিদ্ধ করেছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) কর্তৃপক্ষ।

বৃহস্পতিবার রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) কে এম নূর আহমদ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য তিন নির্দেশনা দিয়ে এ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।

এদিকে করোনাভাইরাস সতর্কতায় প্রশাসনের এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানালেও শাটল ট্রেন নিয়ে কোনো পদক্ষেপ না নেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শিক্ষার্থীরা। প্রতিদিন প্রায় ১৫ থেকে ২০ হাজার শিক্ষার্থীদের অন্যতম যাতায়াতের মাধ্যম শাটল ট্রেন নিয়ে সুস্পষ্ট ঘোষণার দাবি তাদের।

এ ছাড়া আবাসিক হল ও শিক্ষক বাস নিয়েও কোনো নির্দেশনা না থাকায় দ্রুত সময়ের মধ্যে এসব বিষয়ে নির্দেশনার দাবি জানান শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মো. মনিরুজ্জামান বলেন, ক্যাম্পাসে সব ধরনের মিটিং-মিছিল বন্ধ ঘোষণা করেছে প্রশাসন। বিষয়টিকে সাধুবাদ জানাই। তবে শাটল কি জনসমাবেশ হয় না? করোনা কি শাটলে ছড়বে না? তাহলে শাটল নিয়ে কেন কোন নির্দেশনা দেওয়া হলো না?

একই সুরে আরো বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, র‌্যাগ ডে, নবীনবরণ, সভা-সমাবেশ, শোভাযাত্রা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ জনসমাবেশ ও জনসমাগম অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করা হলো। অথচ সবচেয়ে বেশি যে শাটলে শিক্ষার্থীরা আসে সে বিষয়ে এবং শিক্ষক বাস ও আবাসিক হল নিয়ে তাদের সুস্পষ্ট পদক্ষেপ নেয়া উচিত।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক এস এম মনিরুল হাসান বলেন, যেহেতু বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ করা হয়নি সেহেতু শাটল ট্রেন, শিক্ষক বাস এবং আবাসিক হলগুলো বন্ধ করা সম্ভব হচ্ছে না। শাটল ট্রেন ও শিক্ষকবাসে গণজমায়েত হয় ঠিকই তবে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা ছাড়া এগুলো বন্ধ করা সম্ভব নয়।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে চবি রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) কে এম নূর আহমদ বলেন, বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়েছে। তাই শিক্ষার্থী-শিক্ষক-কর্মকর্তা ও কর্মচারী সকলের নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যের বিষয়ে বিবেচনায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, শাটল ট্রেনের ব্যাপারে এখন কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। সরকারি কোনো নির্দেশনা আসলে এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া হবে।

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ থেকে দেওয়া বিজ্ঞপ্তি উল্লেখিত তিন নির্দেশনা হলো বিশ্ববিদ্যালয়ে সব র‌্যাগ ডে, নবীনবরণ, সভা-সমাবেশ, শোভাযাত্রা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ জনসমাবেশ ও জনসমাগম সংক্রান্ত কর্মসূচি বন্ধ থাকবে। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের সকল নালা-নর্দমা, বিভিন্ন হলের ক্যানটিন, কমনরুম, ডাইনিং হল পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। প্রত্যেক বিভাগ/ইনস্টিটিউটে দিনের প্রথম ক্লাসের শুরুতে অন্তত ৫ মিনিট করোনাভাইরাস সংক্রান্ত ব্রিফিং দিতে হবে।

Print Friendly and PDF

———