চট্টগ্রাম, বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯ , ৬ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কাশ্মীরে নতুন সূচনা দেখছেন মোদি

প্রকাশ: ৮ আগস্ট, ২০১৯ ৯:৫৩ : অপরাহ্ণ

সংবিধান থেকে ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের কারণে জম্মু-কাশ্মীর এবং লাদাখের ইতিহাসে একটি নতুন যুগের সূচনা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তার ভাষ্য, ৩৭০ অনুচ্ছেদ জম্মু-কাশ্মীরকে সন্ত্রাসবাদ, বিভক্তি এবং ধারাবাহিক দুর্নীতি ছাড়া অন্য কোনও ফল এনে দেয়নি।

ভূস্বর্গখ্যাত কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা রদ করে ভারতের সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের তিনদিন পর এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার জম্মু-কাশ্মীর ইস্যুতে জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া এক ভাষণে নরেন্দ্র মোদী একথা বলেন।

কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলে এরইমধ্যে পাকিস্তান ভারতের সঙ্গে বাণিজ্যিক সম্পর্ক বাতিল ও কূটনৈতিক সম্পর্ক শিথিল করেছে। বৃহস্পতিবার ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী পাকিস্তানকে তাদের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার জন্য অনুরোধ করেছেন।

পাকিস্তানকে ইঙ্গিত করে মোদি বলেন, কাশ্মীর উপত্যকায় সন্ত্রাসবাদ প্রসারে ইসলামাবাদ সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৩৭০ ও ৩৫-এ অনুচ্ছেদকে ব্যবহার করছে।

সংবিধান থেকে ৩৭০ ধারা বাতিলের ঐতিহাসিক সিদ্ধান্তের কারণে জম্মু-কাশ্মীর ভবিষ্যৎ উন্নতির পাশাপাশি নিরাপত্তাও নিশ্চিত করবে। দেশের অন্যান্য নাগরিকদের মতো তারাও সমান অধিকার ভোগ করতে পারবে।

তিনি বলেন, ৩৭০ অনুচ্ছেদ এবং অনুচ্ছেদ ৩৫-এ কারণে জম্মু-কাশ্মীরের কেউ লাভবান হয়েছে তা বিচার করতে পারবে না।

সরকারি নিয়োগ সম্পর্কে বলেন, জম্মু-কাশ্মীর উপত্যকায় শীঘ্রই সরকারি ক্ষেত্রে নতুন নিয়োগ শুরু হবে। লাদাখের যুব সম্প্রদায়কে উচ্চ শিক্ষার জন্য সরকারি সুবিধা দেওয়া হবে। সেখানে আধ্যাত্মিক পর্যটন কেন্দ্র, ইকো পার্ক, সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরি করা হবে বলেও তিনি জানান।

সোমবার সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করতে সংসদে প্রস্তাব পেশ করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। সংসদের অনুমোদনের পরই প্রেসিডেন্ট রামনাথ কোবিন্দ এই প্রস্তাবে সই করেছেন। প্রেসিডেন্টের সইয়ের সঙ্গে সঙ্গেই কাশ্মীরকে বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা দেয়া ৩৭০ ধারা বিলুপ্ত হয়ে যায়। সেই সঙ্গে রাজ্যের মর্যাদাও হারায় রাজ্যটি।

প্রস্তাবে জম্মু ও কাশ্মিরকে দু’ভাগে ভাগ করার কথা বলা হয়েছে। জম্মু ও কাশ্মির মিলিয়ে একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল অন্যদিকে লাদাখকে পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাগ করার প্রস্তাব দেয়া হয়েছে।

৩৭০ ধারা বাতিল হওয়ার পরপরই সংসদের ভেতরে ও বাইরে প্রতিবাদের ঝড় তোলে বিরোধীরা। কয়েক মিনিটের জন্য মুলতুবি হয়ে যায় অধিবেশন। পরে ফের অধিবেশন শুরু হলে, বিরোধীদের হট্টগোলের মধ্যেই প্রেসিডেন্টের নির্দেশনামা পড়ে শোনান কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

এ ঘটনায় কাশ্মীরে ১৪৪ ধারা জারি করেছে। সেখানে ইন্টারনেট যোগাযোগ সেবা বন্ধ রয়েছে। ইতিমধ্যে, কাশ্মীরের জনগণ ৩৭০ ধারা বাতিলের কারণে বিক্ষোভ করেছে।কাশ্মীরের সাবেক দুই মুখ্যমন্ত্রীকে গৃহবন্দি করা হয়েছে।

Print Friendly and PDF

———