চট্টগ্রাম, সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯ , ১১ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ

ফেরারী আসামী মুক্তিযুদ্ধের নাম ভাঙ্গিয়ে বনেধি পরিবারের বিরুদ্ধে কুৎসা রটনার চক্রান্ত

আখতার হোসাইন প্রকাশ: ২৫ মে, ২০১৯ ৫:০৯ : অপরাহ্ণ

কর্ণফুলী থানার চরলক্ষ্যা গ্রামের বাসিন্দা মরহুম মো: হোসেনের সুপ্রতিষ্ঠিত বনেধি পরিারের সদস্যদের বিরুদ্ধে একের পর এক মিথ্যা, কাল্পনিক ও ভিত্তিহীন ষড়যন্ত্র মূলক তথ্য প্রচার করে মানহানির অভিযোগ করে সংবাদ সম্মেলন করেছে ইউনিওশান শিপিং লাইনস লি:, ইউনিয়ন ইন্সুরেন্স লি:, সমতা শিপিং এন্ড ট্রেনিং এজেন্সিস, হোটেল সেন্ট মার্টিন লি: সহ সুপ্রতিষ্ঠিত আরো বেশ কিছু শিল্প প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও পরিচালকবৃন্দ।

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ মো: আজিজুর রহমান বলেন, তথাকথিত মুক্তিযোদ্ধা ও ফেরারী আসামী পেয়ার মোহাম্মদ এলাকায় সব সময় একটি ত্রাসের রাজত্ব প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে জনগণের ধাওয়া খেয়ে পালিয়ে বেড়ায়। তাঁর বিরুদ্ধে খুন, ধর্ষণ, নারী নির্যাতন, সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজিসহ প্রায় ১২টি মামলা রয়েছে। পেয়ারু মুক্তিযোদ্ধা না হয়েও মুক্তিযোদ্ধার নাম ভাঙ্গিয়ে সরকার ও প্রশাসনের ধারে ধারে ঘুরছে।

তিনি আরো বলেন, আমার বাবাও একজন প্রসিদ্ধ ব্যবসায়ী ছিলেন। আমরাও এই ধারাবাহিকতায় ইউনিওশান শিপিং লাইনস লি:, ইউনিয়ন ইন্সুরেন্স লি:, সমতা শিপিং এন্ড ট্রেনিং এজেন্সিস, হোটেল সেন্ট মার্টিন লি:, ম্যাক্স হসপিটাল, সমতা অটোমোবাইল, এস টি ট্রেডিং ইন্টারন্যাশনাল, এইচ এস কর্পোরেশন, এইচ এস শিপিং লাইসন, আজিজ এন্টারপ্রাইজ, ব্লু ওশান নেভিগেশন, সাজেদা ট্রেডিং, তাসনিয়া ট্রেডিং কর্পোরেশন, আমিন এন্টারপ্রাইজ, সমতা লজিষ্টিক, এসবি এন্টারপ্রাইজ, এস এস কর্পোরেশনসহ আরো বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানের কেউ চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং এমপি ও পরিচালকের দায়িত্ব থেকে স্ব স্ব অবস্থানে প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী হই।

তিনি লিখিত বক্তব্যে আরো বলেন, তথাকথিত মুক্তিযোদ্ধা পেয়ার মোহাম্মদ গংদের ভিটামাটি দখলের প্রশ্নই আসে না। বরং পেয়ার মোহাম্মদ বিভিন্ন চলচাতুরামীর মাধ্যমে আমাদের জয়গা জবরদখল করার জন্য দীর্ঘদিন থেকে ষড়যন্ত্র করে আসছে। সফল হতে না পেরে বিভিন্ন সন্ত্রাসী বাহিনী ও অস্ত্রধারীদের নিয়ে হীন স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে লোমহর্ষক ঘটনাও সংঘঠিত করে।

লিখিত বক্তব্যে বলেন, আমাদের জমি জামা ও ভিটেমাটি সম্পূর্ণ সীমানা পিলার দ্বারা বেষ্টিত। দখল করার জন্য পেয়ার মোহাম্মদ গং এবং সুলতান আহমদ, খোকন, ইমরান, নুরুল আলম, সাজেদা বেগম ও মাইনুলসহ বিভিন্ন সময় হামলা করে আমাদের সম্পত্তি দখলের ষড়যন্ত্র করে। এলাকার জনগণের অতিষ্ঠ হয়ে তাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায়। এমতাবস্থায় পেয়ার মোহাম্মদ মুক্তিযোদ্ধ না ধরণ করে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব ও ঢাকা জাতীয় প্রেস ক্লাবে বিভিন্ন ধরনের মিথ্যা, বানোয়াট, উদ্দেশ্যে প্রনোদিত ষড়যন্ত্রমূলক বক্তব্য দিয়ে আমাদের সামাজিক ও রাজনৈতিক এবং ব্যবসায়ীক ক্ষতি সাধনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। লিখিত বক্তব্যে বলেন, ভুমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান জাবেদও এ বিষয়টি মীমাংসা করার চেষ্টা করে কিন্তু পেয়ারম মোহাম্মদ তা মেনে নেয়নি।

সংবাদ সম্মেলনে পটিয়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মো: মহি উদ্দিন বলেন, পেয়ার মোহাম্মদ কিংবা তার বাবা ১৯৭১সালে স্বাধীনতা আন্দোলনে সম্পৃক্ত ছিলনা। মুক্তিযোদ্ধাও ছিল না। তিনি নিজেকে সঘোষিত মুক্তিযুদ্ধা বলে দাবী করলেও কোন প্রকার ডকুমেন্ট তার কাছে নেই। পেয়ার মোহাম্মদ মুক্তিযুদ্ধের নাম ব্যবহার করে বিভিন্ন ধরনের অসামাজিক কার্যকলাপ ও সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে এলাকায় ত্রাস সৃষ্টির বিষয়ে আমরা অবগত। তার কারণে মুক্তিযুদ্ধের বদনাম হচ্ছে বলেও তিনি দাবী করেন।

সংবাদ সম্মেলনে মিথ্যা, বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত বক্তব্য দিয়ে আমাদের মানহানি করার প্রতিবাদ করেন হাজী আমিনুল ইসলাম। তিনি এ সব বিভ্রন্তিমূলক কুৎসা রটনার জন্য পেয়ার মোহাম্মদ গং এর শাস্তিও দাবী করেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন মো: আজিজুর রহমান, হাজী মো: আমিনুল ইসলাম, মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, মুক্তিযোদ্ধা মো: মহিউদ্দিন, মুক্তিযোদ্ধা ও চরলক্ষ্য ইউনিয়ন কমান্ডার মো: মুছা আলম, মুক্তিযোদ্ধা আবু বকর, মুক্তিযোদ্ধা মো: আমীন ও নির্যাতনের স্বীকার পেয়ার মোহাম্মদের স্ত্রীসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

Print Friendly and PDF

———