চট্টগ্রাম, , শনিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

চট্টগ্রামে যুবলীগ কর্মী খুন

প্রকাশ: ২০১৯-০২-০১ ২২:৩৮:৪৪ || আপডেট: ২০১৯-০২-০২ ১০:৫২:০০

চট্টগ্রাম নগরীতে মো.মাসুদ নামে এক যুবলীগ কর্মীকে ছুরিকাঘাতে খুন করা হয়েছে। অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক বিরোধের জেরে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

শুক্রবার (০১ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ৭টার দিকে নগরীর আকবর শাহ থানার বেলতলী ঘোনা ফারুক চৌধুরীর মাঠ এলাকায় এই ঘটনা ঘটেছে।

৩২ বছর বয়সী মাসুদ আকবর শাহ মাজার এলাকার বাসিন্দা আবুল বাশারের ছেলে বলে জানিয়েছেন আকবর শাহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জসিম উদ্দিন।

মাসুদ স্থানীয় ৯ নম্বর পাহাড়তলী ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ দলীয় কাউন্সিলর জহুরুল হক জসিমের অনুসারী হিসেবে পরিচিত। জহুরুল হক জসিম চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারী।

ওসি জানান, ফারুক চৌধুরীর মাঠ এলাকায় আওয়ামী লীগের সাইনবোর্ড লাগানো কাউন্সিলরের একটি অফিস আছে। সন্ধ্যার দিকে সেই অফিসে বসে মাসুদসহ ৬-৭ জন আড্ডা দিচ্ছিল। এসময় ৬-৭ জন যুবক অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে এসে তাদের উপর হামলা চালায়। তারা মাসুদকে টেনেহিঁচড়ে নিয়ে যাবার চেষ্টা করে। এতে ব্যর্থ হয়ে তার মাথায় আঘাত ও ছুরিকাঘাত করে। ঘটনাস্থলেই মাসুদ মারা যান।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, আকবর শাহ থানার পাঞ্জাবী লেইন এলাকার জনৈক আব্দুল জলিলের সঙ্গে বিরোধে মাসুদকে খুন করার প্রাথমিক তথ্য পেয়েছে পুলিশ। আব্দুল জলিলও আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তার বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসার অভিযোগ আছে। হত্যাকাণ্ডে আব্দুল জলিলের ছেলে আবু বক্কর নেতৃত্ব দিয়েছে বলে জানতে পেরেছে পুলিশ।

ওসি জসিম উদ্দিন বলেন, মূলত এলাকায় আধিপত্য বিস্তার এবং নিজেদের মধ্যে রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের জেরে মাসুদকে খুন করা হয়েছে বলে আমরা জানতে পেরেছি। তবে তদন্তে সবকিছু বেরিয়ে আসবে।

আকবর শাহ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো.মহিবুর রহমান বলেন, ‘হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের বিষয়ে আমরা তথ্য পেয়েছি। তাদের ধরার জন্য আমরা অভিযান শুরু করেছি।’