চট্টগ্রাম, , রোববার, ২৪ মার্চ ২০১৯

ডাকসু ভোট বর্জন, ধর্মঘটের ডাক

প্রকাশ: ২০১৯-০৩-১১ ১৩:৩২:০০ || আপডেট: ২০১৯-০৩-১১ ১৪:০৩:৩৬

জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলসহ কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ ডাকসু নির্বাচেনে ভোট বর্জন করেছে প্রগতিশীল ছাত্র জোট, স্বতন্ত্র জোট, স্বতন্ত্র অধিকার জোট ও কোটা সংস্কার আন্দোলন। ভোট বাতিল কলে পুণঃভোটের দাবি জানানো হয়েছে। একই সঙ্গে মঙ্গলবার ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়েছে।

সোমবার দুপুর একটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলনে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেয়া হয়। সংবাদ সম্মেলনে সব প্যানেলের পক্ষ থেকে প্রগতিশীল ছাত্রজোটের ভিপি প্রার্থী লিটন নন্দী এই ঘোষণা দেন।

তিনি বলেন, ‘আমরা এই প্রহসন ও জালিয়াতির নির্বাচনকে ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করছি।’

লিটন নন্দী নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করার পাশাপাশি নতুন নির্বাচনের দাবি জানিয়ে বলেন, ‘নির্বাচনের নতুন পরিচালনা কমিটি গঠন, একাডেমিক ভবনে ভোট কেন্দ্র স্থাপন এবং স্বচ্ছ ব্যালট বাক্সে ভোট গ্রহণ করতে হবে।’

এদিকে এর আগে রোকেয়া হলের সামনে কোটা আন্দোলনকারী প্যানেলের সহ-সভাপতি (ভিপি) প্রার্থী নুরুল হক নূর, ছাত্রদলের এজিএস প্রার্থী অনিককে মারধর করা হয়।

প্রতিবাদে আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে স্বতন্ত্র জোটের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী শাফী আব্দুল্লাহ জানিয়েছেন: সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে, ছাত্রলীগ এবং প্রশাসনের সীমাহীন দুর্নীতির কারণে এবং অরণি সেমন্তি খান ও শ্রবণা শফিক দীপ্তিকে শারীরিকভাবে আক্রমণ করায় স্বতন্ত্র জোট ডাকসু নির্বাচন বর্জন করছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচনে নানা অভিযোগ এনে ভোট বর্জন করেছে ছাত্রলীগ ছাড়া সবগুলো প্যানেল। একই সঙ্গে অবিলম্বে নতুন তফসিল ঘোষণার দাবি জানিয়েছেন তারা।

এর আগে তিনটি ব্যালট বাক্স সরিয়ে রাখার অভিযোগ নিয়ে সৃষ্ট বিশৃঙ্খলাকে কেন্দ্র করে বেলা ১২টার দিকে বেগম রোকেয়া হলে ভোটগ্রহণ বন্ধ করে দেয়া হয়।