চট্টগ্রাম, , শুক্রবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮

পানির নিচে চট্টগ্রাম

প্রকাশ: ২০১৮-০৬-১১ ০০:১৫:৩৭ || আপডেট: ২০১৮-০৬-১১ ১৩:১৩:৪৭

টানা বৃষ্টিতে পানির নিচে তলিয়ে গেছে চট্টগ্রামের অধিকাংশ এলাকা।  রবিবার বিকাল থেকে রাত পর্যন্ত মুষলধারে বৃষ্টি নামায় অনেক এলাকা কোমর সমান পানিতে ডুবে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি করেছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, নগরীর ষোলশহর, মুরাদপুর, প্রবর্তক, কাপাসগোলা, চকবাজার, আগ্রাবাদ, হালিশহরসহ নগরীর নিম্নাঞ্চল কোমর পানিতে তলিয়ে গেছে। আগ্রাবাদ এলাকার এক্সেস রোড, শান্তিবাগ, শ্যামিলী আবাসিক, ছোটপুল এলাকা কোমর পানির নিচে তলিয়ে গেছে।

 

অনেক এলাকায় মানুষ গাড়ি নিয়ে রাস্তায় বের হয়ে চরম বিপদে পড়েছেন। মাঝপথেই গাড়ি আটকে যাওয়ায় দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন তারা। কাপাসগোলা, প্রবর্তকসহ নগরীর অনেক এলাকাতেই সিএনজি ট্যাক্সির ইঞ্জিন বিকল হয়ে রাস্তায় শত শত ট্যাক্সি আটকে গেছে। অনেক বাসাবাড়িতেও পানি ঢুকে গেছে।

পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, লঘুচাপটি মৌসুমি স্থল নিম্নচাপে পরিণত হওয়ায় তার প্রভাবে চট্টগ্রাম জুড়ে বিরামহীনভাবে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাত হয়েছে। বন্দরনগরী চট্টগ্রামে একদিনেই ২৩৯ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। যা চলতি বছরে বর্ষা মৌসুমে রেকর্ড। সোমবার (১১ জুন) সকাল ৯টা থেকে পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাতের এ রেকর্ড করা হয়। পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিস এ তথ্য জানিয়েছে।

পতেঙ্গা আবওহাওয়া অফিসের সহকারী আবহাওয়াবিদ শ্রীকান্ত ও মিলি রহমান জানান, যেখানে বর্ষা মৌসুমে সাধারণত গড়ে ৪০-৬০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়, সেখানে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৩৯ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। এটি চলতি বর্ষা মৌসুমে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাতের রেকর্ড।

শনিবার (৯ জুন) থেকে চট্টগ্রাম নগরে বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে। রোববার (১০ জুন) থেমে থেমে তা চলে দিনভর। কখনো ভারী বর্ষণ, আবার কখনো গুঁড়িগুঁড়ি। এই টানা বৃষ্টিতে দুর্ভোগে পড়েছে নগরবাসী। বৃষ্টিতে স্থবির হয়ে পড়েছে চট্টগ্রাম।

চট্টগ্রাম, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছধরার নৌকা ও ট্রলারগুলোকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে চলাচল করতে বলা হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তত্সংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত সুস্পষ্ট লঘুচাপের কারণে উপকূলীয় এলাকা ও সমুদ্রবন্দরগুলোকে এ সতর্কতা সংকেত দেয়া হয়েছে।

এদিকে বৃষ্টির কারণে বিভিন্নস্থানে জলাবদ্ধতা হচ্ছে। বর্ষণের ফলে নগরীর চকবাজার, বহদ্দারহাট, মুরাদপুর, স্টেশন রোড, রিয়াজউদ্দিন বাজার, দুই নম্বর গেটসহ বেশ কিছু এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়।