চট্টগ্রাম, , বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮

চিকিৎসাসেবা বন্ধ, চট্টগ্রামে সরকারি হাসপাতালে উপচে পড়া ভিড়

প্রকাশ: ২০১৮-০৭-০৯ ১০:৪৯:২৬ || আপডেট: ২০১৮-০৭-০৯ ১৩:১০:২৮

চট্টগ্রামে স্বাস্থ্য বিভাগ ও ওষুধ প্রশাসনের সহায়তায় র‌্যাবের অভিযানের প্রতিবাদে অনির্দিষ্টকালের জন্য সেবা বন্ধ রেখেছে বেসরকারি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন হাজার হাজার মানুষ। এ অবস্থায় সরকারি হাসপাতালে বাড়ছে রোগীর চাপ।

বিভিন্ন হাসপাতালে খোঁজ নিয়ে এবং রোগী ও তাদের স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে এই পরিস্থিতি সম্পর্কে জানা যায়। তবে, বেসরকারী হাসপাতালগুলো সেবা প্রদান বন্ধ রাখলেও সকল সরকারি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, আন্দরকিল্লা জেনারেল হাসপাতাল, চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল, আগ্রাবাদ এ চিকিৎসা সেবা নেওয়া যাবে। এ ছাড়া আমেরিকান চর্ম ও যৌন হাসপাতাল, আগ্রাবাদ; চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল, আগ্রাবাদ; ইউএসটিসি; বাংলাদেশ জেমিসন রেডক্রিসেন্ট হসপিটাল, আন্দরকিল্লা ও সিটি কর্পোরেশন এর স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে চিকিৎসা নিতে পারবেন রোগীরা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে রোগীর ভিড় আগের চেয়ে বেড়েছে। রাকিব নামের এক ব্যক্তি জানান, এক ডাক্তারের ব্যক্তিগত চেম্বারে বাচ্চাকে নিয়ে গিয়েছিলাম। কিন্তু তারা নাকি রোগী দেখছেন না। তাই বাধ্য হয়ে মেডিকেলে এসেছি।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই আলাউদ্দিন তালুকদার বলেন, চিকিৎসকদের প্রাইভেট প্র্যাকটিস বন্ধ থাকায় এবং বেসরকারি হাসপাতালে রোগী ভর্তি না করানোর কারণে রোগী আগের চেয়ে বেড়েছে। সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছেন চিকিৎসকরা। সোমবার এটা আরও বাড়তে পারে।

নগরের পাঁচলাইশ থানার কাতালগঞ্জ থেকে রোববার রাত ৮টার দিকে লিভারের জটিলতায় ভোগা শাশুড়ি রাবেয়া বেগমকে নিয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আসেন মো. কামাল বলেন, সিএসসিআর হাসপাতালে ভর্তি করাতে গিয়েও ডাক্তারদের ধর্মঘটের কারণে পারিনি। ব্যক্তিগত চেম্বারেও দেখাতে পারিনি। তাই বাধ্য হয়ে মেডিকেলে নিয়ে আসি।

উল্লেখ্য, সেবা প্রতিষ্ঠানের উপর সাংবাদিকদের ‘নগ্ন হামলার’ অভিযোগ এনে রোববার দুপুর থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য চট্টগ্রামের বিভিন্ন বেসরকারী হাসপাতালে ধর্মঘট ডেকেছে বেসরকারী চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান সমিতি।