চট্টগ্রাম, , বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর ২০১৮

বেসরকারি খাত দেশের অর্থনীতিকে সুদৃঢ় করতে পারে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ: ২০১৮-১০-২৮ ১৮:১৩:৫৩ || আপডেট: ২০১৮-১০-২৮ ১৮:৫৬:৪৯

অর্থনৈতিক উন্নয়নে বেসরকারি খাতের ভূমিকা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বেসরকারি খাতই পারে দেশের অর্থনীতিকে সুদৃঢ় ও মজবুত করতে।

রাজধানীতে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বাণিজ্য বিষয়ক সম্মেলন ‘ডেসটিনেশন বাংলাদেশ’ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী রবিবার এ কথা বলেন। ব্যবসায়ীদের সংগঠন ডিসিসিআই এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ঢাকার অনেক জায়গায় ডিজিটাল টেলিফোন ছিল না। আমরা এসে সব এলাকায় ডিজিটাল টেলিফোনের ব্যবস্থা করি। হেলিকপ্টার, টেলিভিশন, রেডিও এগুলো এখন বেসরকারি খাতে। একটাই উদ্দেশ্য যাতে বেসরকারি খাতে মানুষের কর্মসংস্থান হয়।’

তিনি বলেন, ‘সরকার গঠনের পর আমরা ইপিজেড তৈরি করি। উত্তরা ইপিজেডসহ এগুলো সমগ্র বাংলাদেশে ছড়িয়ে পড়েছে। বাংলাদেশ কৃষি নির্ভরশীল দেশ। কেবল কৃষি নয়, শিল্পায়ন যাতে হয় সেদিকেও আমরা মনোযোগ দিয়েছি। শুধু শহর নয়, গ্রামীণ অর্থনীতির দিকেও আমরা নজর দিচ্ছি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা যা করি পরিকল্পনা করেই করি। আমরা সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা করেছি। ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী করব। ২০৪১ সালে বাংলাদেশকে আমরা দক্ষিণ এশিয়ার উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে তুলব।’

‘গ্রামের মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন যাতে হয় সেইদিকেও আমরা মনোযোগী। ব্যবসা-বাণিজ্য গ্রাম পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা নিয়ে আমরা এগুচ্ছি। গ্রামের তৃণমূল মানুষটা যেন আর্থিকভাবে সক্ষম হয়। শুধু নিজের দেশ না আঞ্চলিক-উপ আঞ্চলিক সহযোগিতার বিষয়টিও মাথায় রেখেছি আমরা।’

তিনি বলেন, ‘যখন সরকার গঠন করি তখন ছিল বিশ্বব্যাপী মন্দা। আমরা সেই মন্দা কাটিয়ে ৭.৬ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছি। আগামীতে ৮.২৫ ভাগ প্রবৃদ্ধি হবে। সমগ্র বাংলাদেশব্যাপী আমরা বিশেষ ১০০ টা অর্থনৈতিক অঞ্চল করে দিচ্ছি। এটা বেসরকারিখাতের জন্য। যে জায়গা চাইবেন সে জায়গা দেওয়া হবে। এতে আমার লাভ কী? আমার লাভ হলো দেশের মানুষের কর্মসংস্থান হবে, চাকরির সুযোগ হবে।’

বেসরকারি খাতে শিল্পায়নে বিদ্যুৎ দরকার। সরকার বিদ্যুৎ উৎপাদনেও পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমার ডেল্টা প্লান করেছি। ২১০০ সালে বাংলাদেশ কেমন হবে সেই রূপরেখাও আমরা করেছি। এছাড়া ২০৪১ সালে বাংলাদেশ হবে দক্ষিণ এশিয়ার উন্নত দেশগুলোর একটি। ২০৪১ সালে আমরা ৪০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে সক্ষম হবো।’