চট্টগ্রাম, , শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮

‘সরকারের ধারাবাহিকতা থাকলে উন্নয়নের গতি অব্যাহত থাকবে’

প্রকাশ: ২০১৮-১০-২৯ ২৩:০৫:২৯ || আপডেট: ২০১৮-১০-৩০ ১০:৪৬:০৮

উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রাখতে সরকারের ধারাবাহিকতা প্রয়োজন উল্লেখ করে আগামী নির্বাচনে নৌকায় ভোট চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ‘সরকারের ধারাবাহিকতা থাকলে উন্নয়নের গতি অব্যাহত থাকবে। দেশের মানুষ সেবা পাবে।’

সোমবার (২৯ অক্টোবর) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানের (নিটোর) সম্প্রসারণসহ কয়েকটি প্রকল্প উদ্বোধনকালে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। নিটোরকে এক হাজার শয্যায় উন্নীত করাসহ মিরপুর ঢাকা ডেন্টাল কলেজের ছাত্রী হোস্টেল ও মহাখালীর ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি সম্প্রসারণ কাজের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। এ ছাড়া ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সস অ্যান্ড হাসপাতাল ও জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট সম্প্রসারণ এবং মহাখালীর স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়ের উন্নয়ন কাজের ভিত্তিপ্রস্তুর স্থাপন করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, আগামী নির্বাচনে ইনশা আল্লাহ বাংলাদেশের জনগণ নিশ্চয়ই নৌকায় ভোট দেবে। আবার এসে আপনাদের এ ভিত্তিপ্রস্তর যেগুলো স্থাপন করেছি সেগুলো উদ্বোধন করে দিয়ে যাব। আল্লাহর কাছে দোয়া করবেন, মানুষের কাছে নৌকা মার্কায় ভোট চাই। যেন ভোট দিয়ে আমাদের নির্বাচিত করে, যেন যে কাজগুলো সেগুলো যেন সমাপ্ত করতে পারি। নইলে ওই কমিউনিটি ক্লিনিকের মতো আবার বন্ধ করে দেবে।

বার্তা সংস্থা ইউএনবি জানিয়েছে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ যদি আগামী নির্বাচনে পুনর্নির্বাচিত না হয় তাহলে সব অসমাপ্ত উন্নয়ন প্রকল্পের ভাগ্য হবে কমিউনিটি ক্লিনিকের মতো।

শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট ২০০১ সালে ক্ষমতায় এসে সব কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ করে দেয়, যেগুলো দেশের জনসাধারণকে চমৎকার সেবা দিয়ে আসছিল।

এবিষয়ে তিনি আরও বলেন, ১৯৯৬-২০০১ সালে আওয়ামী লীগ সরকারের নেওয়া অনেক উন্নয়ন প্রকল্প বিএনপি-জামায়াত সরকার বন্ধ করে দিয়েছিল এবং আওয়ামী লীগ ২০০৯ সালে পুনরায় ক্ষমতায় এসে সেসব সম্পন্ন করে জনগণের জন্য খুলে দিয়েছে।

দেশের উন্নয়নের স্বার্থে সরকারের ধারাবাহিকতার ওপর জোর দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে বাংলাদেশ যে গতি পেয়েছে তা বজায় রাখতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে দেশের স্বাস্থ্য খাত উন্নয়নে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প সংক্ষেপে বর্ণনা করেন। ‘জনগণের সেবা করা আমাদের দায়িত্ব এবং আমরা তাদের একটি সমৃদ্ধ জীবন দেব,’ বলেন তিনি।

তিনি জানান, সরকার কমিউনিটি ক্লিনিক সেবা পুনরায় চালু করেছে এবং বর্তমানে ১৮ হাজারের মতো কমিউনিটি ক্লিনিক ও ইউনিয়ন স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র তাদের কার্যক্রম চালাচ্ছে।

রোগীদের বিনামূল্যে ৩০ ধরনের ওষুধ দেওয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

চিকিৎসাসেবার উন্নয়ন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী জানান, ২০০৯ সাল থেকে ১৬টি নতুন সরকারি এবং পাঁচটি নতুন সামরিক মেডিকেল কলেজ স্থাপন করা হয়েছে।

প্রতিটি বিভাগীয় সদরে একটি করে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হবে বলেও উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী জানান, নিটোর ও অন্যান্য মেডিকেল কলেজে অর্থোপেডিক চিকিৎসকের ৩৬২টি নতুন পদ সৃষ্টি করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক, নিটোর পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. আবদুল গনি মোল্লা ও স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব (স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ) মো. সিরাজুল হক খান।