চট্টগ্রাম, ১০ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৯

রাসুল (সা.)’ আদর্শ বাস্তবায়নের মাধ্যমে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নির্মূল সম্ভব

প্রকাশ: ২৬ জানুয়ারি, ২০১৯ ৫:১২ : অপরাহ্ণ

বোয়াললখালীতে সুন্নী কনফারেন্সে বক্তারা

বিশ্বব্যাপী হত্যা, নির্যাতন, ধর্ষণ, লুটতরাজ, চাঁদাবাজি ও টেন্ডারবাজির মত নানান অনৈতিক কর্মকান্ডে জনমনে অস্থিরতা চলছে। আর এ সকল অপরাধ গুলো সংগঠিত হচ্ছে কেবল রাসুল (সা.)’র আদর্শকে ভুলে মানবগড়া মতবাদের রাজনীতির জন্য। তাই সমাজ ও রাষ্ট্রে শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে রাসুল (সা.)’র আদর্শ অনুসরণ ও বাস্তবায়ন করতে হবে। কেননা রাসুল (সা.)’র আদর্শ বাস্তবায়নের মাধ্যমেই সমাজ ও রাষ্ট্র থেকে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নির্মূল করা সম্ভব।

গাউছিয়া কমিটি বাংলাদেশ বোয়ালখালী পৌর এলাকার মনুপাড়া শাখার উদ্যোগে শুক্রবার (২৫ জানুয়ারি) রাতে আয়োজিত ঐতিহাসিক সুন্নী কনফারেন্সে ঢাকার মনিপুর বাইতুর রওশন মাদরাসা কমপ্লেক্সের প্রিন্সিপাল ড.মুফতি মাওলানা মু.এহছানুল হক জিহাদী আল মুজাদ্দেদী প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

বোয়ালখালীর পশ্চিম গোমদন্ডী মনুপাড়ায় অনুষ্ঠিত সুন্নী কনফারেন্স উদ্বোধন করেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক হাজী ইদ্রিস আলম। বোয়ালখালী পৌর সভার মেয়র আবুল কালাম (আবু)’র সভাপতিত্বে কনফারেন্সে প্রধান অতিথির আলোচনা পেশ করেন এ এন এফ এল প্রপ্রার্টিজ বিল্ডার্স লিমিটেডের চেয়ারম্যান লায়ন আহসানুল করিম। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন বশর গ্রুপ অব ইন্ডাষ্ট্্িরজ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবুল বশর (আবু), রাজনীতিবিদ ছৈয়দ এম সাইফু উদ্দীন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মো. কামরুল হাসান চৌধুরী, মু. মমতাজুল ইসলাম, হাজী আবদুর শুক্কুর, নজরুল ইসলাম সওদাগর প্রমূখ।
গাউছিয়া কমিটি মনুপাড়া শাখার সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শাহজাহানের সঞ্চলনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির আলোচনা করেন লালিয়ারহাট হোসাইনিয়া সিনিয়র মাদরাসার প্রভাষক মাওলানা মো. সোহেল উদ্দিন আজহারী, কক্সবাজার জঙ্গলীপীর ইসলামিয়া সুন্নিয়া মাদরাসার সুপার আল্লামা মু.আব্দুল আজিজ রেজভী, শাকপুরা দারুসুন্নাহ কামিল মাদরাসার প্রধান মুফাসসির মাওলানা এহসানুল উল্লাহ আল কাদেরী ও মাওলানা হাফেজ মোহাম্মদ ইসমাইল হোসেন আল কাদেরী।

সুন্নী কনফারেন্সে বক্তারা বলেন, পবিত্র কোরআন আমাদের জন্য এক নেয়ামত। কোরআনের আদর্শ ও উদ্দেশ্য বুকে ধারণ করতে পারলে সমাজে কোন ধরনের অন্যায়, অবিচার ও সহিংসতা থাকবে না। প্রত্যেক মানুষকে মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে। দুনিয়ায় ভালো কাজ করলে বেহেস্তে গমন অবধারিত ও মানুষকে কষ্ট দিয়ে কোন ধরনের অপকর্ম করলে দোযখের বিকল্প নেই। কোরআনের শিক্ষা মানুষকে ইহকাল ও পরকালের পথের সন্ধান দিয়ে থাকে। শুদ্ধভাবে কোরআন তেলাওয়াতের জন্য কোরআনের চর্চা ও শিক্ষার কোন বিকল্প নেই। তাই আল্লাহকে পেতে হলে রাসুল্লাহ (সা.) এর আদর্শকে অনুসরণ করে চলতে হবে। বক্তারা ইসলামের ইতিহাসে কোরআনে হাফেজদের অবদান তুলনাহীন বলে অভিমত ব্যক্ত করেন।