চট্টগ্রাম, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ , ১লা আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কবিরাজি চিকিৎসার জন্য তেল সংগ্রহ

চট্টগ্রামে দুর্লভ প্রজাতির সাগরের ডলফিন লোকালয়ে এনে হত্যা!

সিটিজি টাইমস ডেস্ক প্রকাশ: ৮ জুলাই, ২০১৯ ১০:৪৫ : পূর্বাহ্ণ

ডলফিন তেল সংগ্রহের জন্য চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুণ্ডে একটি স্তন্যপায়ী প্রাণী ডলফিন হত্যা করে গাছে ঝুলিয়ে রেখেছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় মামলা করতে যাচ্ছে বন্য প্রাণী ব্যবস্থাপনা বিভাগ।

শনিবার রাতে উপজেলার মুরাদপুর ইউনিয়নের গোলাবাড়িয়া সাগরের বেড়িবাঁধ সংলগ্ন এলাকা থেকে ওই ডলফিনটি উদ্ধার করা হয়।

এদিকে, দুর্লভ প্রজাতির ডলফিন মাছ হত্যা করে তেল সংগ্রহের ঘটনায় সামাজিক মাধ্যমে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। বেশ কিছু দিন ধরে পরিকল্পিতভাবে ডলফিন মাছ হত্যা করে এক ধরণের কবিরাজি চিকিৎসক এ তেল সংগ্রহ করে আসছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীদের তথ্য অনুযায়ী, গত শুক্রবার বিকেলে শাহ আলম নামের একজনের বড়শিতে একটি ডলফিন ধরা পড়ে। পরে সেটি সীতাকুণ্ডের ভাটেরখিল গ্রামের এক ব্যক্তি কিনে নেন। তিনি তেল সংগ্রহের জন্য ডলফিনটি একটি গাছে ঝুলিয়ে রাখেন। ওই রাতেই উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিল্টন রায় ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ডলফিনটিকে মাটিতে পুঁতে ফেলার নির্দেশ দেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিল্টন রায় জানান, ডলফিন হত্যার সঙ্গে জড়িতদের বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ চলছে। বাংলাদেশ জীববৈচিত্র্য আইন-২০১৭-এর ৪১ ও ৪২ ধারা মোতাবেক নিয়মিত মামলা করার জন্য বন কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এই অপরাধে সর্বোচ্চ তিন বছরের কারাদ- অথবা ৩ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে।

এদিকে বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে শাহ আলমের মোবাইল নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার সকালের দিকে গুলিয়াখালী সাগর উপকূলীয় এলাকায় পেতে রাখা জেলেদের জালে প্রায় তিন মন উজনের একটি ডলফিন মাছ ধরা পড়ে। মাঝারি আকৃতির এই মাছটি পেয়ে জেলেরা এটি সাগর তীরে নিয়ে এসে দড়ি দিয়ে একটি গাছের সাথে বেঁধে ঝুলিয়ে রাখেন। এতে মাছটি মরে যায়।

পরে কবিরাজি ওষুধ বিক্রেতা এক ব্যক্তি এ মাছ থেকে তেল তৈরীর উদ্দেশ্যে জেলেদের সাথে দরদাম করে মাছটি কিনে নিয়ে যায়।

এদিকে জীবন্ত দুর্লভ প্রজাতির মাছটিকে জেলেরা হত্যা করায় হতাশা প্রকাশ করেছেন ঘটনার সময় উপস্থিত দর্শনার্থীরা।

গুলিয়াখালীর বাসিন্দা মোঃ আলী বলেন, শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে ডলফিন মাছটি সাগরে জেলেদের জালে ধরা পড়ে। প্রথমে মাছটি জীবিত ছিলো। পরে সেটি উপরে নিয়ে এসে ঝুলিয়ে রাখায় মারা যায়। কিন্তু মাছটিকে সাগরে ছেড়ে দিলে সেটি মারা যেত না।

একটি দুর্লভ প্রজাতির মাছের ব্যাপারে জেলেদের আরো সচেতন থাকা প্রয়োজন ছিলো বলে তিনি মনে করেন।

স্থানীয় বাসিন্দা নুরুল আলম বলেন, জেলেদের জালে এ ধরণের ডলফিন মাছ প্রায় সময় ধরা পড়ে। পরে সে গুলো কবিরাজি চিকিৎসকদের কাছে ছড়াদামে বিক্রি করে দেন জেলেরা।

বিষয়ে জানতে চাইলে মুরাদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ জাহেদ হোসেন নিজামী বাবু বলেন, স্থানীয়দের সাথে কথা বলে আমি জেনেছি যে দুর্লভ প্রজাতির ডলফিন মাছটি মরা অবস্থায় ধরা পড়েছিলো। পরে জেলেরা এটিকে ভাটেরখীল এলাকার দিকে নিয়ে যায়। তারপর এক কবিরাজি ওষুধ বিক্রেতা মাছটি কিনে নিয়ে গেছে ঔষুধি তেল বানানোর লক্ষে।

বন্য প্রাণী ব্যবস্থাপনা চট্টগ্রাম বিভাগের কর্মকর্তা মো. ফরিদ উদ্দিন তালুকদার বলেন, ইউএনওর নির্দেশনা পেয়েছি। জড়িতদের নামে মামলা করা হবে।

Print Friendly and PDF

———