চট্টগ্রাম, , শনিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

আওয়ামীলীগে একক প্রার্থী চূড়ান্ত, কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় বিএনপি

প্রকাশ: ২০১৯-০২-০৩ ১১:৩৩:০৫ || আপডেট: ২০১৯-০২-০৩ ১১:৩৩:৩৯

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই প্রতিনিধি

আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে সরগরম মিরসরাইয়ে রাজনীতি। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে আওয়ামীলীগ সরকার গঠনের পর উপজেলা চেয়ারম্যান ও দুই ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হওয়ার জন্য প্রায় দুই ডজন প্রার্থী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে সরব থাকলে দলের বর্ধিত সভায় তার অবসান হয়। বিগত উপজেলা নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীরা হারার পর আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার জন্য আওয়ামী লীগ ব্যাপক প্রস্তুতি নিচ্ছে। ইতমধ্যে আওয়ামীলীগ নির্বাচনে একক প্রার্থীর নাম ঘোষণা করলেও অনেকটাই নীরব বিএনপি। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশগ্রহণের বিষয়ে দলীয় সীদ্ধান্তের পর প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন উপজেলা বিএনপি নেতৃবৃন্দ।

জানা গেছে, আগামী মার্চ মাসে কয়েক ধাপে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের পরিকল্পনা রয়েছে নির্বাচন কমিশনের (ইসি)। ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে এ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার কথাও জানিয়েছে কমিশন। এবারই প্রথম দলীয় প্রতীকে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচন হবে। তবে ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ভোট হবে ভিন্ন ভিন্ন প্রতীকে।

উপজেলা আওয়ামী লীগ ইতিমধ্যে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করেছে। গত ৩০ ডিসেম্বরের জাতীয় নির্বাচনে বিজয়ের ধারাবাহিকতায় উপজেলা নির্বাচনেও সর্বোচ্চ সাফল্য পেতে প্রস্তুতি চলছে। দলীয় প্রতীকে চেয়ারম্যান পদ ছাড়াও অন্য দুটি ভাইস চেয়ারম্যান পদেও একক প্রার্থী নিয়ে মাঠে নামতে চায় এই দল। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের একক প্রার্থী নির্ধারণ করার জন্য গত ২৮ জানুয়ারি মিঠাছড়া সাসা কমিউনিটি সেন্টারে তৃণমূল আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভা করে দলটি। যেখানে উপজেলা কমিটি, দুই পৌরসভা ও ১৬টি ইউনিয়ন কমিটি সহ তৃণমূলের সকল নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। বর্ধিত সভায় সাবেক মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। বর্ধিত সভায় তৃণমূলের সমর্থনে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক জসীম উদ্দিনের নাম চূড়ান্ত করা হয়। কেন্দ্র থেকে শুধু উপজেলা চেয়ারম্যান পদে একক প্রার্থী ঘোষণা করার কথা বলা হলেও বর্ধিত সভায় পুরুষ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদেও একক প্রার্থী চূড়ান্ত করা হয়। ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি এম আলা উদ্দিন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক ইসমত আরা ফেন্সীর নাম ঘোষণা করা হয়। প্রার্থীদের নামের তালিকা উপজেলা আওয়ামীলীগ জেলা আওয়ামীলীগের কাছে পাঠাবে সেখান থেকে জেলা আওয়ামীলীগ চূড়ান্ত ভাবে মনোনয়ন দেওয়ার জন্য দলীয় সভানেত্রীর কার্যালয়ে পাঠাবে। আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ড ও স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ড প্রার্থীদের চূড়ান্ত মনোনয়ন দিবেন বলে জানা গেছে।

এদিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের পাঠানো প্রার্থী তালিকায় নাম না থাকলেও দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যদি বলেন তাহলে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হবেন বলে জানান সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন। তিনি বলেন, নেত্রী আমাকে যেখানে কাজ করতে বলবেন আমি সেখানে কাজ করবো।

নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগের মধ্যে দৌড়ঝাঁপ শুরু হলেও এখনো নিরব বিএনপি। তাদের মধ্যে এ নিয়ে কোন আগ্রহই দেখা যাচ্ছে না। দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকা দলটি সাংগঠনিকভাবেও ঝিমিয়ে পড়েছে। গত ২০১৪ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী উপজেলা চেয়ারম্যান পদে নুরুল আমিন ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে মঈন উদ্দিন মাহমুদ বিজয়ী হয়। তবে বেশিদিন ক্ষমতায় থাকতে পারেননি তারা। দায়িত্ব গ্রহণের ৬ মাসের মাথায় নাশকতা মামলার কারণে স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় থেকে বহিস্কৃত হন দুই জনই। পরবর্তীতে বিগত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করেন নুরুল আমিন। মিরসরাই উপজেলায় সংসদ নির্বাচন থেকে শুরু করে সব নির্বাচনে দেশের প্রধান দুই দল আওয়ামীলীগ ও বিএনপির মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়। যদি আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করে তাহলে আওয়ামীলীগের প্রার্থীর সাথে বিএনপি প্রার্থীর প্রতিদ্ধন্ধিতা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
দলীয় সীদ্ধান্তের পর বিএনপি যদি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে সেক্ষেত্রে সম্ভাব্য প্রার্থীর তালিকায় উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক শাহিদুল ইসলাম চৌধুরী ও বারইয়ারহাট পৌরসভার সাবেক মেয়র হাজ্বী জালাল উদ্দিনের নাম শোনা যাচ্ছে।

উপজেলা চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হলেও দুই ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন হবে স্বতন্ত্র প্রতীকে। তাই অনেকে ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হওয়ার জন্য তফশীল ঘোষণা পর্যন্ত অপেক্ষা করবেন বলে জানা গেছে। ভাইস চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা মাঠ পর্যায়ের সরব হয়ে উঠেছেন। বিশেষ করে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীদের অনেকে এমপি এবং জেলা ও উপজেলার শীর্ষ নেতাদের সাথে যোগাযোগ বাড়িয়ে দিয়েছেন।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ফেরদৌস হোসেন আরিফ, করেরহাট ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শেখ সেলিম, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক এসএম আবুল হোসেন, আওয়ামীলীগ নেতা সমাজ সেবক রেজাউল করিম মাষ্টার, উপজেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সুদর্শণ রায় ও উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক অনির্বাণ চৌধুরী রাজিবের নাম শোনা যাচ্ছে। বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মাঈন উদ্দিন মাহমুদও নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করতে পারেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী বলেন, গত ২৮ জানুয়ারী উপজেলা আওয়ামীলীগের তৃণমূলের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে সাবেক গৃহায়ন ও গনপূর্তমন্ত্রী এবং বর্তমান সাংসদ ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া উত্তর জেলা আওয়ামীলীগ থেকে শুরু করে উপজেলার ১৬টি ইউনিয়ন ও ২ পৌরসভার সকল নেতাকর্মীগনের সমর্থিত ও প্রস্তাবিত প্রার্থি হিসেবে চূড়ান্ত করা হয় আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের উক্ত প্রার্থীতা। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক স্বাক্ষরিত তৃণমূলের একক প্রার্থীতার প্রস্তাবপত্র গত ২৯ জানুয়ারী দলের কেন্দ্রীয় পর্যায়ের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের কাছে প্রেরণ করা হয়। উক্ত তালিকায় উল্লেখিত চূড়ান্ত প্রার্থীগন যথাক্রমে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক জসিম উদ্দিন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মোঃ আলাউদ্দিন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদিকা ইসমত আরা ফেন্সি।

মিরসরাই উপজেলা বিএনপির আহবায়ক নুরুল আমিন বলেন, ‘উপজেলা নির্বাচন নিয়ে বিএনপি এখনো কোন সিদ্ধান্ত নেয়নি। বর্তমান সরকার ও সিইসি’র অধীনে কোন সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে না তা দেশবাসী প্রমাণ পেয়েছে গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তফশীল ঘোষণার পর বিএনপি কেন্দ্রীয়ভাবে যদি নির্বাচনে অংশগ্রহণের সীদ্ধান্ত নেয় তাহলে মিরসরাইতে প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হবে।