চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮

আনোয়ারায় মেরিন একাডেমী ৫৩তম ব্যাচের বিদায় অনুষ্ঠান

প্রকাশ: ২০১৮-১১-৩০ ২১:২০:৪০ || আপডেট: ২০১৮-১১-৩০ ২১:২০:৪০

এস.এম সালাহ্ উদ্দীন

দেশে আন্তর্জাতিক নৌ-শিক্ষার একমাত্র সরকারি প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ মেরিন একাডেমি ৫৫ বছরে ৪৩৮৪ জন ক্যাডেটকে প্রশিক্ষিত করেছে। এ বছর ৫৩তম ব্যাচে নটিক্যাল শাখায় ২৫ জন এবং ইঞ্জিনিয়ারিং শাখায় ২৬ জন ক্যাডেট ২ বছর মেয়াদি একাডেমিক ও রেজিমেন্টাল প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করেছেন।

শুক্রবার (৩০ নভেম্বর) এ ব্যাচের ক্যাডেটদের শিক্ষাসমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে এসব তথ্য জানানো হয়।বর্তমানে মেরিন একাডেমিতে নটিক্যাল ও ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে অনার্স কোর্স চালু করা হয়েছে। ব্যাচেলর অব মেরিটাইম সায়েন্স (অনার্স)-২০১৮ সম্পন্ন করেছে তৃতীয় ব্যাচ। এ ছাড়া প্রফেশনাল বিভিন্ন কোর্সসহ উচ্চতর প্রিপারেটরি কোর্স (ক্লাস-৩, ক্লাস-২) চলমান রয়েছে।

ক্যাডেটদের কুচকাওয়াজে সালাম গ্রহণ করেন প্রধান অতিথি নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান।তিনি বলেন, সমুদ্রগামী জাহাজ এবং মেরিনারদের প্রশিক্ষণের আধুনিকায়নের কারণেই এ বিশেষায়িত প্রযুক্তিগত পেশার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় দক্ষতার গুরুত্ব উত্তরোত্তর বাড়ছে। সমুদ্র বিশ্বের উন্নয়নের সঙ্গে তালমিলিয়ে আমাদের বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন এবং আন্তর্জাতিক সমুদ্র পরিবহন ব্যবস্থার বিকাশ ও উন্নয়নে আমাদের গতিশীল সরকার সচেষ্ট রয়েছে।বিশেষ অতিথির বক্তব্যে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আবদুস সামাদ বলেন, বাংলাদেশ মেরিন একাডেমি বিশ্ব সমুদ্র চলাচলে একটি উজ্জ্বল সম্ভাবনাময় বিশেষ প্রতিষ্ঠানের ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। যা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক কাঠামোতে দৃষ্টান্তমূলক অবদান রাখছে।
এ বছর সমাপনী পরীক্ষায় সর্বোচ্চ নম্বর পাওয়ায় নৌ শাখায় মো. জাকারিয়া এবং প্রকৌশল শাখায় আরানুর হিজবুলকে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের রৌপ্য পদক দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানের প্রধান আকর্ষণ ৫৩তম ব্যাচ ক্যাডেটদের মধ্যে সব বিষয়ে সর্বোচ্চ কৃতিত্বের জন্য নাবিলা নাওয়ারকে মহামান্য রাষ্ট্রপতির স্বর্ণপদকে ভূষিত করা হয়।অনুষ্ঠানে জানানো হয়, দেশি ও বিদেশি খ্যাতনামা শিপিং কোম্পানিগুলো ইতোমধ্যে ৫৩তম ব্যাচের সব ক্যাডেটের চাকরি নিশ্চিত করেছে।