চট্টগ্রাম, সোমবার, ১৭ জুন ২০১৯ , ৩রা আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বাঁশখালীতে আগুনে পুড়ে ছাই ৬ বসতঘর, ৩৫ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি

সাখাওয়াত হোসাইন ফরহাদ প্রকাশ: ১৩ জুন, ২০১৯ ১১:০২ : অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার ৪নং বাহারছড়া ইউনিয়নের মধ্যম ইলশা গ্রামের উমেদ আলী মুন্সীর বাড়িতে গতকাল ১২ জুন রাত আনুমানিক সাড়ে ১২ টার দিকে আগুন লেগে প্রায় ৬ টি বসতঘর পুড়ে যায়।

স্থানীয়ভাবে জানা যায়,হাসানুজ্জামান নামের এক প্রতিবেশির ঘরের বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকেই আগুনের সুত্রপাত হয়।আগুন লাগার পরপরই এলাকাবাসী আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে চেষ্টা করেন,পরে বাঁশখালী ফায়ার সার্ভিস,আনোয়ারা ফায়ার সার্ভিস এর দুইটা ইউনিট ও এলাকাবাসীদের সহযোগিতায় দীর্ঘ ২.৩০ ঘন্টা চেষ্টার পর আগুন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ আনতে সক্ষম হন।

এতে পুড়ে যায় হাসানুজ্জামান সায়েমের ঘর সহ আরো ৬ টি পরিবারের সমস্ত কিছু।আহত হয়েছেন দুজন।আহতরা হচ্ছেন ডা ফখরুল হাসান(৩৮) ও তার স্ত্রী কামরুন্নেসা(৩০)।আহতরা গুনাগরী মা ও শিশু হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায় আছেন।

ক্ষতিগ্রস্ত হাসানুজ্জামান বলেন,’রাত সাড়ে ১২ টার দিকে তাদের ঘর থেকেই আগুনের সুত্রপাত হয়,পরে তা ছড়িয়ে পড়ে অন্য ঘরেও। ফায়ার সার্ভিসকে ফোন দিলে আনোয়ারা ও বাঁশখালী ফায়ার সার্ভিসের ২ টি ইউনিট এসে আগুনে নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হন।

এই ঘটনায় প্রায় ৩৫ লক্ষের অধিক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলেও জানিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্ত পরিবাররা।

এদিকে আজ সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন, ৪নং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম,৭নং ওয়ার্ড় ইউপি সদস্য কামরুল আলম কেনু ও বাঁশখালী থানা পুলিশের একটি তদন্ত দল।

বাঁশখালী ফায়ার সার্ভিসের ইনচার্জ আবদুর রহিম জানিয়েছেন,তারা খবর পেয়েই ছুটে দ্রুত যান,এবং আগুন নিয়ন্ত্রণ আনতে সক্ষম হন।

ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম জানান,প্রায় ৬/৭ টা ঘর আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে শুনে আমি গিয়েছি।নগদ টাকা এবং চাল,টিন সহ আরো প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সহযোগিতা করা হয়েছে।

ইউপি সদস্য কামরুল আলম জানিয়েছেন,তার এলাকায় আগুনের খবর শুনেই ওনি এগিয়ে আসছেন,পরে চেয়ারম্যানকে সাথে নিয়ে পরিদর্শনে গিয়ে সহযোগীতা করেছেন এবং ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের খবরাখবর নিচ্ছেন বলেও জানান।

Print Friendly and PDF

———