চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮

আপিলেও টিকলেন না বাবা-ছেলে

প্রকাশ: ২০১৮-১২-০৬ ১৫:৪২:৩১ || আপডেট: ২০১৮-১২-০৭ ১১:২২:৫১

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ে প্রাথমিকভাবে বাদ পড়া ৫৪৩ জন রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) আপিল করেছিলেন। তাদের আবেদনের ওপর প্রথম দিনের শুনানি চলছে। এদিন ক্রমিক অনুযায়ী ১৬০ পর্যন্ত আপিলকারীদের আবেদনের শুনানি হবে।

বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) সকাল ১০টায় নির্বাচন কমিশনের অস্থায়ী এজলাসে এ শুনানি শুরু হয়েছে। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা, নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, মো. রফিকুল ইসলাম, বেগম কবিতা খানম ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী এ আপিল শুনানি করছেন।

নির্বাচন কমিশনে আপিল করেও প্রার্থীতা ফিরে পাননি চট্টগ্রাম-৫ আসনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী মীর মো. নাছির উদ্দিন।

আপিল নামঞ্জুর হওয়ার পর মীর মো. নাছির সাংবাদিকদের বলেন, এখানে তামাশা করা হচ্ছে। তাদের সিদ্ধান্ত পূর্ব নির্ধারিত। আমরটা একেবারে রিজেক্ট করে দিয়েছে। পেন্ডিং রাখলেও তো হতো। আগেই ভেবেছিলাম এখানে এসে সঠিক বিচার পাওয়া যাবে না। আমাদের মতো বাইরের লোকদের এখানে ডেকে তামশা মঞ্চস্থ করা হচ্ছে।

মীর নাছির ছাড়াও চট্টগাম-৫ আসনে বিএনপির আরও দুই প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। তারা হলেন- মীর নাছিরের ছেলে মীর মো. হেলাল উদ্দিন ও সাকিল ফারজানা।

হেলাল উদ্দীনের মনোনয়নপত্রও মীর নাছিরের মতো বাতিল হয়েছে। আর এখন পর্যন্ত সাকিল ফারজানাই এ আসনে বিএনপির বৈধ প্রার্থী।

আপিল আবেদনের ক্রমিক ১ থেকে ১৬০ নম্বর পর্যন্ত শুনানি অনুষ্ঠিত হচ্ছে আজ। ১৬১ থেকে ৩১০ নম্বর পর্যন্ত আগামীকাল শুক্রবার এবং শেষ দিন ৮ ডিসেম্বর (শনিবার) ৩১১ থেকে ৫৪৩ নম্বর আবেদনের শুনানি হবে।

উল্লেখ্য, গত ২৮ নভেরের মধ্যে ৩ হাজার ৬৫ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। বাছাইয়ে বাদ পড়েছে ৭৮৬টি, বৈধ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র রয়েছে ২ হাজার ২৭৯টি।

তফসিল অনুযায়ী আগামী ৯ ডিসেম্বর মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন এবং ১০ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে। আর ভোট গ্রহণ ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে।