চট্টগ্রাম, , শনিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

কর্ণফুলীতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে কাউকে ছাড় নয়: ভূমিমন্ত্রী

প্রকাশ: ২০১৯-০২-০২ ২১:১৯:১৬ || আপডেট: ২০১৯-০২-০৩ ১৩:১৫:০৫

চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদীর দুই তীরের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না বলে হুশিয়ার করেছেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ।

শনিবার বিকালে নগরীর সদরঘাট এলাকায় কর্ণফুলী নদীর তীরে উচ্ছেদ কার্যক্রমের শুরুর আগের পরিস্থিতি দেখতে এসে ভূমিমন্ত্রী সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

সোমবার থেকে জেলা প্রশাসন অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের কাজ শুরু করবে।

শনিবার ভূমিমন্ত্রী বলেন, “সোমবার থেকে উচ্ছেদ অভিযান শুরু হবে। উচ্চ আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক যেভাবে বলে দেয়া হয়েছে সেভাবেই উচ্ছেদ কার্যক্রম চলবে। পুরো এলাকাটিকে কয়েকটি জোনে ভাগ করা হয়েছে। প্রথম জোনে দুইশর মত স্থাপনা ভাঙলে ১০ একর জায়গা আমাদের পুনরুদ্ধার হবে। সরকারি-বেসরকারি যেই হোক কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। আমাদের কাছে অনেক কল এসেছে, রিকোয়েস্টও এসেছে। আমরা তাদের দীর্ঘ সময় দিয়েছি। এখন আর কিছুই করার নেই। সবকিছু বিবেচনা করে কাজ করছি। রোববার পর্যন্ত সময় আছে তাদের স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার জন্য।”

অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে প্রভাবশালীদের কোন চাপ আছে কি না জানতে চাইলে ভূমিমন্ত্রী জাবেদ বলেন,“ কোনো প্রভাবশালী নেই। প্রভাবশালী বলতে আমি কিছু বুঝি না। সরকারের চেয়ে বড় প্রভাবশালী কে? ”

নদীর দুই পারে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে মন্ত্রণালয় থেকে অর্থ ছাড় দেয়া হয়েছে বলে জানান মন্ত্রী।

সোমবার থেকে কর্ণফুলী নদীর দুই তীরে গড়ে ওঠা ২১১২টি সরকারি বেসরকারি স্থাপনা উচ্ছেদ করে নদী দখলমুক্ত করার কাজ শুরু করবে জেলা প্রশাসন।

পতেঙ্গায় কর্ণফুলী নদীর মোহনা থেকে শুরু করে মোহরা পর্যন্ত ১০ কিলোমিটার এলাকায় নদীর দুইপাশে এসব অবৈধ স্থাপনা আছে।