চট্টগ্রাম, , শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮

বিএনপির উত্থান-পতনের ৪১ বছর

প্রকাশ: ২০১৮-০৯-০১ ১২:৫৬:১৭ || আপডেট: ২০১৮-০৯-০১ ১২:৫৬:১৭

উত্থান-পতন আর চড়াই-উৎড়াই পেরিয়ে ৪১ বছরে পা দিলো বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি। চার দশকের পথচলায় নানাবিধ প্রতিবন্ধকতাকে পাশ কাটিয়ে রাজনীতির মাঠে বড় দল হিসেবে টিকে থাকাকেই চরম বিজয় হিসেবে দেখছেন বিএনপি’র শীর্ষনেতারা। তারা বলছেন, যতই ষড়যন্ত্র হোক, এই দলটিকে ধ্বংস করা যাবে না। তবে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, দলটি আরো বেশি জনসম্পৃক্ত হতে না পারলে টিকে থাকার লক্ষ্য থেকে যাবে অধরাই।

৭৫-এর পট পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে শাসন ব্যবস্থায় যে সামরিকীকরণ হয়, ক্ষমতায় আসার অল্প সময় পরেই তা বেসামরিক করার উদ্যোগ নেন তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান। এরই অংশ হিসেবে ১৯৭৭ সালে প্রথমে জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক দল-জাগদল, এরপর ১৯৭৮ সালের পহেলা সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি গঠন করেন তিনি। ১৯৮১ সালে সামরিক অভ্যুত্থানে জিয়াউর রহমানের মৃত্যু ও ১৯৮২ সালে রাষ্ট্রপতি আব্দুস সাত্তারকে হটিয়ে তৎকালীন সেনাপ্রধান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ক্ষমতা দখলে হোঁচট খায় বিএনপি। স্বৈরাচার-বিরোধী আন্দোলনে আবারো সংগঠিত হয়ে তিন বার সরকার গঠন করলেও ওয়ান ইলেভেনে আবারো বিপর্যস্ত হয় এই দল। এরপর কয়েক দফা সরকার পতনের আন্দোলনে নেমেও সফলতা পায়নি দলটি। শেষমেষ গত ফেব্রুয়ারিতে দুর্নীতির মামলায় দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া সাজাপ্রাপ্ত হয়ে কারাগারে গেলে আরেক দফা সংকটে পড়ে বিএনপি।

এমাজউদ্দিন আহমেদ বলেন, বিএনপি এখনো প্রাণবন্ত একটি দল। সমগ্র জাতি তাকিয়ে আছে, বিএনপির সু-দীন দেখার জন্য। আর এদিন খুব বেশি দূরে আছে বলে মনে হয় না।

চরম সংকটেও টিকে থেকে বিএনপি এখন পরীক্ষিত রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ১৫ লাখ আসামি। ৫ লাখ গুম হয়েছে। এই যে ভয়াবহ পরিস্থিতি; এর মধ্যেই বিএনপি টিকে রয়েছে। সরকারি দল তাদের কোন লক্ষ্যই টেনে নিতে পারে নাই। এটাই বিএনপির অর্জন, বিজয়।

তবে গণমানুষকে সংগঠিত করতে না পারলে রাজনীতি করার উদ্দেশ্য সফল হবে না বলে মনে করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ও রাষ্ট্রবিজ্ঞানী এমাজউদ্দিন। তিনি বলেন, জনগণের সাথে বিএনপির নেতাদের যোগাযোগ আরো ঘনিষ্ঠ হওয়া উচিত। যে আন্দোলন হচ্ছে, সেই আন্দোলনে জন সাধারণকে সম্পৃক্ত করতে হবে।