চট্টগ্রাম, , শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮

সাকা চৌধুরীর পরিবার-স্বজন কেউ রইলো না

প্রকাশ: ২০১৮-১২-০২ ১৬:১৪:০০ || আপডেট: ২০১৮-১২-০৩ ০৯:৪৯:৫৪

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে ফাঁসি কার্যকর হাওয়া সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ভাই বিএনপিনেতা গিয়াস উদ্দিন কাদের চৌধুরীর মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা হয়েছে। একই সঙ্গে গিয়াসপুত্র সামির কাদের চৌধুরীর মনোনয়নপত্রও বাতিল হয়েছে। এর ফলে নির্বাচনে চট্টগ্রামের রাজনীতিতে এক সময় প্রবল প্রভাব বিস্তার করা বিএনপি নেতা যুদ্ধাপরাধী সালাহউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরীর পরিবার ও স্বজনদের কারো প্রতিনিধিত্ব রইলো না।

রোববার মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে রিটানিং কর্মকর্তা চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক ইলিয়াস হোসেন বাবা-ছেলের মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করেন ঋণখেলাপী হওয়ায় তাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়।

চট্টগ্রাম-৬ (রাউজান) আসনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান গিয়াস কাদেরের ছেলে সামির কাদের মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। এছাড়াও ধানের শীষের প্রার্থী হতে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন জসীম উদ্দিন সিকদার। এই আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে আছেন বর্তমান সংসদ সদস্য এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী।

দলীয় সূত্রে জানা যায়,মনোনয়ন দেওয়ার সময় সাকা চৌধুরীর পরিবারের সদস্যদের বিএনপির পক্ষ থেকে ডাকা হয়েছিল। তাদের রাঙ্গুনিয়া অথবা রাউজান থেকে নির্বাচনে অংশ নিতে বলা হয়। সে হিসাবে তাদের নামে একাধিক মনোনয়ন ফরমও কেনা হয়। কিন্তু হুম্মাম কাদের চৌধুরী লন্ডন থেকে লিখিতভাবে দলকে জানিয়ে দিয়েছেন, তারা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন না। তাদের পরিবারের নামে কেউ মনোনয়নপত্র নিলে তাও বৈধ হবে না। নির্বাচন না করার পক্ষে যুক্তি দিয়ে চিঠিতে বলা হয় বাবার মৃত্যুর শোক এখনো তারা কাটিয়ে উঠতে পারেননি।

সাকা চৌধুরীর স্বজনদের মধ্যে তার ছোট ভাই ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান গিয়াসউদ্দিন কাদের চৌধুরী চট্টগ্রাম-২ (ফটিকছড়ি) আসনে বিএনপির হয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। আর চট্টগ্রাম-৬ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দেন গিয়াস কাদের চৌধুরীর ছেলে সামির কাদের চৌধুরীকে। তাদের মনোনয়ন পত্র বাতিল হওয়ায় সাকা পরিবর ও স্বজনদের কারও প্রতিনিধিত্ব রইলো না একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে।