চট্টগ্রাম, ১০ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৯

২৮ মার্চ পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত ঘোষণা

প্রকাশ: ২০ মার্চ, ২০১৯ ৫:৪১ : অপরাহ্ণ

আগামী ২৮ মার্চ পর্যন্ত নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের সব কর্মসূচি স্থগিত ঘোষণা করেছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলামের সঙ্গে বৈঠকের পর আন্দোলনকারীরা তাদের এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।

বৈঠকে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) শিক্ষার্থী তৌহিদুজ্জামান সাংবাদিকদের বলেন, ‘আজ আমরা ছাত্রদের নিয়ে মেয়রের সঙ্গে দীর্ঘক্ষণ বৈঠক করেছি। সময়সাপেক্ষে মেয়র সাহেব আমাদের সব দাবি মেনে নিয়েছেন। আমরা বলেছি আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সর্বোচ্চ ৩০ দিনের মধ্যে এই ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার চার্জশিট দিতে হবে। মেয়র বলেছেন, তিনি সেই ব্যবস্থা করবেন। দোষী ব্যক্তিদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করবেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘সড়ক নিরাপত্তার জন্য যেখানে যা করা দরকার তার জন্য আগামী সাতদিনের মধ্যে একটা পরিকল্পনা প্রণয়ন করবেন মেয়র এবং পরবর্তী এক মাসের মধ্যে তা বাস্তবায়ন করবেন। এছাড়া স্টুডেন্ট কাউন্সিলের কথাও বলেছেন তিনি। এজন্য আমরা পরবর্তী সাত দিন সময় দিচ্ছি। আগামী ২৮ মার্চ বৃহস্পতিবার মেয়রের সঙ্গে আবার আমাদের বৈঠক হবে। তাই আজ থেকে ২৮ তারিখ পর্যন্ত সব ধরনের আন্দোলন আমরা স্থগিত করছি।’

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মেয়র আতিকুলের বৈঠকনিরাপদ সড়কের বিষয়ে কথা বলতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ১০ সদস্যবিশিষ্ট একটি প্রতিনিধি দল ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) কার্যালয়ে যায়। আজ বুধবার দুপুর ১টার দিকে তারা প্রগতি সরণির সামনে থেকে ডিএনসিসি কার্যালয়ে যান। পরে দেড়টার দিকে ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠকে বসেন।

বৈঠকে ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) উপাচার্য মেজর জেনারেল এম এমদাদুল বারীসহ বিভিন্ন শিক্ষার্থী প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে রাজধানীর বসুন্ধরা গেট এলাকায় ‘সুপ্রভাত’ নামে একটি বাসের চাপায় বিইউপির শিক্ষার্থী আবরার আহমেদ চৌধুরী নিহত হন। এ ঘটনার পর ঘাতক বাস সুপ্রভাত পরিবহনের রুট পারমিট বাতিল, ঘাতক চালকের ফাঁসির দাবিসহ আট দফা দাবিতে নানা স্লোগান দিয়ে সড়ক অবরোধ করেন শিক্ষার্থীরা। বুধবারও রাজধানীজুড়ে শিক্ষার্থীদের অবরোধ আন্দোলন হয়। দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত সড়ক ছাড়বেন না বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন তারা।