চট্টগ্রাম, , বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮

কর্ণফুলী থেকে উদ্ধার অজ্ঞাত লাশটি কাস্টমসের ক্যাশিয়ার সিংহ ধ্রুব’র

প্রকাশ: ২০১৮-১০-১৩ ১৫:৩৪:২৩ || আপডেট: ২০১৮-১০-১৩ ২২:৫৬:২৪

চট্টগ্রামের পতেঙ্গা থানাধীন কর্ণফুলী নদীর বেড়িবাঁধ এলাকা থেকে উদ্ধার করা অজ্ঞাত পরিচয়ের লাশটির পরিচয় মিলেছে; নিহত ওই ব্যক্তির নাম রিপেন সিংহ ধ্রুব (৩০)। তিনি চট্টগ্রাম কাস্টমস, এক্সাইজ অ্যান্ড ভ্যাট কমিশনারেটে ক্যাশিয়ার পদে কর্মরত ছিলেন।

এর আগে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে বেড়িবাঁধের চরপাড়া এলাকায় থেকে লাশটি উদ্ধার করেছিল পুলিশ। এরপর শনিবার সকালে তার পরিচয় জানতে পারে পুলিশ।

নিহত রিপেন নগরীর কোতোয়ালী থানাধীন আসকার দিঘীর পশ্চিম পাড় এলাকার ক্ষুদিরাম সিংহের ছেলে।

পতেঙ্গা থানার ওসি উৎপল বড়ুয়া বলেন, শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে একজনের লাশ বেড়িবাঁধে উপুড় হয়ে পড়ে আছে জানতে পেরে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে যায়। সেখান থেকে স্থানীয়দের সহযোগিতায় লাশটি উদ্ধার করা হয়। পাথরের মধ্যে আটকে থাকায় উদ্ধারের সময় মুখে একটু আঘাত লাগে। শরীরের অন্য কোথাও আঘাতের চিহ্ন ছিল না। উদ্ধারের পর শুক্রবার রাতেই লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়।

এদিকে নিহতের বাবা ক্ষুধিরাম সিংহ বলেন, নাস্তা করার কথা বলে শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে রিপেন বাসা থেকে বের হয়। যাওয়ার সময় সে বলে, বাসায় ফিরতে সময় লাগবে। কিন্তু দুপুরের পরও বাসায় না ফেরায় তাকে ফোন করলে মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। এরপর সন্ধ্যায় কোতোয়ালী থানায় গিয়ে জিডি করি আমি।

তিনি আরো বলেন, শুক্রবার রাত ১২টার দিকে কোতোয়ালী থানার ওসি আমাকে জানান, পতেঙ্গায় একটি মরদেহ পাওয়া গেছে। সেটি যেন আমরা গিয়ে দেখি। এরপর গিয়ে মরদেহ শনাক্ত করি। আমার ছেলেকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। নগরীর হাজারী লেইনের মিষ্টি ঘর গলির শুভ চৌধুরী নামে রিপেনের এক বন্ধু আছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সবকিছু জানা যাবে।

পতেঙ্গা থানার ওসি উৎপল বড়ুয়া বলেন, রিপেনের মৃত্যু কিভাবে হয়েছিল সে বিষয়ে এখনো কিছু জানা যায়নি। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর জানা যাবে রিপেন খুন হয়েছেন নাকি আত্মহত্যা করেছে। এ ছাড়া বিষয়টি আমরা তদন্ত করে দেখছি।