চট্টগ্রাম, সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯ , ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

২০৫০ সালের মধ্যেই মানব সভ্যতায় নতুন মোড়!

ফজলুর রহমান প্রকাশ: 6 November, 2019 9:50 : AM

লেখক- ফজলুর রহমান

‘ইউএনইপি অ্যাডাপ্টশেন গ্যাপ’-এর ২০১৩ সালের রিপোর্টে আগেই সর্তক করা হয়েছিল যে, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব বা ফলাফলরে কারণে ২০৩০ সালের মধ্যে বৈশ্বিক খরচের পরমিাণ এখনকার চেয়ে দুই থেকে তিন গুণ বেেড় যাবে। আর বর্তমানে যা ধারণা করা হচ্ছে, তার চেয়ে চার থেকে পাঁচ গুণ বাড়বে ২০৫০ সাল নাগাদ৷

২০১৩ সালের সেই আভাস এখন নতুন গবেষণায়ও সত্যি প্রমাণিত হয়েছে। গত ২৯ অক্টোবর বিজ্ঞান সাময়িকী ন্যাচার কমিউনিকেশন্সে প্রকাশিত যুক্তরাষ্ট্রের ক্লাইমেট সেন্ট্রাল অর্গানাইজেশনের গবেষণায় এমন আশঙ্কার কথা বলা হয়েছে।

উক্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, জলবায়ু পরিবর্তনজনিত কারণে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি ঝুঁকির মাত্রা দিন দিন বেড়েই চলছে। আশঙ্কার চেয়ে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির এ হার প্রায় চার গুণ বেশি। ২০৫০ সালের মধ্যে ৩০ কোটি মানুষ বন্যার ঝুঁকিতে রয়েছে বলে নতুন এক গবেষণায় উঠে এসেছে। এতে আরো বলা হয়, গ্রিনহাউস গ্যাস নিঃসরণ কমানো না গেলে ২০৫০ সালের মধ্যে বাংলাদেশের ৪ কোটি ২০ লাখ মানুষ প্রতিবছর বন্যার ঝুঁকিতে থাকবেন।

এছাড়া আগামী তিন দশকের মধ্যে ভারতের মুম্বাই, থাইল্যান্ডের ব্যাংকক এবং চীনের সাংহাই শহর পানিতে তলিয়ে যাবে।
গবেষণা প্রতিবেদনে কার্বন নিঃসরণের পরিমাণ উল্লেখযোগ্য মাত্রায় কমানো এবং উপকূলীয় প্রতিরক্ষা জোরালো করার ওপর জোর দেয়া হয়েছে।

অন্যথায় ২০৫০ সাল নাগাদ ৩০ কোটি মানুষের বসতির জমি বছরে অন্তত একবার ডুবে যাবে বলে আশঙ্কা করা হয়েছে। আর ২০৫০ সাল নাগাদ বাংলাদেশে বছরে বন্যার পরিমাণ বাড়বে আটগুণ। আরও বলা হয়, ২১০০ সালের মধ্যে কার্বন নিঃসরণের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে না আনা হলে ঝুঁকির মুখে পড়বেন ৬৩ কোটি মানুষ।

আগে ধারণা করা হতো সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির ফলে ঝুঁকিতে রয়েছে আট কোটি মানুষ। স্যাটেলাইট ডেটা থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে এ গবেষণা করা হয়েছিল। এতে উঁচু ভবন ও গাছের উচ্চতার ক্ষেত্রে বাড়তি অনুমান করা হয়েছিল।
নতুন গবেষণায় এসব ভুল এড়াতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করা হয়েছে।

ক্লাইমেট সেন্ট্রালের জ্যেষ্ঠ বিজ্ঞানী স্কট কাল্প বলেন, এ গবেষণা আমাদের জীবদ্দশাতেই জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে শহর, অর্থনীতি, উপকূলীয় সীমানা এবং পুরো বৈশ্বিক অ ল পুনঃনির্মিত হওয়ার আশঙ্কার দিকটি দেখিয়েছে।

দৃশ্যত জলবায়ু পরিবর্তনে সবচেয়ে বড় পরিবর্তন আসবে এশিয়ায়। শুধু এ মহাদেশে ঝুঁকিতে পড়বেন ২৩ কোটি ৭০ লাখ মানুষ।
২০৫০ সাল নাগাদ বাংলাদেশে বার্ষিক বন্যার পরিমাণ বাড়বে আটগুণ, ভারতে সাতগুণ আর চীনে বাড়বে তিনগুণ।

ফলে ৩০ বছরের মধ্যে পানির তলে হারিয়ে যাবে বিশ্বের অন্যতম তিন বৃহত্তম শহর মুম্বাই, ব্যাংকক ও সাংহাই। এছাড়া ইন্দোনেশিয়ায় বন্যার ঝুঁকিতে রয়েছেন ২ কোটি ৩০ লাখ মানুষ।

পৃথিবীর মানচিত্র থেকে চিরতরে হারিয়ে যাওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে ভিয়েতনামের বাণিজ্যনগরী হো-চি মিন সিটি, মিসরের আলেকজান্দ্রিয়া ও ইরাকের বাসরা নগরীও। আশঙ্কা করা হয়, ২০৫০ সালের মধ্যেই নিউইয়র্ক বা মুম্বাইয়ের মতো শহরগুলোও বন্যায় ডুবে যাবে।

ধারণা করা হচ্ছে, বিশ্বের প্রধানতম শহরগুলোকে বাঁচিয়ে রাখতে ২০৫০ সালে ভাসমান শহর প্রযুক্তি মানুষের হাতে চলে আসবে। ফলে সমুদ্রে দেখা যাবে বিভিন্ন ভাসমান শহর। এগুলো বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে হবে না। এই শহরগুলো মাল্টিস্টোরেড দালানের মতোই গড়ে উঠবে।

এরপরও সময়ের পরিক্রমায় ২০৫০ সাল পৃথিবীর জন্য ভয়াবহ হয়ে উঠতে পারে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে। আবহাওয়া বিশ্লেষকরা এ বিষয়ে একমত ২০৫০ সালের আগেই পৃথিবীতে একাধিক বড় ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ আঘাত হানতে পারে। সেই রেশ কাটবে না ২০৫০ সালেও। এই সময়ের ব্যবধানে বড় ধরনের ভূমিকম্প, সমুদ্রতলের উচ্চতা বৃদ্ধি, প্রলয়ংকরী হ্যারিকেন ও টর্নেডোর কথা বারবার বলছেন তারা। খরা ও বন্যা সরাসরি পৃথিবীবাসীকে বিপদের মুখে ফেলবে। ২০৫০ সালের সবচেয়ে বড় চ্যালে হয়ে ওঠবে নিরাপদ পানির সংকট ও প্রাকৃতিক উষ্ণতা বৃদ্ধি। খাদ্য সংকটও প্রবল হতে পারে।

গত ০৪ নভেম্বর, ২০১৯ খ্রি: থাইল্যান্ডের ব্যাংককে আয়োজিত ৩৫তম আসিয়ান সম্মেলনে জলবায়ু বিপর্যয়ের কারণে বিপদের কথা তুলে ধরেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতিয়েরেস । এর দায় কেউ এড়াতে পারে না বলে মন্তব্য করেন মহাসচিব।

এসময় সম্ভাব্য ক্ষতিগ্রস্তদের একটি তালিকাও তিনি উপস্থাপন করেন। এতে বলা হয়, ক্ষতিগ্রস্তদের সিংহভাগ হবে চীনের। যার সংখ্যা অন্তত নয় কোটি ৩০ লাখ। বাংলাদেশে চার কোটি ২০ লাখ মানুষের ক্ষতি হবে। ভারতে তিন কোটি ৬০ লাখ, ইন্দোনেশিয়ায় দুই কোটি ৩০ লাখ মানুষের ক্ষতি হতে পারে। এছাড়া বাকিরা জাপানসহ এশিয়ারই বিভিন্ন দেশের মানুষ। তবে জনসংখ্যা হিসেবে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকির মুখে বাংলাদেশই।

গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে গুতিয়েরেস বলেন, এটি সত্যি যে, বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধির সবচেয়ে ক্ষতিকর প্রভাবের শিকার হবে দক্ষিণ এশিয়া। তুলনামূলকভাবে নিচু এলাকাগুলো এই মহাদেশেই পড়েছে। এসব দেশের অন্তত ১০ শতাংশ মানুষ আগামী ৩০ বছরে চরম ক্ষতির সম্মুখীন হতে যাচ্ছেন।

সম্প্রতি বিজ্ঞান বিষয়ক কিছু সাময়িকীতে প্রকাশিত প্রতিবেদনের উদাহরণ টেনে জাতিসংঘ মহাসচিব বলেন, এই শতাব্দীতে কার্বণ নিঃসরণের হার কমিয়ে না নিয়ে আসলে বৈশ্বিক তাপমাত্রা এক দশমিক পাঁচ ডিগ্রি বৃদ্ধি পাবে। এছাড়া আগামী ১০ বছরে এই হার ৪৫ শতাংশ না কমালে বিপর্যয় অবধারিত। কয়লার ওপর নির্ভর না করে প্রযুক্তির উন্নয়নে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে সব কাজে জৈব-পদ্ধতি ব্যবহারের পরামর্শ দেন গুতিয়েরেস।

সামনের কয়েক দশকে বিশ্বব্যাপী প্রাকৃতিক দুর্যোগ কতটা ভয়ঙ্কর হতে পারে সে নিয়ে বিস্তর গবেষণা এখনো চলছে।

প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হয়, মানব সভ্যতার ওপর বড় ধরনের পরিবর্তন বয়ে আনতে সক্ষম হবে এই প্রাকৃতিক দুর্যোগগুলো। মানব সভ্যতার নতুন মোড় তাহলে কি আসন্ন?

লেখক: ফজলুর রহমান, সহকারী রেজিস্ট্রার,চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)।

Print Friendly and PDF

———