চট্টগ্রাম, , বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮

চট্টগ্রামে জামায়াত শিবিরের বিরুদ্ধে চলছে বিশেষ অভিযান

প্রকাশ: ২০১৮-০৯-১৫ ১৭:৫৪:১২ || আপডেট: ২০১৮-০৯-১৫ ১৭:৫৪:১২

নির্বাচনকে সামনে মরণকামড় দেওয়ার তথ্য ফাঁস হওয়ায় জামায়াত শিবিরের বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের বিশেষ অভিযান শুরু হয়েছে।

শনিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) রাত থেকে জামায়াতে বিভিন্ন আস্তানায় পুলিশ হানা দিচ্ছে।

নগরের ১৬ থানায় সিএমপির কমিশনারের নির্দেশে একযোগে অভিযান শুরু হয়েছে। শুক্রবার ভোর রাত থেকে শনিবার দুপুর পর্যন্ত প্রায় ৫০ জামায়াত নেতা কর্মীকে আটক করা হয়েছে।

তবে যাচাই-বাছাই করে অনেক জনকে থানা থেকেই ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার গভীর রাতে ডবলমুরিং থানা এলাকা থেকে ৮ জন জামায়াত নেতা কর্মীকে গ্রেফতার করেছে। এর মধ্যে ডবলমুরিং জামায়াত শিবিরের সভাপতি মোরশেদুল আলম ও সেক্রেটারী তৌহিদুল মিনহাজও রয়েছে। অন্য ৬জন সাথী সমর্থক শ্রেণির। ডবলমুরিং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা একেএম মহিউদ্দিন সেলিম বলেন, গ্রেফতার হওয়া জামায়াত নেতাকর্মীর কাছ থেকে উসকানিমূলক লিফলেট পাওয়া গেছে।

এদিকে কোতোয়ালী থানা পুলিশ জানান, কোতোয়ালী এলাকায় কালামিয়া বাজার, রসুলপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১৪ জনকে আটক করা হয়েছে। এদের মধ্যে ৭ জনকে যাচাই-বাছাই করে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। আটক ৭জনের কাছ থেকেও বিভিন্ন বই ও লিফলেট পাওয়া গেছে।

কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মহসিন বলেন,ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষে নির্দেশেই বিশেষ অভিযান চলছে। এতে জামায়াত শিবিরের বিভিন্ন আস্তানায় অভিযান চালানো হচ্ছে।

শনিবার ভোররাতে নগরীর চকবাজারস্থ জামায়াত শিবিরের অফিসে অভিযান চালানো হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে চকবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন, জামায়াত শিবিরের আস্তানায় অভিযান চালিয়ে একজন শিবিরের দাওয়াতী ভাইকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের অফিস থেকে বেশ কিছু উসকানিমূলক বই জব্দ করা হয়েছে।

নগরীর বন্দর থানা এলাকা থেকে একজন সাথী পর্যায়ের জামায়াত নেতাকে আটক করে বন্দর থানা পুলিশ।

জামায়াত শিবিরের বিরুদ্ধে বিশেষ অভিযানের ব্যাপারে জানতে চাইলে সিএমপির উপকমিশনার (দক্ষিণ) এমএম মোস্তাইন হোসাইন কে বলেন, জামায়াতের বিরুদ্ধে বিশেষ অভিযান অব্যাহত আছে। কারণ জামায়াত শিবির সরকার বিরোধী কাজে লিপ্ত হওয়ার পরিকল্পনা করছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অভিযান) আমেনা বেগম বলেন, জামায়াত শিবির নির্বাচনকে সামনে রেখে নাশকতার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। সেটা আমরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পেরেছি। তাই নগরের প্রত্যেকটি থানায় বিশেষ অভিযান শুরু হয়েছে। তবে এ যাবত কতজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে সেটা সুনিদিষ্ট করে বলা যাচ্ছে না। কারণ অভিযান অব্যাহত আছে। সংখ্যাটা অর্ধশতাধিকের কম হবে না।-বার্তা