চট্টগ্রাম, , শনিবার, ২৩ মার্চ ২০১৯

নিষ্প্রাণ চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন চেম্বারের বাণিজ্য মেলা

প্রকাশ: ২০১৯-০১-১০ ১৭:২৩:১৭ || আপডেট: ২০১৯-০১-১০ ২০:৪১:৩৪

আখতার হোসাইন

চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন চেম্বারের মাসব্যাপী আর্ন্তজাতিক বাণিজ্য মেলা ২৫দিন অতিবাহিত হলে জমে উঠেনি। শেষ প্রান্তে এসেও মেলা জমে না উঠায় হতাশ ব্যবসায়ীরা। আর্ন্তজাতিক মানের বলা হলেও এই মেলায় আর্ন্তজাতিক মানের কোন স্টল কিংবা প্যাভিলিয়ন আসেনি।

চট্টগ্রাম কর্ণফুলী নদীর পাড়ে ২৫ ডিসেম্বর অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে উদ্বোধন হয় চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি এর মাসব্যাপী আর্ন্তজাতিক বাণিজ্য মেলা। মেলা শুরু হযে ২৫দিন পরেও অনেকে স্টল নিয়েও তাতে ব্যবসা করছে না। অনেকে স্টল এখনো তৈরী করছে আবার অনেকে দর্শনার্থী বা ক্রেতা না থাকায় স্টল গুটিয়ে চলে গেছে।

চেম্বার সুত্রে জানা গেছে ২০১৪ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত আমাদের মেট্টেপলিটন চেম্বারের উদ্যোগে হালিশহর আবাহনী মাঠে জাঁকজমকপুর্ন ভাবে বাণিজ্য মেলা করা হয়। যাতায়ত এবং যোগাযোগের অসুবিধার কারণে এবার চট্টগ্রাম বন্দরের মালিকানাধীন মেরিনার্স রোড সংলগ্ন মাঠে বাণিজ্য মেলা আয়োজন করা হচ্ছে।

মেলায় ১৮০টি প্রতিষ্ঠানের প্রায় ১০/১২টি মেগা প্যাভিলিয়ন,স্টল বিদেশী বেশ কয়েটি স্টল তাদের পন্যর পসরা প্রদর্শন করবে বলে মেলার কনভেনার মোহাম্মদ আমিনুজ্জামান সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছিল।

বিশাল জোতার শো রুম নিয়ে স্টল সাজিয়েছেন মনপুরা সুজ। মনপুরা সুজের কর্মচারী জানান, এখানে কোন ক্রেতা নেই। কিছু কিছু দর্শক ঘুরতে আসে। তিনি বলেন, ভ্যানুটা মান সম্মত নয় ও মেলার প্রচারণা কম তাই এবারের মেলায় আমরা ক্ষতিগ্রস্থ। প্রতিদিনের খরচ গুলোও বহন করাও কষ্ট সাধ্য হয়ে পড়েছে।
কিয়াম কোম্পানীর শো রুমের ম্যানেজার বলেন, মেলার পুরোটাই লস। মেলায় অপার দিয়েও কাষ্টমার পাওয়া যাচ্ছে না। বলতে গেলে কোন ক্রেতাই এখনও মাঠে আসছে না।

মেলা ঘুরে দেখা যায়, সব গুলো ষ্টলে মালিক ও ম্যানেজাররা অবসর সময় পার করছে। প্রায় স্টলে কোন ক্রেতা নেই। হতাশা আর অবসর সময় কাটাচ্ছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা। অনেক তাদের ব্যবসা গুডিয়ে চলে গেছে। সন্ধ্যার পর কিছু দর্শনার্থী মেলা দেখতে আসে। শিশুদের খেলা, দোলনা, ট্রেন ইত্যাদিতে সবাই ভীড় কওে বাচ্ছাদের আনন্দ দেয়া ছাড়া বলতে গেলে নিস্প্রাণ এই মেলা। তেমন কোন দেশীয় পণ্যেও বড় প্যাভিলিয়নও মেলায় আসেনি। বিদেশী প্যাবিলিয়ন তো নেই। দেখা গেছে অনেকে এখনো তাদের প্যাভেলিয়ন তৈরী করছে অথচ মেলা প্রায় শেষের ধারপ্রান্তে।

কর্ণফুলী নদীর তীরে মেরিনাস্র্ রোড সংলগ্ন চট্টগ্রাম বন্দরের মালিকানাধীন জায়গায় বাণিজ্য মেলার নতুন ভেন্যুতে মেলা আয়োজন উচিত হয়নি বলে মন্তব্য করেন ব্যবসায়ী আবদুর রশীদ। তিনি জানান, এখানে পুরো এলাকা বস্তী ও মাছ ধরার ট্রালারের শ্রমিক। পরিবেশের প্রতিকুল এসব জায়গায় উচ্চ বিত্ত, মধ্যবিত্ত শ্রেণীর লোকজন সাধারণত আসেনা।