চট্টগ্রাম, , বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮

ফটিকছড়িতে ছাত্রলীগের ফয়সালকে খুনের নেপথ্যে এলাকার আধিপত্য

প্রকাশ: ২০১৮-১০-১৫ ১৪:২০:২০ || আপডেট: ২০১৮-১০-১৫ ১৬:১৩:৫৮

মীর মাহফুজ অানাম
সিটিজি টাইমস প্রতিবেদক

নিজ এলাকার অাধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে চুরিকাঘাতে খুন হন ফয়সাল তিতুমির (২২)। তিনি স্থানীয় খিরাম ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কর্মী। অপরদিকে ঘাতক মনা মিয়া(৪০) ও অাবু তাহের (৩৯) অাওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত থেকে এলাকায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ব্যবসায় জড়িত। এলাকাবাসীর ভাষ্যমতে মূলত উভয়পক্ষ নিজেদের অাধিপত্য বিস্তারের জেরে ঘটনার সূত্রপাত।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রোববার রাত অাটটার দিকে খিরাম ফুলতলী বাজারে মনা মিয়া ও অাবু তাহের এর অবৈধ বালি উত্তোলনে বাঁধা এবং এলাকায় অাধিপত্য বিস্তার নিয়ে দ্বন্দ্ব বাঁধে নিহত ফয়সাল (২২), অাজগর হোসেন (২৮) ও কদর অালী (২৫) এর সাথে। কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে উভয়ের মধ্যে মারাত্বক সংঘর্ষ বেঁধে যায়। এ সময় প্রতিপক্ষের চুরিকাঘাতে পেটেসহ একাধিক জায়গায় যখম করা হয় ফয়সালকে। অাজগর ও কদর অালীকেও যখম করা হয়। তাদেরকে স্থানীয়রা ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার তরে প্রথমে নাজিরহাটস্থ ফটিকছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং পরে চমেকে নিয়ে গেলে রাত এগারোটার দিকে চমেক হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন ফয়সাল। ফয়সাল ওই গ্রামের তাজ মুহাস্মদ তালুকদার বাড়ির অাব্বাসের পুত্র।

ঘটনার পর পর ঘাতকরা পালিয়ে গেলে এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে নিহত ফয়সালের ক্ষুদ্ধ স্বজনরা গভীর রাতে খুনিদের ঘর-বাড়ীতে অাগুন লাগিয়ে দেয়। এখনো পর্যন্ত এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ফটিকছড়ি থানার সেকন্ড অফিসার এস.অাই দেলোয়ার বলেন, ‘এ ঘটনায় এখনো কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। অামরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এসেছি। মামলার প্রস্তুতি চলছে। মামলা শেষে দোষীদের বিরুদ্ধে অাইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’