চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮

ওয়াই-ফাইয়ের আওতায় আসছে দেশের সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়-সরকারি কলেজ

প্রকাশ: ২০১৮-১২-০২ ০০:২৮:০৭ || আপডেট: ২০১৮-১২-০২ ১০:৫৩:৫৭

আগামীকাল রবিবার থেকে ওয়াই-ফাই স্থাপনের কাজ শুরু হতে পারে বলে জানা গেছে

দেশের ৫৮৭টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, সরকারি কলেজ ও প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান আসছে ওয়াইফাইয়ের আওতায়। এ লক্ষ্যে একটি প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ কোম্পানি লিমিটেড (বিটিসিএল)। আগামীকাল রবিবার থেকে ওয়াই-ফাই স্থাপনের কাজ শুরু হতে পারে বলে জানা গেছে।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার জানান, প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে শিক্ষার্থীরা ওয়াই-ফাইয়ের মাধ্যমে ব্রডব্যান্ড (উচ্চগতি) ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবে। তিনি জানান, প্রথম পর্যায়ে দেশের ৫৮৭টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, সরকারি কলেজ ও প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান ওয়াই-ফাইয়ের আওতায় আসছে। পরে বেসরকারি কলেজ ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় এবং এরপর স্কুলসহ অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও ওয়াই-ফাই চালু করা হবে।

মন্ত্রী বলেন, ‘প্রথম এক বছর বিটিসিএল বিনামূল্যে ব্যান্ডউইথ (সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ১০ এমবিপিএস সরবরাহ করা হবে) দেবে। আমরা দেখবো এক বছরে ইম্প্যাক্ট কী। তারপর আমরা বিজনেস কেস দেখবো কীভাবে এটাকে টিকিয়ে রাখায় যায়। কারণ, পরে খরচ কে দেবে সেটা ঠিক করা না গেলে এই সেবাদান বেশি দিন টেকসই হবে না।’ বর্তমানে বিষয়টি টেন্ডার প্রক্রিয়ার মধ্যে আছে বলে তিনি জানান।

জানা গেছে, গত জুলাইয়ে প্রকল্প পাস হলেও প্রকল্প পরিচালক নিয়োগে দুই মাস লেগে যাওয়ায় এর কাজ শুরু হতে দেরি হয়েছে।

সূত্র জানায়, সরকার যে ২ হাজার ইউনিয়নে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগ পৌঁছানোর কাজ শুরু করেছে, সেই কাজ শেষ হলে ওইসব ইউনিয়নের সরকারি কলেজ, প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে ওয়াইফাই সংযোগ চালু করা হবে। আরও ৫৭২টি ইউনিয়নকে এই সংযোগের আওতায় আনার কাজ এখনও শেষ হয়নি।

এই ৫৮৭টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ১৪৩, ময়মনসিংহ বিভাগে ৩৫, চট্টগ্রাম বিভাগে ১০৭, বরিশাল বিভাগে ৪৫, খুলনা বিভাগে ৮৩, রাজশাহী বিভাগে ৮৫, রংপুর বিভাগে ৫৬ ও সিলেট বিভাগের ৩৩টি প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

সূত্র জানায়, এই প্রকল্পে সরকারের খরচ হচ্ছে প্রায় ৪৫ কোটি টাকা। পুরো খরচ সরকার বহন করবে। দেশের ৮টি বিভাগে সরকারি কলেজ ও প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে পৃথকভাবে ফাইবার অপটিক ক্যাবল স্থাপন ও যন্ত্রাংশ স্থাপনের কাজ সম্পন্ন হবে।

বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার কিছু দিন পরে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগ সারাদেশে ১ লাখ ফ্রি ওয়াই-ফাই হটস্পট তৈরির ঘোষণা দেয়। ১ লাখ ফ্রি ওয়াই-ফাই হটস্পট তৈরির সঙ্গে একাধিক পক্ষ জড়িত। পক্ষগুলোর মধ্যে বনিবনা ঘটিয়ে প্রকল্পের বিষয়ে উদ্যোগী হওয়ার কথা ছিল এর সঙ্গে জড়িতদের। সরকারের ইনফো সরকার-৩ প্রকল্পের নাম পরিবর্তন করে নতুন নাম হয় ‘স্টাবলিশিং ডিজিটাল কানেক্টিভিটি প্রকল্প’। এই প্রকল্পের কাজ হবে উচ্চ প্রযুক্তির বা ‘হাই এন্ড’-এর। যেসব প্রকল্প দেশকে আরও সামনে এগিয়ে নিয়ে যাবে সেসব ‘বিষয়’ নতুন এই প্রকল্পে যুক্ত হবে। এরই মধ্যে সচিবালয়ে ওয়াই-ফাই হটস্পট তৈরি করা হয়েছে।

তবে সরকারিভাবে না হলেও বেসরকারি অনেক প্রতিষ্ঠান দেশে ওয়াই-ফাই হটস্পট নির্মাণ করছে। এর মধ্যে মোবাইল ফোন অপারেটর, মোবাইল ফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এবং ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর হটস্পটগুলোকেও ওই প্রকল্পের আওতায় আনা হতে পারে।