চট্টগ্রাম, শুক্রবার, ২৪ মে ২০১৯

রাহী আউট, তাসকিন ইন!

সিটিজি টাইমস ডেস্ক প্রকাশ: ২০১৯-০৫-১১ ১৩:৫৩:০১

নিজেদের ইতিহাসে প্রথম বিশ্বকাপটা খেলেছিল বাংলাদেশ ১৯৯৯ সালে, ইংল্যান্ডের মাটিতে। ২০ বছর আবার সেই ইংল্যান্ডে বিশ্বকাপ। বাংলাদেশ খেলতে যাচ্ছে তাদের ষষ্ঠ বিশ্বকাপ।

ইংল্যান্ডের মাটিতে খেলা বলেই কিনা ২০ বছর আগের অতীতের সঙ্গে কিছুটা মিল রেখে দিচ্ছে বাংলাদেশ দল। ১৯৯৯ সালে বিশ্বকাপ দলে ঠাঁই হয়নি না বর্তমান সময়ে জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নুর।

দেশজুড়ে প্রতিবাদ, বিক্ষোভের জের ধরে পরে নান্নুকে দলভুক্ত করা হয়। হৃদয়বিদারক হলেও বাস্তবতায় বিশ্বকাপ দল থেকে বাদ পড়েন উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান জাহাঙ্গীর আলম। সান্ত্বনা পুরস্কার হিসেবে সেবার জাহাঙ্গীরকে বিশ্বকাপ দলের সঙ্গেই রাখা হয়েছিল।

এবারও তেমন কিছুই ঘটতে যাচ্ছে বাংলাদেশ দলে। যেন ইতিহাসের প্রত্যাবর্তন হতে চলেছে। আর এবার বলি হতে যাচ্ছেন আবু জায়েদ রাহী। কোপটা পড়ছে তার ওপর। যার সব আয়োজন প্রায় শেষের পথে।

তাসকিন আহমেদের ইনজুরির কারণে বিশ্বকাপ দলে হুট করেই নেয়া হয় ডানহাতি পেসার আবু জায়েদ রাহীকে। যার কোনো ওয়ানডে খেলার অভিজ্ঞতাই নেই। ঠিক তার জায়গাতেই ফেরানো হচ্ছে তাসকিনকে। আইসিসিতে তাসকিনের নাম পাঠানোর চিন্তাও শেষ। এখন বাস্তবায়নের পালা।

নিয়ম অনুযায়ী ২৩ মে পর্যন্ত কোনো কারণ ছাড়াই বিশ্বকাপ স্কোয়াডে পরিবর্তন আনতে পারবে দলগুলো। আইসিসি এই নিয়ম করে দিয়েছে। যার সুযোগটাই নিতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। এবং সেখানে আবু জায়েদ রাহীকে বাদ দিয়ে বিশ্বকাপ দলে অন্তর্ভুক্ত করানো হচ্ছে তাসকিনকে।

আয়ারল্যান্ড যাওয়ার পর থেকেই দৃশ্যপটে বদল এসেছে। বিশ্বকাপ দলে থাকলেও রাহী দলের অনুশীলনে ব্রাত্য। নেট বোলার হিসেবেই ব্যবহৃত হয়েছেন। এর মাঝে নাকি চোটের কারণে তিনি বোলিংও করতে পারেননি।

প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু একটি শীর্ষ জাতীয় দৈনিককে বলেছেন, রাহী চোটের কারণে বোলিং করতে পারছিলেন না।

তিনি বলেছেন, ‘ও তো চোটের কারণে এত দিন বোলিংই করতে পারছিল না। স্থানীয় ফিজিও যে প্রতিবেদন দিয়েছিল সে মতে সব কিছু হয়নি। আমাদের বলা হয়েছিল তিন-চার দিনে সেরে উঠবে। কিন্তু আজই প্রথম বল করার মতো অবস্থায় এসেছে রাহি।’

টিম ম্যানেজমেন্টের সিদ্ধান্ত হয়ে গেছে। চোট কাটিয়ে ছন্দে ফেরার কাছাকাছি দ্রুতগতির পেসার তাসকিন। বিসিবি সভাপতির সঙ্গে কথা বলে বাদ দেয়া হবে রাহীকে।

প্রধান নির্বাচন বলেছেন, ‘চোট থাকলে তো পরিবর্তন করতেই হবে। তবে আমরা রাহিকে বিশ্বকাপে নিয়ে যাব। সে ক্ষেত্রে দল ১৬ জনের হবে। এটা নিয়ে আজ (গতকাল) বোর্ড সভাপতির সঙ্গে কথা হবে।’

এতেই স্পষ্ট ২০১৯ সালে এসে ২০ বছর আগের ‘জাহাঙ্গীর’ হয়ে যাচ্ছেন সিলেটের তরুণ পেসার রাহী। এমনভাবে বাদ পড়া হতাশার উল্লেখ করে মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বলেছেন, ‘জাহাঙ্গীর কেন, যেকোনো ক্রিকেটারের জন্যই এভাবে দলে ঢুকে বাদ পড়া হতাশাজনক।

রাহির বেলায় কিন্তু তেমনটা ঘটছে না। আমরা সম্ভবত ১৬ জন নিয়ে বিশ্বকাপে যাব।’

———