চট্টগ্রাম, সোমবার, ৩ আগস্ট ২০২০ , ১৯শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সবার আগে প্লে-অফে চট্টগ্রাম

প্রকাশ: ৪ জানুয়ারি, ২০২০ ৬:০২ : অপরাহ্ণ

রুবেল হোসেন ও মেহেদী হাসার রানার দুর্দান্ত বোলিংয়ে খুলনা টাইগার্সকে অল্প রানেই বেঁধে রেখেছিল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। বোলারদের গড়ে দেওয়া মঞ্চে ব্যাটসম্যানরা কাজটা করলেন ঠিকঠাক। তাতে মুশফিকুর রহিমের নেতৃত্বাধীন খুলনাকে সহজেই হারাল ইমরুল কায়েসের চট্টগ্রাম।

শনিবার বঙ্গবন্ধু বিপিএলে দিনের প্রথম ম্যাচে খুলনাকে ৬ উইকেটে হারায় চট্টগ্রাম। এই জয়ে সবার আগে প্লে-অফ নিশ্চিত হলো দলটির। সেটিও দুই ম্যাচ হারে থাকতে।

টস জিতে খুলনাকে এদিন আগে ব্যাটিংয়ে পাঠায় চট্টগ্রাম। রুবেল ও রানার তোপে খুলনা পারেনি ১২১ রানের বেশি করতে। ১ বল বাকি থাকতেই গুটিয়ে যায় দলটা। জবাবে ১১ বল হাতে রেখেই ৪ উইকেট হারিয়ে জয় নিশ্চিত করে চট্টগ্রাম।

১২২ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে লেন্ডন সিমন্স ও জুনায়েদ সিদ্দিকি উদ্বোধনী জুটিতে যোগ করে ফেলেন ৬৯ রান। ১১তম ওভারে সিমন্স আল ইসলামের শিকার হলে সেই জুটি ভাঙে। ২৮ বলে ৩ চার ও ২ ছক্কায় ৩৬ রান করেন সিমন্স। পরের ওভারে মেহেদী হাসান মিরাজের শিকার হয়ে ফিরে যান জুনায়েদও। ৩৯ বলে ৪ চার ও ১ ছক্কায় ৩৮ রান করেন তিনি।

এরপর অ্যাশেলা গুনারত্নে (০) ও চ্যাডউইক ওয়ালটনের (৭) উইকেট হারালেও ইমরুল কায়েস অপরাজিত ৩০ রানে দলের জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়েন। ইমরুল নিজের ইনিংস সাজান ২৭ বলে। ২টি করে চার ও ছক্কা হাঁকান তিনি।

এর আগে দুই পেসার রানা ও রুবেল তোপে খুলনা মাত্র ১৪ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায়। যে চাপ কাটিয়ে দলটা আর পথে ফিরতে পারেনি। মাঝে রাইলি রুশো ও মুশফিকুর রহিম ভালো জুটির আভাস দিয়েও থেমেছেন। শুরুর ব্যর্থতার পর খুলনা নিজেদের শেষ ৫ উইকেট হারায় মাত্র ১৫ রানের ব্যবধানে।

অন্যদের ব্যর্থতায় রাইলি রুশো দারুণ খেলেছেন। ৪০ বলে ৪৮ রান করেন তিনি ২টি করে চার ও ছক্কায়। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৯ রান আসে মুশফিকুর রহিমের ব্যাট থেকে। রবি ফ্রাইলিং করেন ১৭।

চট্টগ্রামের পক্ষে রুবেল হোসেন ও মেহেদী হাসান রানা ৩টি করে উইকেট নেন। এ ছাড়া কেসরিক উইলিয়ামস নিয়েছেন ২ উইকেট। ম্যাচসেরা হয়েছে মেহেদী হাসান রানা।

১০ ম্যাচে ৭ জয় ও ৩ হারে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে এখন শীর্ষে চট্টগ্রাম। অন্যদিকে এক ম্যাচ কম খেলা খুলনা ৯ ম্যাচে ৫ জয় ও ৪ হারে ১০ পয়েন্ট নিয়ে আছে চতুর্থ স্থানে।

Print Friendly and PDF

———