চট্টগ্রাম, মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯ , ৬ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রাম থেকে নিখোঁজ স্কুলছাত্র কুমিল্লায় উদ্ধার

প্রকাশ: ২৭ জুন, ২০১৯ ৯:০২ : পূর্বাহ্ণ

চট্টগ্রাম নগরীর নাসিরাবাদ হাউজিং সোসাইটি এলাকা থেকে নিখোঁজ স্কুলছাত্র সাকিব সাহাবকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিখোঁজের ১০ দিন পর বুধবার (২৬ জুন) সকালে কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ এলাকার একটি খাবারের হোটেল থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়।

নগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (উত্তর) মির্জা সায়েম মাহমুদ এ তথ্য জানিয়েছেন। সাকিব সাহাবকে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও তিনি জানান।

১০ দিন আগে স্কুলে যাওয়ার জন্য বের হয়ে নগরীর পাঁচলাইশ থানাধীন নাসিরাবাদ হাউজিং সোসাইটি এলাকার সাউথ পয়েন্ট স্কুলের সামনে থেকে নিখোঁজ হয় সাকিব সাহাব। ওইদিন সকালে সে তার বোনের সঙ্গে স্কুলের উদ্দেশে বাসা থেকে বের হয়।

সাকিব সাহাব সাউথ পয়েন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী। সাকিবের বাবা শাহাব উদ্দিন দীর্ঘদিন পরিবার নিয়ে সৌদি আরবে ছিলেন। সাকিবসহ তার সব ভাই-বোন সৌদি আরবেই জন্মগ্রহণ করে।

গত বছরের ডিসেম্বরে তারা চট্টগ্রামে চলে আসে। এরপর তাকে ওই স্কুলের নবম শ্রেণিতে ভর্তি করা হয়।

মির্জা সায়েম মাহমুদ বলেন, ‘সাকিব সাহাবকে আজ (বুধবার) সকালে কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ এলাকার একটি খাবারের হোটেল থেকে উদ্ধার করা হয়। সে ওই হোটেলে বয়ের কাজ নিয়েছিল।’

নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে সে কোথায় ছিল জানতে চাইলে সায়েম মাহমুদ বলেন, ‘উদ্ধারের পর সে আমাদের জানিয়েছে, ১৬ জুন ট্রেনে করে সিলেটে যায়। সেখানে মাজার জিয়ারত করে পরদিন ১৭ জুন চট্টগ্রামে আসার জন্য ট্রেনে ওঠে। ট্রেনটি কুমিল্লা আসার পর স্টেশনে সে নেমে যায়।

এরপর কুমিল্লায় থাকতে শুরু করে। প্রথম দুই-তিন দিন সঙ্গে থাকা টাকা খরচ করে ঘুরাঘুরি করে। পরে টাকা শেষ হয়ে যাওয়ার পর তার সঙ্গে করে নিয়ে যাওয়া তার মায়ের স্বর্ণের বালা বিক্রি করতে যায়।

একটি দোকানে বালা দুটি বিক্রি করতে গেলে দোকানদার তার কাছ থেকে বালা দুটি রেখে তাকে ৮শ’ টাকা দেন এবং তার পরিবারের কাউকে নিয়ে এসে বালাগুলো নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন।

এরপর সাকিব ওই টাকা নিয়ে খরচ করে। পরে টাকা শেষ হয়ে যাওয়ার পর সে মনোহরগঞ্জ এলাকার ওই খাবারের হোটেলে বয়ের কাজ নেয়।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) রাতে সাকিব তাদের বাসার নাম্বারে কল দেয়। ওই কলের সূত্র ধরে আমরা সকালে মনোহরগঞ্জ থেকে তাকে উদ্ধার করি।’

তিনি আরও বলেন, ‘নিখোঁজের তিন-চার দিন পর সাকিব তার মায়ের নাম্বারে কল দেয়। ওই কলের সূত্র ধরে আমরা তার কুমিল্লায় অবস্থানের বিষয়টি নিশ্চিত হই। আমাদের পাশাপাশি তার পরিবারের সদস্যরা জানতে পেরে আগে থেকে কুমিল্লায় অবস্থান করছিলেন।

সাকিবের বাবা শাহাব উদ্দিন মনোহরগঞ্জ এলাকায় তার অবস্থান নিশ্চিত করেন। বিষয়টি নিয়ে আমরা স্থানীয় থানা পুলিশের সহায়তা চাই। তারা সাকিবকে তার বাবার হাতে তুলে দেয়।’

Print Friendly and PDF

———