চট্টগ্রাম, , বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮

রোহিঙ্গারা বাড়ি ফিরতে চায়, নিরাপত্তা-ন্যায় বিচার চায়: গুতেরেস

প্রকাশ: ২০১৮-০৭-০২ ১৪:৫৮:৫২ || আপডেট: ২০১৮-০৭-০২ ১৪:৫৮:৫২

জাতিগত নিপীড়নের মুখে সীমান্ত ও সাগর পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া কয়েক লাখ রোহিঙ্গাদের দুর্দশার করুণ চিত্র স্বচক্ষে দেখতে কক্সবাজারের কুতুপালংয়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করছেন জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস ও বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিম। পরিদর্শনকালে রোহিঙ্গার মুখ থেকে হত্যা ও নির্যাতনের নানা বর্ণনা শুনছেন তারা। এরই ফাঁকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে এক পোস্ট দিয়ে রোহিঙ্গা নিধন ও নির্যাতনের ঘটনাকে ‘অকল্পনীয়’ বলে মন্তব্য করেছেন গুতেরেস।

জাতিসংঘ মহাসচিব তাঁর পোস্টে লিখেছেন- ‘রোহিঙ্গারা দ্রুত নিজভূমে ফিরতে চায়। তারা নিরাপত্তা ও ন্যায় বিচার চায়।’

এর আগে সোমবার সকালে বাংলাদেশ বিমানের একটি বিশেষ ফ্লাইটে তারা কক্সবাজারে পৌঁছান। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলীও তাদের সঙ্গে রয়েছেন। কক্সবাজারে নেমে প্রথমে হোটেল সাইমন বিচ রিসোর্টে যান তারা। পররাষ্ট্রমন্ত্রী সেখানে তাদের রোহিঙ্গা পরিস্থিতি সম্পর্কে ব্রিফ করেন।

তার পর জাতিসংঘ মহাসচিব ও বিশ্ব ব্যাংক প্রেসিডেন্ট কুতুপালং ট্রানজিট ক্যাম্পে যান। সেখানে রোহিঙ্গাদের মুখ থেকে হত্যা, ধর্ষণ ও নিপীড়নের বিবরণ শোনেন। কথা বলেন সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে। তাদের আজ আরও কয়েকটি ক্যাম্প পরিদর্শনের কথা রয়েছে।

রোহিঙ্গাদের পরিস্থিতি দেখতে দুই দিনের সফরে গত শনিবার ঢাকায় আসেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস ও বিশ্ব ব্যাংক প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিম। গতকাল রবিবার অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে পৃথক বৈঠক করেন তারা।

উল্লেখ্য, জাতিগত নিধনের মুখে গত বছরের ২৫ আগস্টের পর থেকে নতুন করে কমপক্ষে ৭ লাখের মতো রোহিঙ্গা সাগর পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। বাংলাদেশ সরকার মানবিক দিক বিবেচনায় রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বিশ্বের প্রশংসা কুড়িয়েছে। তবে এত সংখ্যক রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে লম্বা সময় ধরে আশ্রয় দেয়া বাংলাদেশের মতো ক্ষুদ্র রাষ্ট্রের পক্ষে সম্ভব নয়। এ নিয়ে মিয়ানমার সরকার বিভিন্ন টালবাহানা করলেও রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নিতে দেশটির ওপর আন্তর্জাতিক প্রতিনিয়তই বাড়ছে।