চট্টগ্রাম, , রোববার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮

পাহাড়ি-বাঙালির সম্মিলিত উন্নয়নেই পার্বত্যাঞ্চলে সমৃদ্ধি আসবে- নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা

প্রকাশ: ২০১৮-০৯-১৮ ১২:৫৪:২৯ || আপডেট: ২০১৮-০৯-১৮ ১২:৫৪:২৯

করিম শাহ

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড চেয়ারম্যান ও সাবেক সচিব নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা এনডিসি বলেছেন, পাহাড়ি-বাঙালির সম্মিলিত উন্নয়নেই পার্বত্যাঞ্চলে সমৃদ্ধি আসবে। তিন পার্বত্য জেলার জনসংখ্যার অর্ধেক নারীকে আয়বর্ধক উৎপাদন এবং অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে সম্পৃক্তির মাধ্যমে এখানকার দারিদ্র্য বিমোচনের পথ সুগম হবে। পাহাড়ের জীবন সংস্কৃতি ও ভৌগলিক বাস্তবতাকে মাথায় রেখে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে মানুষের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত হবে।

তিনি সোমবার সকালে খাগড়াছড়িতে আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল ও প্রান্তিক পরিবারের নারীদের মাঝে গাভী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

উন্নয়ন বোর্ডের বিশ্রামাগার প্রাঙ্গণে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা এসময় প্রান্তিক পরিবারের মাঝে ৩০ টি গাভী বিতরণ করেন। পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান (অতিরিক্ত সচিব) তরুণ কান্তি ঘোষ, জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা.শেখ আব্দুল মান্নান এবং বোর্ডের প্রকল্প বাস্তবায়নকারী কর্মকর্তা আব্দুর রশিদ বক্তব্য রাখেন।

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন ,‘ বিতরণকৃত গাভীর সঠিক পরিচর্যা ও লালন পালন করা গেলে বাছুর ও দুগ্ধ উৎপাদনের মাধ্যমে প্রতিটি পরিবার আর্থিক সক্ষমতা অর্জন করবে। তবে উপকারভোগীদের কার্যক্রমের উপর প্রকল্পের সফলতা নির্ভর করবে । প্রকল্পে সফলতা পাওয়া গেলেও পরবর্তীতে আরো বৃহৎ আকারে প্রকল্প নেয়া হবে। পাইলট প্রকল্পের অংশ হিসেবে এর আগেও তিন পার্বত্য জেলায় অস্বচ্ছল নারীদের মাঝে বাঁশের চারা বিতরণ করা হয়েছে।

তিনি সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী পাহাড়ের দুর্গম অঞ্চলের মানুষের জন্য বিশেষায়িত সোলার প্রকল্প, মসলা প্রকল্পসহ উন্নয়ন বোর্ডের প্রত্যাশিত সবকটি প্রকল্পে সন্তোষজনক বরাদ্দ প্রদান করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর বদান্যতার প্রতি সম্মান রেখে প্রকল্প সুবিধাভোগীরা যদি আন্তরিক হন তাহলেই এসব প্রকল্পে আরো বেশি অর্থায়নের সম্ভাবনা রয়েছে।