চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮

রামগড়ে চালককে মারধর করে সিএনজি ভাংচুর; যৌথ অভিযানে আটক ১

প্রকাশ: ২০১৮-০৯-২০ ১১:৫১:২৯ || আপডেট: ২০১৮-০৯-২০ ১১:৫১:২৯

করিম শাহ
রামগড় (খাগড়াছড়ি) প্রতিনিধি

চাঁদার দাবিতে জেলার রামগড়ে একটি ভাড়ায় চালিত সিএনজি অটোরিক্সা ভাংচুর ও চালককে ব্যাপক মারধর করেছে পার্বত্য চুক্তিবিরোধী সন্ত্রাসী সংগঠন ইউপিডিএফ কর্মীরা, এরপর বিজিবি-পুলিশের যৌথ অভিযানে আটকও হয়েছে ১ সন্ত্রাসী।

জানা যায়, গতকাল (১৯ সেপ্টেম্বর) বুধবার সকাল আনুমানিক ৯টটার সময় উপজেলার ১নং রামগড় ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের পশ্চিম বলিপাড়াস্থ নুরুল ইসলামের ছেলে সিএনজি চালক ফজলুল করিম (২৩) উপজেলার খাগড়াবিল বাজার হতে ভাড়ায় যাত্রী নিয়ে গরুকাটা নামক স্থানে যান।

গরুকাটায় যাত্রী নামিয়ে খাগড়াবিল ফেরত আসার সময় মোটর সাইকেল যোগে ও জঙ্গল হতে ইউপিডিএফ (প্রসিত গ্রুপ) এর সদস্য গরুকাটা এলাকার রঙ্গিলা চাকমার ছেলে অনীলবাবু চাকমা (১৯), বারইয়া ত্রিপুরার ছেলে বিষু কুমার ত্রিপুরা (৩৫), অঙ্গজয় মারমা (৪৬) ও রাজেন্দ্র ত্রিপুরাসহ অজ্ঞাত আরো ৭/৮ জন তার গতিরোধ করে এক লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে।

এসময় সিএনজি চালক চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে সন্ত্রাসীগণ সিএনজি’র সামনের গ্লাস এবং গাড়ীর পেছনের বাম্পার ভেঙ্গে ফেলে। পরবর্তীতে গাড়ীর চালককে গাড়ী থেকে নামিয়ে এলোপাতাড়ীভাবে মারধর করতে থাকে এবং ‘এই রাস্তায় সিএনজি চালাতে হলে তাদেরকে চাঁদা দিতে হইবে, চাঁদা না দিলে ভবিষ্যতে এই এলাকায় সিএনজি নিয়া আসলে তার লাশ গুম করিয়া ফেলিবে’ বলে হুমকি প্রদান করে।

এছাড়া হুমকির এক পর্যায়ে অনীল বাবু চাকমা’র হাতে থাকা দামা দা দিয়ে কোপ মারতে আসলে চালক ফজলুল করিম সিএনজি ফেলে জঙ্গলের দিকে দৌড়ে পালিয়ে আসে। ঘটনার পরপরই সিএনজি মালিক সমিতির মাধ্যমে উক্ত ঘটনা জানার সাথে সাথে তাৎক্ষণিকভাবে বিজিবি ও পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে ভাংচুর অবস্থায় সিএনজিটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

এবিষয়ে ফজলুল করিম (সিএনজি চালক) বাদী হয়ে রামগড় থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে বলে জানা গেছে।

এদিকে আসামীদের গ্রেফতারে ৪৩ বিজিবি এবং রামগড় থানা পুলিশের তড়িৎ যৌথ অভিযানে অনীল বাবু চাকমা (১৯) কে আটক করা হয়। অন্যান্য আসামীদেরকে গ্রেফতারে বিজিবি এবং পুলিশের যৌথ অভিযান অব্যাহত আছে বলে জানিয়েছে বিজিবি।