চট্টগ্রাম, , বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর ২০১৮

১৪ জুলাই হজ ফ্লাইট শুরু, ফিরতি ২৭ আগস্ট

প্রকাশ: ২০১৮-০৭-০৯ ২১:২২:২৫ || আপডেট: ২০১৮-০৭-১০ ১১:৩৯:২০

পবিত্র হজ পালনের উদ্দেশে ১৪ জুলাই থেকে শুরু হচ্ছে হজ ফ্লাইট। হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে এদিন সৌদি আরবের জেদ্দা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের উদ্দেশে হজ ফ্লাইট ছেড়ে যাবে। ১১ জুলাই ঢাকার আশকোনায় হজ অফিসে হজের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পবিত্র হজ শেষে ২৭ আগস্ট প্রথম ফিরতি হজ ফ্লাইট শুরু হবে।

আজ সোমবার বিকেলে ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমানের সভাপতিত্বে সচিবালয়ে জাতীয় হজ ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্যদের অংশগ্রহণে আন্তমন্ত্রণালয় সভা শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান।

ধর্মমন্ত্রী বলেন, চাঁদ দেখা সাপেক্ষে এবার সম্ভাব্য হজের তারিখ হতে পারে ২১ আগস্ট। এবার বাংলাদেশ থেকে ১ লাখ ২৬ হাজার ৭৯৮ জন হজযাত্রী পবিত্র হজ পালনের জন্য সৌদি আরব যাবেন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় যাচ্ছেন ৬ হাজার ৭৯৮ জন। আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় যাচ্ছেন ১ লাখ ২০ হাজার জন। বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এবার ৫২৮টি হজ এজেন্সি হজের কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

হজের শেষ ফ্লাইট ঢাকা থেকে ছেড়ে যাবে ১৫ আগস্ট। আর পবিত্র হজ পালন শেষে ২৭ আগস্ট থেকে প্রথম ফিরতি হজ ফ্লাইট শুরু হবে। বাংলাদেশ বিমান ১৮৭টি ফ্লাইটে ৬৪ হাজার ৯৬৭ জন এবং সাউদিয়া এয়ারলাইনস ৬১ হাজার ৮৩১ জন হজযাত্রী পরিবহন করবে। বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এ পর্যন্ত ৯ হাজার ৫০০ জনের ভিসা সম্পন্ন হয়েছে। সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রীদের বাড়ি ভাড়া সম্পন্ন হয়েছে। বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রীদের পক্ষে অধিকাংশ এজেন্সি বাড়ি ভাড়া সম্পন্ন করেছে। এ বছর বাংলাদেশ বিমানের টিকিট পাওয়া সহজ করতে এজেন্সিগুলো সরাসরি বাংলাদেশ বিমান থেকে হজযাত্রীর সমপরিমাণ টিকিট সংগ্রহ করতে পারবে।

ধর্মসচিব আনিছুর রহমান বলেন, এই চারটি পরীক্ষা বাইরে থেকেও করে নিয়ে এলে ঝামেলাও কম হবে। এরপর তাঁরা দুটি টিকা নিয়ে চলে যাবেন। ৩ জুলাই থেকে স্বাস্থ্য পরীক্ষা শুরু হবে। ১৪ জুলাই হজ ফ্লাইট শুরু হলেও হজযাত্রীদের বিড়ম্বনার অভিযোগ হাবের পক্ষ থেকে করা হয়ে থাকে। সচিব বলেন, কোনো সমস্যা হবে না, যে যাঁর দায়িত্বে পরীক্ষা করে নিয়ে আসতে পারবেন।

ধর্মসচিব বলেন, সাউদিয়া এয়ারলাইনস থেকে ৪৬ হাজার ৭৫৫টি এবং বাংলাদেশ বিমান থেকে ৫১ হাজারের বেশি টিকিট ইস্যু করা হয়েছে। অবশিষ্ট আছে ৩০ হাজারের কিছু বেশি—এটা হয়ে যাবে। সৌদি থেকে সময়মতো সাড়া না পাওয়ার কারণে কিছু বিলম্ব হচ্ছে জানিয়ে সচিব বলেন, গত বছরে এই সময়ের চেয়ে অনেক গুণ এগিয়ে আছি। গত বছর এই সময়ে বিমানের ফ্লাইটের চার-পাঁচ দিন আগে মাত্র সাত হাজার টিকিট দেওয়া হয়েছে। সচিব বলেন, এ যাবৎ বেসরকারিভাবে ১৩ হাজার ৪০০ ভিসা ইস্যু হয়েছে। গত বছর এই সময়ে কোনো ভিসা হয়নি। সৌদি দূতাবাস এক দিনে ১০ হাজার ভিসা দেবে। তবে গত বছরের সময়ের তুলনায় অনেক ভালো অবস্থানে আছেন বলে জানান তিনি।