চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮

চলছে ১১ দিন ব্যাপি ‘এপিক হোম ফিয়েস্তা’ আবাসন মেলা

প্রকাশ: ২০১৮-১১-১৭ ১৭:৪৬:০২ || আপডেট: ২০১৮-১১-১৭ ১৭:৪৬:০২

খুলশী ‘ক্রাউন রিজ এপিক-এ নান্দনিক ছোঁয়া চট্টগ্রামের সবচেয়ে অভিজাত এলাকা খুলশীতে পাহাড়চুড়ার মনোরম পরিবেশে নান্দনিকতার ছোঁয়া নিয়ে এসেছে ‘ক্রাউন রিজ এপিক’।

দক্ষিণ খুলশীর ইস্পাহানি হিলে গড়ে উঠেছে পারিবারিক শান্তির এ নীড়। ৯ তলা বিশিষ্ট এ প্রকল্পটিতে পূরণ হচ্ছে প্রত্যাশার সবটুকুন। সবুজে ঘেরা প্রাকৃতিক পরিবেশে আধুনিক জীবন মানের সবগুলোর সংযোজন ঘটছে ‘ক্রাউন রিজ-এপিক’-এ। পুরো প্রকল্পটিতে রয়েছে সবুজের আচ্ছাদন।

খোলা জানালা দিয়ে উপভোগ করা যাবে নীল আকাশ, শান্ত হাওয়ায় জুড়োবে শরীর।

‘ক্রাউন রিজ এপিক-এর গর্বিত মালিক হতে ঘুরে আসতে পারেন এপিক হোম ফিয়েস্তা মেলায়। ইস্পাহানি হিলে গড়ে উঠা ‘ক্রাউন রিজ এপিক’-এ গত ১৫ নভেম্বর থেকে শুরু হয়েছে ২৫শে নভেম্বর পর্যন্ত এ মেলা চলবে। সকাল ১০ টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত মেলা দর্শনার্থীদের জন্য উম্মুক্ত থাকছে।

আগ্রহী ফ্ল্যাট ক্রেতাদের জন্য মেলা উপলক্ষ্যে রয়েছে বিশেষ ছাড়। যেখানে ১২১৫ বর্গফুট থেকে ৪২২৫ বর্গফুটের ফ্ল্যাট মিলছে। ‘ক্রাউন রিজ এপিক-এর দুইটি টাওয়ার-এ প্রতি ফ্লোরে ৩টি ও ৪টি করে মোট ৭টি ফ্ল্যাটের জন্য থাকছে সুপরিসরের চারটি লিফট। থাকছে ওয়াই-ফাই জোন, গরম ও শীতল পানির সুবিধা, আধুনিক অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা, সুইমিং পুল, জিমনেশিয়াম, বারবিকিউ কর্নার, মাস্টার বেড-এ থাকছে সারভেন্ট কলিং বেল ও পুরো ভবনের নিরাপত্তায় সংযোজন থাকছে সিসিটিভি।

আরো আছে, বাস্তব রেডি ফ্ল্যাট দেখে বুকিং এরও সুবিধা। তাছাড়া মেলাতে চট্টগ্রামের বিভিন্ন আকর্ষনীয় লোকেশনে গড়ে উঠা এপিকের ১৫টি প্রকল্পের ফ্ল্যাট ও কমার্শিয়াল স্পেস বুকিং চলছে। চাহিদা অনুযায়ী রেডি ফ্ল্যাট ও কমার্শিয়াল স্পেস পাওয়া যাবে মেলায়। রয়েছে ব্যাংক ঋণের সুবিধাও।

আবাসনখাতে জাতীয় অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনকারী এপিক প্রপার্টিজের পরিচালক প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন জানান, ‘সবুজের আচ্ছাদনে পরিবেশবান্ধব করে এপিকের স্থাপনাগুলো তৈরি করা হয়। ‘ক্রাউন রিজ এপিক’ আমাদের একটি আইকনিক প্রকল্প। যেখানে রয়েছে জীবনযাত্রার সব সুবিধার মিশেল। সমন্বয় ঘটানো হয়েছে আধুনিক প্রযুক্তির।’ তিনি বলেন, ‘এপিকের সবগুলো প্রকল্প আকর্ষনীয় লোকেশনে, রয়েছে নান্দনিকতার ছোঁয়া।

একঝাঁক তরুণ মেধাবী প্রকৌশলীদের দ্বারা প্রতিটি প্রকল্পের ডিজাইন করা হয়েছে।’ জনাব আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘শুধু ব্যবসা নয়, গ্রাহকদের সন্তুষ্টিই আমাদের মূল লক্ষ্য । এ লক্ষ্যে ইতোমধ্যে আমরা সফল হয়েছি। আগামী দিনগুলোতে সেই ধারা অব্যাহত রাখতে আমরা সদাপ্রস্তুত। আমাদের গ্রাহকরাই আগামী দিনগুলোতে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে প্রেরণা হিসেবে কাজ করছে।