চট্টগ্রাম, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৯

খালেদা জিয়া ‘অসুস্থ’, হাজির করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ

প্রকাশ: ২০১৯-০৩-১৮ ১০:০৮:৪২

গ্যাটকো মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য আজকের দিন ধার্য ছিল। শুনানিতে অংশ নিতে কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করার কথা ছিল। কিন্তু সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীকে আদালতে হাজির করেনি কারা কর্তৃপক্ষ। কর্তৃপক্ষ বলছে, ‘খালেদা জিয়া অসুস্থ তাই তাকে হাজির করা হয়নি।’

সোমবার (১৮ মার্চ) পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের পরিত্যক্ত পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারে অবস্থিত ঢাকার তিন নম্বর বিশেষ জজ সৈয়দ দিলজার হোসেনের আদালতে শুনানির দিন ধার্য ছিল।

দুপুরে খালেদা জিয়াকে হাজির না করে কেরানীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগারের সহকারী সার্জন ড. মাহমুদুল হাসান স্বাক্ষরিত একটি কাস্টডি পাঠায় কারা কর্তৃপক্ষ। এতে লেখা হয়েছে- ‘শারীরিক অসুস্থতাজনিত কারণে আজ খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজি করা হয়নি।’

এ বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি মোশাররফ হোসেন কাজল বলেন, ‘আজ অভিযোগ গঠন শুনানির দিন ধার্য রয়েছে। খালেদা জিয়া জেলখানায় আছেন। জেল কর্তৃপক্ষ তাকে হাজির করেনি। তার অনুপস্থিতিতে অভিযোগ গঠন শুনানি হতে পারে।’

অপরদিকে খালেদার আইনজীবী মাসুদ আহমেদ তালুকদার বলেন, ‘খালেদা জিয়া শারীরিকভাবে খুবই অসুস্থ। এ কারণে তাকে আদালতে হাজির করেনি কারা কর্তৃপক্ষ। তার অনুপস্থিতিতে অভিযোগ গঠনের শুনানি হতে পারে না। এ ছাড়া আমরা মামলার প্রয়োজনীয় কাগজ এখনও পাইনি। তাই আমাদের একটি লম্বা সময় দেয়া হোক।’

উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত আগামী ১৭ এপ্রিল অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য পরবর্তী দিন ধার্য করেন।

এর আগে সর্বশেষ গত ১৩ মার্চ বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি মামলার অভিযোগ গঠনের শুনানিতে অংশ নিতে কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করার কথা ছিল। কিন্তু সেদিনও সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীকে আদালতে হাজির করেনি কারা কর্তৃপক্ষ। সেদিন কারা কর্তৃপক্ষ বলেছে, ‘খালেদা জিয়া আদালতে যেতে অনীহা প্রকাশ করেছেন।’

বিএনপি অভিযোগ করে আসছে, কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন অনেকদিন ধরেই অত্যন্ত ‍অসুস্থ। তাকে চিকিৎসা দিচ্ছে না সরকার। তিনি সোজা হয়ে দাঁড়াতে ও বসতে পারছেন না, তারপরও সরকার খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করছে না। তাকে চিকিৎসা না দিয়ে তীলে তীলে হত্যার ষড়যন্ত্র করছে সরকার।

গত ১০ মার্চ সব প্রস্তুতির পরও কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসনকে হাসপাতালে নিয়ে আসেননি কারা কর্তৃপক্ষ। তাদের দাবি- ‘খালেদা জিয়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে আর চিকিৎসা নিতে চান না, অনীহা প্রকাশ করেছেন।’

তবে বিএনপিপন্থি চিকিৎসকদের সংগঠন ডক্টর’স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ—ড্যাবের আহ্বায়ক অধ্যাপক ডা. ফরহাদ হালিম ডোনার জানিয়েছেন, ‘উনার (খালেদা জিয়া) যে ইচ্ছাটা, ইউনাইটেড হাসপাতালে উনি চিকিৎসা নিয়ে থাকেন। ওখানে নিজস্ব যে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক রয়েছেন, যারা সারাজীবন উনাকে দেখছেন, তাঁরা ওখানে আছেন, তাদের অধীনে চিকিৎসা নিতে।’

ড্যাব আহ্বায়ক বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ। এমনকি হুইল চেয়ারে বসার যে পাদানি থাকে সেখানে ঠিকমতো বসতে পারেন না। খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য গঠিত মেডিকেল বোর্ডের চিকিৎসক এফএম সিদ্দিকী কারাগারে গিয়েছিলেন। সেখানে স্পষ্ট করে বলেছেন বেসরকারি হাসপাতাল ইউনাইটেড উনার যে বিশেষজ্ঞ ডাক্তার আছে তাদের অধীনে চিকিৎসা নিতে। সুতরাং এটা যে খুব একটা বড় দাবি আমরা তা মনে করি না। তাকে পিজিতেই আনতে হবে এমন তো কথা নেই। এদেশে অনেকেই আছেন যারা প্যারোলে বিদেশে গিয়েছিলেন এখনও যাচ্ছেন চিকিৎসার জন্য।