চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮

তদন্তে অসন্তোষ, আইনি লড়াইয়ে যাচ্ছে রাইফার পরিবার

প্রকাশ: ২০১৮-০৭-০৭ ২৩:৪৮:০৮ || আপডেট: ২০১৮-০৭-০৮ ১৩:৩৮:২১

সিটিজি টাইমস প্রতিবেদক 

নগরীর বেসরকারি ম্যাক্স হাসপাতালে শিশু রাইফা খানের মৃত্যুর ঘটনায় করা তদন্তে সন্তুষ্ট হতে পারেননি তার বাবা সাংবাদিক রুবেল খান। তদন্ত প্রতিবেদনে ভুল চিকিৎসার বিষয়টি উঠে না আসায় তিনি অাইনি লড়াইয়ে যাচ্ছেন বলে জানান।

শনিবার (৭ জুলাই) রুবেল খান জানিয়েছেন, তিনি খুব শীঘ্রই দোষীদের বিরুদ্ধে মামলা করবেন।

এর আগে চট্টগ্রামের সিভিল সার্জনকে প্রধান করে গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে রাইফার মৃত্যুর জন্য তিন চিকিৎসকের অবহেলাকে দায়ী করা হয়। তবে চিকিৎসার ক্ষেত্রে কোনো ভুল হয়নি বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

তদন্ত প্রতিবেদনের বলা হয়েছে- ‘রাইফাকে ভর্তিকালীন সময় থেকে পরবর্তী যে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে তাতে রোগ নির্ণয়, চিকিৎসা ব্যবস্থাপত্র ও ওষুধের প্রয়োগ যথাযথ ছিল।’

একারণে রাইফার পিতা রুবের খান তদন্তে পুরোপুরি সন্তুষ্ঠ নন।

তিনি বলেন, রাইফার ক্ষেত্রে যেটা হয়েছে, সেখানে ভুল চিকিৎসা পুরোপুরি স্পষ্ট। গলা ব্যথার জন্য আমার মেয়েকে হাসপাতালে ভর্তি করার পর তাকে যখন অ্যান্টিবায়োটিক ইনজেকশন দেওয়া হয়, তখন সে অস্বস্তি বোধ করে। আমি বিষয়টি দেখে তাকে আর এন্টিবায়োটিক না দেওয়ার কথা বলি। আমি বুঝতে পারছিলাম, অ্যান্টিবায়োটিক সে নিতে পারছে না।

রুবেল খান বলেন, এরপরও তাকে অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া হয়। এর ফলে তার খিঁচুনি শুরু হয়। একপর্যায়ে রাইফা মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। কিন্তু ভুল চিকিৎসার বিষয়টা তদন্ত রিপোর্টে আসেনি।

এরআগে সাংবাদিক কন্যা শিশু রাইফার মৃত্যুুতে দায়িত্বরত তিন চিকিৎসকের অবহেলার প্রমাণ পায় চট্টগ্রামের সিভিল সার্জনের নেতৃত্বাধীন তদন্ত কমিটি।

শুক্রবার কমিটির দেয়া প্রতিবেদনে তিন চিকিৎসককে অভিযুক্ত করে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়।

এছাড়া ম্যাক্স হাসপাতাল ত্রুটির কথা উল্লেখ করে সেগুলো দ্রুত সংশোধন, ডিপ্লোমা ডিগ্রিধারী নার্স নিয়োগ ও চিকিৎসা সেবা অান্তরিকতা সঙ্গে দেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করা হয়।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার (২৯ জুন) গভীর রাতে ম্যাক্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সমকালের সাংবাদিক রুবেল খানের অাড়াই বছরের কন্যা রাইফার মৃত্যু হয়।

এরপর পরিবারের পক্ষ থেকে গাফিলতি ও ভুল চিকিৎসায় রাইফার মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ করা হচ্ছে।

শুক্রবার রাতেই রাইফার মৃত্যুর কারণ তদন্তে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে চট্টগ্রামের স্বাস্থ্য বিভাগ। কমিটিতে সিভিল সার্জন ডা. অাজিজুর রহমান সিদ্দিকী, চমেক হাসপাতালের শিশু বিভাগের প্রধান প্রণব কুমার চৌধুরী ও সাংবাদিক সবুর শুভকে সদস্য করা হয়।

এদিকে রাইফার মৃত্যুকে কেন্দ্র করে সাংবাদিক ও চিকিৎসকরা মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছেন। ইতোমধ্যে উভয় পক্ষ রাজপথে অান্দোলন করছে।

অন্যদিকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরও রাইফার মৃত্যুর কারণ তদন্তে একটি কমিটি গঠন করে। বৃহস্পতিবার সেই কমিটির প্রতিবেদনে গাফিলতি ও অবহেলায় রাইফার মৃত্যুু হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়।