চট্টগ্রাম, , বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮

হঠাৎ ব্যাকফুটে আওয়ামী লীগ!

প্রকাশ: ২০১৮-১১-২৬ ২০:৩২:৪৫ || আপডেট: ২০১৮-১১-২৭ ১১:০৮:১২

কথা ছিল আজকেই সোমবার ৩০০টি আসনে শরিক দলগুলোসহ নিজেদের প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করবে আওয়ামী লীগ। আগের দিন দলটির দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবাহান গোলাপ এ তথ্য নিশ্চিতও করেছিলেন। কিন্তু বিষয়টি নিয়ে হঠাৎ করেই যেন ব্যাকফুটে ক্ষমতাসীনরা।

রবিবার একাদশ জাতীয় নির্বাচনে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ পাওয়া ২৩০টি আসনে প্রার্থীদের কাছে চিঠি দেয়া হয়। বাকি ৭০টি আসনে মনোনীতদের হাতে সোমবার দুপুরের আগেই চিঠি তুলে দেওয়ার কথা ছিল। শেষ পর্যন্ত তা হয়নি।

এখন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলছেন, এখনই আওয়ামী লীগের চূড়ান্ত মনোনয়ন তালিকা প্রকাশ করা হবে না, সময় নেওয়া হবে। যাচাই-বাছাইয়ের পর জোটের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হবে।

ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে মনোনয়ন ফরম বিতরণ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে সোমবার তিনি একথা বলেন।

সেখানে তিনি আরো বলেন, একাধিক ব্যক্তিকে মনোনয়ন দেওয়া আসনগুলোতে মাঠ পর্যায়ে সার্ভে করা হবে। যাচাই-বাছাই করে প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে। ২৩০টি আসনে মনোনয়ন চিঠি দেওয়া হয়েছে। ৬৫ থেকে ৭০টি আসন শরিকদের জন্য ছাড় দেবে আওয়ামী লীগ।

এখন পর্যন্ত যাদের মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে ২৮ তারিখের মধ্যে তাদের অদল-বদল হতে পারে জানিয়ে কাদের বলেন, চিঠি দেওয়া আসনগুলোতে জোটের কোন অধিকতর যোগ্য প্রার্থী থাকলে ছাড় দেবে আওয়ামী লীগ। কৌশলে আমরা মার খেতে চাই না। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচন থেকে বের হয়ে যেতে পারে এমন আশংকা দল করছে না।

এর আগে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপের ফলাফল নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সংবাদ সম্মেলনের কথা থাকলেও তা কয়েক দফা তারিখ পরিবর্তণের পরেও সেটি সফল করতে পারেনি।

এদিকে ১৪ দলিয় জোটের মাঝে আসন সমঝোতা নিয়ে চলছে অন্তঃকলহ। দলের প্রার্থী মনোনয়ন চূড়ান্ত হওয়ার পরও জোট শরিকদের সঙ্গে আসন ভাগাভাগি নিয়ে টানা বৈঠক করেও সমঝোতায় আসতে পারেনি আওয়ামী লীগ।

এখনও জাতীয় পার্টির সঙ্গে বৈঠক চলছে, যদিও আওয়ামী লীগ শরিকদের জন্য ৬৫ থেকে ৭০টি আসন ছেড়ে দেওয়ার কথা বলছে কিন্ত এক্ষেত্রে জাতীয় পার্টির চাহিদাই অন্তত ১০০টি আসন।