চট্টগ্রাম, রোববার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ , ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

খাতুনগঞ্জে বস্তা বস্তা পচা পেঁয়াজ ফেলা হচ্ছে নদীতে

প্রকাশ: ১৬ নভেম্বর, ২০১৯ ৩:৩৩ : অপরাহ্ণ

খাতুনগঞ্জের কয়েকটি আড়তে বাড়তি দামের আশায় গুদামজাত করা বিপুল পরিমাণ  পচে যাওয়া মিয়ানমারের পেঁয়াজ ফেলে দেওয়া হচ্ছে নদীতে-ভাগাড়ে। শুক্রবার (১৫ নভেম্বর) সন্ধ্যার পর নগরের ফিরিঙ্গি বাজার ব্রীজঘাট এলাকায় ১০-১৫ বস্তা পচা পেঁয়াজ কর্ণফুলী নদীতে ফেলে দেওয়া হয়।

এর আগে বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) রাতে খাতুনগঞ্জে সিটি করপোরেশনের ময়লার ভাগাড় থেকে প্রায় ২০ টন পচা পেঁয়াজ সরিয়েছে পরিচ্ছন্ন কর্মীরা।

স্থানীয়রা বলছেন দাম আরও বাড়বে সে আশায় নিজেদের গুদামে মজুদ করে রাখা পেঁয়াজে পচন ধরেছে। সে পচা পেঁয়াজ এখন আড়ত থেকে বের হচ্ছে প্রতিদিন।

শনিবার (১৬ নভেম্বর) খাতুনগঞ্জে কয়েকটি আড়তে গিয়ে দেখা যায়, বস্তাভর্তি পেঁয়াজ পচে মাটিতে পড়ে আছে। দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে এলাকায়। শ্রমিকরা এসব পেঁয়াজ ভাগাড়ে নিয়ে ফেলছেন।

খাতুনগঞ্জের ব্যবসায়ী মো. ইদ্রিস জানান, পেঁয়াজগুলো মিয়ানমার থেকে আমদানি করা। এসব পেঁয়াজ যখন খাতুনগঞ্জে ঢুকছিল, তখন কিছুটা পচা ছিল। আর আড়তে মজুদ করে রাখার ফলে একেবারে পচে গেছে।

অন্যদিকে, ভারত পিয়াজ রপ্তানি বন্ধ করার পর মিয়ানমার থেকে এ পর্যন্ত ৩০ হাজার টন পিয়াজ আমদানি করা হয়েছে। যা খরচসহ কেজি প্রতি ৪২ টাকা কেনা পড়েছে। কিন্তু এ পিয়াজ আমদানিকারকরা পাইকারী বাজারে ৯৫ থেকে ১০০ টাকায় বিক্রয় করেছে।

এভাবে ১৫৯ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে আমদানিকারকরা। খুচরা পর্যায়ে এ টাকা ২০০ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। যা সাধারণ ক্রেতার পকেট থেকে কেড়ে নেওয়া হয়েছে। এমন তথ্য চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলামের।

আর অতি মুনাফার সেই পিয়াজ এখন মিলছে চট্টগ্রামের সবচেয়ে বড় ভোগ্যপণ্যের বাজার খাতুনগঞ্জের পাশ্ববর্তি কর্ণফুলী নদীতে।

এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, কিছু পচা পেঁয়াজ প্রতি বস্তা ২শ’ থেকে ৩শ’ টাকা করে কিনে নিয়ে সেখান থেকে ভালো পেঁয়াজ আলাদা করছে।

আলাদা করে কিছুটা ভালো পেঁয়াজ তারা ৪০-৫০টাকা কেজিতে মানুষের কাছে বিক্রি করছে বলে জানান পচা পেঁয়াজ কেনা এক ব্যক্তি।

উল্লেখ্য, আজ শনিবার নগরীর বিভিন্ন খুচরা বাজারে ২৪০ থেকে ২৫০টাকা কেজিতে পেঁয়াজ বিক্রি করতে দেখা গেছে।

Print Friendly and PDF

———