চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮

মহাজোটে ৮ আসনে বড় জটিলতা

প্রকাশ: ২০১৮-১১-২৬ ১৫:২৪:২১ || আপডেট: ২০১৮-১১-২৬ ১৮:১০:৩৩

আওয়ামী লীগ প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করলেও মহাজোটে কিছু আসন নিয়ে বেশ বড় জটিলতা দেখা দিয়েছে।

ঢাকা-১ আসনের বর্তমান এমপি জাতীয় পার্টির সালমা ইসলাম। এবারও তিনি মনোনয়নের অন্যতম দাবিদার। কিন্তু মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে ব্যবসায়ী সালমান এফ রহমানকে। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেসরকারি খাত উন্নয়ন উপদেষ্টা। এরশাদ কোনোভাবেই এই আসনটি ছাড়তে রাজি নন। জাতীয় পার্টির ভেতরেও এই আসন হাতছাড়া হওয়ায় কোন্দল দেখা দিয়েছে। দায়ী করা হচ্ছে দলের মহাসচিব রুহুল আমীন হাওলাদারকে।

চট্রগ্রাম-৯ আসনের বর্তমান এমপি জাতীয় পার্টির জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু। তিনি এরশাদের খুবই ঘনিষ্ট। এই আসনে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে আওয়ামী লীগের ব্যারিস্টার মহীবুল হাসান চৌধুরী নওফেলকে। নওফেল সাবেক মেয়র প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা মহিউদ্দীন আহমেদের ছেলে।

জিয়াউদ্দিন বাবলুকে চট্টগ্রাম-৯ আসনের পরিবর্তে কক্সবাজার-৩ আসনে মনোনয়নের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল। সেখানেও মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে আওয়ামী লীগের সাইমুম সরোয়ার কমলকে।

কমিল্লা- ২ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে ব্যবসায়ী নেতা সেলিমা আহমেদকে। এই আসনের বর্তমান এমপি জাতীয় পার্টির মোহাম্মদ আমীর হোসেন।

ঢাকা-১৭ আসনের বর্তমান এমপি বিএনএফ’র এসএম আবুল কালাম আজাদ। এবার এই আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে নায়ক ফারুককে। এই আসনটি নিজের জন্য চেয়েছিলেন এরশাদও।

পটুয়াখালী-১ আসনের বর্তমান এমপি জাতীয় পার্টির রুহুল আমীন হাওলাদার। মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে আওয়ামী লীগের অ্যাডভোকেট শাহজাহান মিয়াকে।

ময়মনসিংহ-৭ আসনে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে আওয়ামী লীগের হাফেজ রুহুল আমীন মাদিনীকে। এই আসনের বর্তমান এমপি জাতীয় পার্টির এমএ হান্নান।

পঞ্চগড় -১ আসনের বর্তমান এমপি জাসদের নাজমুল হক প্রধানকে বাদ দিয়ে, মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে আওয়ামী লীগের মাজহারুল হক প্রধানকে।

নড়াইল-২ আসনের বর্তমান এমপি ওয়ার্কাস পার্টির শেখ হাফিজুর রহমান। তাকে বাদ দিয়ে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে জাতীয় ক্রিকেট দলের ওডিআই অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজাকে।