চট্টগ্রাম, শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ , ৫ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

রাজস্থলীতে জওয়ান নাসির হত্যায় মামলা দায়ের পর

সেনাবাহিনীর উপর ধারাবাহিক সশস্ত্র হামলা চালাচ্ছে পাহাড়ের সন্ত্রাসীরা!

আলমগীর মানিক, রাঙামাটি থেকে প্রকাশ: ২৬ আগস্ট, ২০১৯ ৭:৪৬ : অপরাহ্ণ

দেশের এক দশমাংশ এলাকার সার্বিক আইনশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্বে থাকা নিরাপত্তা বাহিনীর উপর ধারাবাহিক সশস্ত্র হামলা চালাচ্ছে অত্রাঞ্চলে তথাকথিত অধিকার আদায়ের নামে ব্যাপক সন্ত্রাসী তৎপরতায় লিপ্ত থাকা আঞ্চলিকদলীয় সন্ত্রাসীরা।

পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনগুলোর সাথে আঁতাতের মাধ্যমে বিপুল পরিমান ভারী অস্ত্র সংগ্রহ করে সেসব অস্ত্র বর্তমান সময়ে ব্যবহার করছে অত্রাঞ্চলের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পার্বত্য চুক্তি বিরোধী আঞ্চলিক দলীয় সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা।

মাত্র আটদিনের ব্যবধানে রাঙামাটির রাজস্থলীর পর বাঘাইছড়ি হয়ে এবার পার্শ্ববর্তী খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলায় নিরাপত্তা বাহিনীর টহলরত সদস্যদের হত্যার উদ্দেশ্যে সশস্ত্র হামলা চালিয়েছে পার্বত্য চুক্তি বিরোধী আঞ্চলিকদলের সন্ত্রাসীরা।

এদিকে, গত ১৮ই আগষ্ট রোববার রাঙামাটি জেলার রাজস্থলী উপজেলার দুর্গম গাইন্দা এলাকায় একটি নিয়েমিত সেনা টহলের উপর সন্ত্রাসীরা গুলি বর্ষণ করলে নাসির (১৮) নামে এক তরুণ সৈনিক নিহত হওয়ার ঘটনায় অজ্ঞাতনামাদের আসামী করে রাজস্থলী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

রাজস্থলী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মফজল আহমেদ খান মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, দন্ডবিধি ১৪৭/১৪৮/১৪৯/৩৩২/৩৩৩/৩৫৩/৩০৭/৩০২/৩৪ তৎসহ বিস্ফোরক আইনের ৩/৪ ধারায় সোমবার দুপুরে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে। যাহার মামলা নাম্বার-২, তারিখ: ২৬/০৮/২০১৯ইং।

ঘটনার ৯দিন পর এই মামলা দায়ের করা হয়। গত ১৮ই আগষ্ট রোববার রাঙামাটি জেলার রাজস্থলী উপজেলার দুর্গম গাইন্দা এলাকায় একটি নিয়মিত সেনা টহলের উপর সন্ত্রাসীরা গুলি বর্ষণ করলে নাসির (১৮) নামে এক তরুণ সৈনিক নিহত হয়।

একইদিন ওই এলাকায় তল্লাশী চালানোর সময় সন্ত্রাসীদের পুতে রাখা মাইন বিষ্ফোরণে ক্যাপ্টেন মেহেদী ও সৈনিক মোহসীন গুরুতর আহত হয়।

এদিকে, এই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই জেলার বাঘাইছড়ি উপজেলায় বাঘাইছড়ি উপজেলার সাজেক সড়কে নিয়মিত সেনাটহলের উপর গুলি চালিয়েছে পার্বত্য আঞ্চলিক দলীয় সন্ত্রসীরা।

এবার হামলা চালানো হয় সেনাবাহিনীর টহল গাড়িতে। এসময় সেনাসদস্যরাও পাল্টা গুলি চালালে আক্রমণকারী সন্ত্রাসী দলের একজন নিহত হয়। নিহতের নাম সুমন চাকমা (২৭) সে আঞ্চলিক দল ইউপিডিএফ সদস্য বলে জানা গেছে।

ব্যাপক সমালোচনার জন্মদেওয়া এই ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটিয়ে তৃতীয় বারের মতো আবারো পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়ি জেলার দীঘিনালায় টহলরত সেনা সদস্যদের উপর গুলি বর্ষণ করেছে উপজাতীয় সন্ত্রাসীরা।

পার্বত্য চুক্তি বিরোধী সশস্ত্র সংগঠন ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট ইউপিডিএফ এর সন্ত্রাসীরা সোমবার বেলা এগারোটার সময় দীঘিনালা উপজেলা সদর থেকে ছয় কিলোমিটার অদূরে বড়াদম এলাকায় টহলে থাকা নিরাপত্তাবাহিনীর সদস্যদের বহনকারি গাড়িকে লক্ষ্য করে এলোপাতারি গুলি বর্ষণ করে বলে জানিয়েছে খাগড়াছড়ি রিজিয়ন কর্তৃপক্ষ।

এই ঘটনায় আত্মরক্ষার্থে কর্তব্যরত আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরাও পাল্টা গুলি চালালে উভয়পক্ষের মধ্যে বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি বিনিময় হয়।

পরে ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ তিনজনের মরদেহসহ তিনটি আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলি উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন খাগড়াছড়ির সার্কেল এএসপি রওনক আলম।

তিনি জানান, আমরা গুলিবিদ্ধ তিনজনের লাশ উদ্ধার করেছি। এই ব্যাপারে আইনগত প্রক্রিয়ানুসারে পরবর্তী আইনানুগ পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

নিহতরা হলো: নবীন জ্যোতি চাকমা(৩২),পিতা: ধন্যসনে চাকমা, ভুজন্দ্রে চাকমা(৫২), পিতা: তুঙ্গরাম চাকমা ও রুচলি চাকমা।

Print Friendly and PDF

———