চট্টগ্রাম, , শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮

এবারেও হচ্ছে না গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা

প্রকাশ: ২০১৮-০৭-২২ ১১:০৪:০৮ || আপডেট: ২০১৮-০৭-২২ ১৫:৩০:২২

এ বছরও বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা গুচ্ছ পদ্ধতিতে হচ্ছে না । এতে করে একদিকে যেমন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ভোগান্তি রয়েই যাবে তেমনি উচ্চশিক্ষা থেকে অনেক শিক্ষার্থীর ঝরে পড়ার আশঙ্কাও থাকবে। আর তাই গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার তাগিদ দিয়েছেন শিক্ষাবিদরা।

এইচএসসি পরীক্ষার পরপরই শুরু হয়ে যায় বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির প্রতিযোগিতা। ভর্তি পরীক্ষা নামের এ প্রতিযোগিতা যেন শিক্ষার্থীদের জন্য এক যুদ্ধ ক্ষেত্র। যে যুদ্ধে উত্তীর্ণ হয়ে তবেই দেশের মহা বিদ্যাপীঠে উচ্চ শিক্ষার সুযোগ পাওয়া যায় ।

পছন্দ অনুযায়ী একজন শিক্ষার্থী একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করতে পারেন। আর ভর্তি পরীক্ষার সময় আবেদন করা একেক বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষার সময়সূচী এবং প্রশ্ন একেক রকম থাকায় একদিকে যেমন শিক্ষার্থীর সাথে দুর্ভোগ পোহাতে হয় অভিভাবকদের তেমনি অর্থও ব্যয় করতে হয় । আর তাই মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার মতো বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতেও গুচ্ছ পদ্ধতি চালু করার দাবি জানিয়ে আসছে শিক্ষার্থীরা।

তারা বলেন, যাতায়াতের সমস্যা হয়, খাওয়া দাওয়ার সমস্যা হয়। সমন্বয় করে যদি মেধা অনুসারে নেয়ার ব্যবস্থা হলে যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও ছিটকে যাওয়া শিক্ষার্থীরা সুযোগ পাবে।

শিক্ষাবিদরা বলছেন, শুধু পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়েই নয় প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়েও গুচ্ছ পদ্ধতি চালু করা যেতে পারে। এজন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদেরকে কার্যকর ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান তারা। শিক্ষাবিদ ড. মোহাম্মদ কায়কোবাদ বলেন, প্রতি বছর আমরা বলি এবারো তো করা গেলো না সময়ের অভাবে। আগামীবার করবো। এই আগামীবার আমাদের আর আসছে না। সমন্বিত পরীক্ষা শুরু করা গেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্পর্ক ভালো হতো আরো।

আগামী সেপ্টেম্বরের ১৪ তারিখ থেকে শুরু করে অক্টোবরের ১২ তারিখ পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। উপাচার্য জানান, সিন্ডিকেটের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এবারও ইউনিট ভিত্তিক পরীক্ষা নেয়া হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বলেন, ‘বিগত বছরের মতই এবারেও ইউনিট ভিত্তিতে পরীক্ষা হবে।’

গত বছর গুচ্ছ পদ্ধতিতে পরীক্ষা নেয়া হলেও তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি পরে জানুয়ারিতে ৭ সদস্যের এক কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির কাজ শেষ না হওয়ায় এবারও আগের পদ্ধতিতেই পরীক্ষা দিতে হবে শিক্ষার্থীদের।