চট্টগ্রাম, , বুধবার, ২৩ জানুয়ারী ২০১৯

বিএনপির সদস্যরা শপথ না নিলে উপ-নির্বাচন: কাদের

প্রকাশ: ২০১৯-০১-০১ ১৪:০০:০৬ || আপডেট: ২০১৯-০১-০১ ১৮:০৬:০০

১০ জানুয়ারির মধ্যে একাদশ সংসদের নতুন মন্ত্রিপরিষদের শপথ অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন: নতুন সরকার গঠনে এমপিদের শপথ, মন্ত্রীদের শপথ, গেজেট এসব প্রক্রিয়া ১০ জানুয়ারির আগে সম্পন্ন হবে। বিএনপির নির্বাচিত সদস্যরা যদি শপথ না নেন, তাহলে উপ-নির্বাচন হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

মঙ্গলবার দুপুরে ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

কাদের বলেন: আজকালের মধ্যে হয়তো গেজেট হয়েছে যাবে। এটা নির্বাচন কমিশনের বিষয়, আমাদের বিষয় নয়। এরপর এমপিদের শপথ হবে। এমপিদের শপথ অনুষ্ঠানের পর হয়তো, আমাদের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাত করবেন। রাষ্ট্রপতিও মেজরিটি দল হিসেবে হয়তো তাকে আমন্ত্রণ জানাবেন, সরকার গঠন করার জন্য। এসব কিছু নিয়ম কানুন আছে, এসব নিয়ম কানুনের মধ্যেই চলবে। আমরা মনে হয় মন্ত্রীদের শপথ, এমপিদের শপথ, গেজেট এসব প্রক্রিয়া ১০ জানুয়ারির আগে সম্পন্ন হবে।

বিএনপি-ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের শপথ না নেওয়ার ঘোষণাকে কিভাবে দেখছে আওয়ামী লীগ, জানতে চাইলে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন: তারা গত নির্বাচনে একটি ভুল করেছে। আমি প্রত্যাশা করি এবারও সে ভুল করা করবেন না। তাদের যেকজনই নির্বাচিত হয়েছেন, সকলেই জনগণের রায়ে নির্বাচিত। আমি তাদের কাছে প্রত্যাশা রাখবো, তারা যেন জনগণের রায়কৈ অসম্মান না করে। আর তারা যদি শপথ না-ই নেয়, তাহলে সংবিধান মেনে ঐসকল আসনে উপ-নির্বাচন দেবে নির্বাচন কমিশন।

ঐক্যফন্টের নির্বাচনের ফল প্রত্যাখ্যান এবং নতুন নির্বাচন দাবির প্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংগঠনিক এ নেতা বলেন: তাদের সব সময়ই কি নির্বাচন বিরোধী মনোভাব থেকে যাবে? এ অবস্থা থেকে কি তারা বের হয়ে আসতে পারবে না? পৃথিবীর বড় বড় গণতান্ত্রিক শক্তির দেশ যেখানে নিঙ্কুশ বিজয়েিআমাদের অভিনন্দন জানাচ্ছে সেভাবে বিএনপির এমন দাবি কতোটা যুক্তি-যুক্ত তা আমি বলতে পারবো না। তারা না এলও দেশ পিছিয়ে যাবে না, গণতন্ত্র পিছিয়ে যাবে না।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর একাদশ জাতীয় সংসদে নির্বাচিত হয়েছেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আপনি তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন: তিনি তো বলছেন, শপথ নিবেন না। আগে শপথ নিন তারপর না হয় অভিনন্দন জানাবো।

নতুন বছরে আওয়ামী লীগের শপথ কি হবে? জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন: নতুন বছরের আমাদের শপথ হচ্ছে আমাদের ভুল, দুর্বলতা, সাংগঠনিক দুর্বলতা গুলো আমরা বুঝতে পেরেছি; অতীতের ভুল গুলো থেকে আমরা শিক্ষা নেবো। আমাদের ভেতরের যে দুর্বলতা গুলো আছে সেগুলো আমরা কাটিয়ে উঠবো। এটাই আমাদের প্রত্যাশা।