চট্টগ্রাম, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯ , ৪ঠা আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ জিতলেই ‘অঘটন’, সেই দৃষ্টিভঙ্গি কতটা বদলালো?

সিটিজি টাইমস ডেস্ক প্রকাশ: ৩ জুন, ২০১৯ ৯:৪০ : পূর্বাহ্ণ

প্রেসবক্সে রেডিও ধারাভাষ্য শোনার জন্য একটা তারহীন ডিভাইস দেওয়া হয়েছে গণমাধ্যম কর্মীদের। সেই ধারাভাষ্যে ম্যাচের শেষ দিকে বারকয়েক ভেসে আসছিল , ‘আপসেট’ শব্দটি।

একটু কান খাড়া করে শুনতে গিয়ে পাওয়া গেল, তারা বলছিলেন ‘এবার বিশ্বকাপে বড় আফসেট হতে যাচ্ছে, বাংলাদেশ বড় আফসেট করছে’ ইত্যাদি। র‍্যাঙ্কিংয়ের তিন নম্বর দলকে হারিয়েছে সাত নম্বর দল।

হালের ক্রিকেটে একেবারেই অস্বাভাবিক কিছু নয়। দলগুলোর কাছে তো নয়ই। বাংলাদেশ অধিনায়কের সংবাদ সম্মেলনেও এলো এই সম্পর্কিত প্রশ্ন।

এক বিদেশী সাংবাদিক মাশরাফি মর্তুজাকে প্রশ্ন করলেন, ‘বাংলাদেশ আগে জিতলে মনে করা হতো আপসেট। আজকের এই জয়ের পর কি সেই ধারণা বদলাবে?’

মাশরাফি প্রশ্নটি ভালো করে শুনতে পাননি। পালটা প্রশ্নে জিজ্ঞেস করলেন, ‘আপনি বলতে চাইছেন এটা আফসেট?’’প্রশ্নকর্তা ফের সেটা শোধরে দিলেন। তারপর বাংলাদেশ অধিনায়ক দিলেন প্রতিক্রিয়া, ‘শতভাগ (বদলাবে)। আবার নির্ভর করে অনেক কিছুর ওপর।

নির্দিষ্ট মানুষ কি মনে করছে সেটা বোঝা তো শক্ত। এক্ষেত্রে আমরা আমাদের নিজেদের খেলাতেই মন দিতে পারি।’

যে সময়টায় বাংলাদেশ জিতলেই বিদেশী পত্রিকার হেডিংয়ে আসত ‘আফসেট’ সেই সময়টা মাশরাফির কাছে বড্ড পীড়াদায়ক। বছর দুয়েক আগে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনাল খেলা, বার তিনেক এশিয়া কাপের ফাইনাল খেলা।

দীর্ঘদিন থেকে র‍্যাঙ্কিংয়ের সাতে থাকার পরও এখনো অনেকের মানসিকতা বদলায়নি, বাংলাদেশ অধিনায়ক জানেন সবটা।

নিজেদের খেলায় মন দিয়েই তাই ব্যাপারটা উপেক্ষা করতে চান তিনি, ‘ওই সময়টা আমাদের জন্য খুব কঠিন ছিল (ছোট দলের তকমা)। তবে এখন আমরা আমাদের নিজেদের খেলায় মন দিচ্ছি।

এখন ভাবি আর মানুষকে তাদের মতো করেই ভাবতে দেওয়া ভাল। আমি নিশ্চিত যে খুব বেশি মানুষ আমাদের ক্রিকেটের পাড় ভক্ত না। কাজেই আমার মনে হয় অতো কিছু না ভেবে আমাদের নিজেদের খেলাতেই মন দেওয়া উচিত।’

`‘অঘটন’, দাবি ভারতীয় মিডিয়ার

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দুর্দান্ত জয়ের পরও বাংলাদেশকে হেয় প্রতিপন্ন করছে ভারত। ইন্ডিয়ার মিডিয়াতে প্রকাশ করা হয়েছে বাংলাদেশের এই জয় অঘটন। ভারতীয় মিডিয়া বুঝাতে চেয়েছে বাংলাদেশে হঠাৎ করে এমন একটা জয় পেয়েছে, যেটা তাদের প্রত্যাশা ছিল না।

ভারতীয় মিডিয়া জেনেও না জানার ভান করছে। মাশরাফি বিন মুর্তজার নেতৃত্বাধীন এই দলের বিপক্ষেই ২০১৫ সালে বাংলাদেশ সফরে এসে পাত্তাই পায়নি ভারতীয় ক্রিকেট দল। তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ২-১ ব্যবধানে হেরে যায় ভারত।

ভারতের পর বাংলাদেশে সফরে আসে দক্ষিণ আফ্রিকা। হাশিম আমলার নেতৃত্বে সেই সফরে আফ্রিকা তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ২-১ ব্যবধানে সিরিজ হারে।

শুধু তাই নয়! ২০০৭ সালের বিশ্বকাপে এই বাংলাদেশের বিপক্ষে হেরে গেছে ভারত। মাশরাফির গতির মুখে পড়ে ১৯১ রানে অলআউট হওয়া রাহুল দ্রাবিদের নেতৃত্বাধীন ভারতকে ৫ উইকেটে হারায় হাবিবুল বাশালের দল।

২০১২ সালের এশিয়া কাপে মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বাধীন ভারতীয় দলকে হারিয়ে টুর্নামেন্টের ফাইনালে খেলে বাংলাদেশ।

বিশ্বকাপ এবং এশিয়া কাপের মতো বড় টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ দলের বিপক্ষে হেরে যাওয়া ভারত টাইগারদের জয়ে কুর্ণিশ করার পরিবর্তে হেয় করছে। প্রতিবেশী দেশের চোখে পড়ার মতো উন্নতি দেখে সাধুবাদ জানানের পরিবর্তে বাংলাদেশ দলকে নিয়ে হেয় প্রতিপন্ন করা হচ্চে।

Print Friendly and PDF

———