চট্টগ্রাম, , বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮

উল্টো রথে বাংলাদেশের ক্রিকেট

প্রকাশ: ২০১৮-০৬-০৮ ১৫:৩৬:০৩ || আপডেট: ২০১৮-০৬-০৮ ১৫:৩৬:০৩

ক্রিকেটে নিয়মিত হারের বৃত্ত থেকে বের হতে পারছে না বাংলাদেশ। ২০১৫ সালে বিশ্বকে তাক লাগানো বাংলাদেশকে যেন এখন খুঁজেই পাওয়া যাচ্ছে না। বাংলাদেশের একের পর এক হারে পুরোনো দিনের কথা মনে করিয়ে দিচ্ছে সবাইকে। অনেকেরই মনে প্রশ্ন জেগেছে তাহলে কি উল্টোপথে হাঁটা শুরু টিম টাইগার?

২০০০ সালের টেস্ট স্ট্যাটাস পাওয়ার পর বাংলাদেশকে নিয়ে সমালোচনা কম হয়নি। প্রথম টেস্টে ভারতের কাছে লড়াই করে হারলেও ক্রিকেটের এই লংগার ভার্সনে টাইগারদের পারফরম্যান্স খুব একটা সুখকর নয়। মাঝে ওয়ানডে ক্রিকেটে ভালো করে বিশ্ব ক্রিকেটকে তাক লাগিয়ে দিলেও আফগানিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে ওয়াইটওয়াশ বাংলাদেশকে অনেকটা লজ্জায় ফেলে দিয়েছে।

ওয়ানডেতে টাইগারদের ভালো ধারাবাহিকতা থাকলেও সর্বশেষ বাংলাদেশ দ্বি-পাক্ষিক সিরিজে জয় পেয়েছে ২০১৬ সালে। আফগানিস্তানের বিপক্ষে সেই সিরিজে ২-১ তে সিরিজ জেতে বাংলাদেশ। এরপরে ইংল্যান্ডের কাছে হার, নিউজিল্যন্ডের কাছে হোয়াইটওয়াশ শেষ দক্ষিণ আফ্রিকাতেও হোয়াইটওয়াশ।

আর ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে তো বাংলাদেশের চোখে পড়ার মত কোনো সাফল্যই নেই। র‍্যাঙ্কিংয়ের দিকে তাকালেও সবার পেছনে বাংলাদেশ। চলতি বছরের শুরুতেই ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কার কাছে হোয়াইটওয়াশ হয়েছিল টাইগাররা। সেই ধকল না কাটতেই নিদাহাস ট্রফির ফাইনালে ভারতের কাছে হার।

এর আগে গেল বছর নিউজিল্যান্ডের কাছে হোটাইটওয়াশ। আর এবার একটি অভিজ্ঞ দল হিসেবে টেস্ট না খেলা দলের কাছে সিরিজ হারের হতাশাটা একটু বেশিই মনে হয়। সককিছু মিলিয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেট যেন এখন উল্টো রথেই হাটছে।

গতকাল আফগানিস্তানের বিপক্ষে তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচের চেয়ে শেষ ম্যাচে লড়াই বেশি হলো। কিন্তু তাতেও পাল্টা‌ইনি ম্যাচের ফলাফল। এক রানের জয়ে ৩-০ তে সিরিজ জিতে নিল আফগানিস্তান। এমনহারে বাংলাদেশের ভিতটা আরও নড়বড়ে হয়ে গেল।

আফগানদের বিপক্ষে বাংলাদেশের বোলিং-ব্যাটিং-ফিল্ডিং তিন বিভাগই ছিল এলোমেলো। আফগান স্পিনার এক রশিদ খানের কাছেই যেন ব্যর্থ পুরো দল। প্রতিটি ম্যাচেই তার চারটি ওভারই মূলত ধ্বসিয়েছে বাংলাদেশের ব্যাটিং। রশিদের দুর্দান্ত বোলিংয়ের সঙ্গে মুজিব জাদরান ও অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নবীর কেমিস্ট্রি তো আছেই। সবকিছু মিলিয়ে একটি টেস্ট খেলুড়ে দেশ হয়েও আফগানিস্তানের নবীন ক্রিকেটারদের কাছে পাত্তাই পেল না বাংলাদেশ।

জুলাই মাসে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে একটি পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। সেখান থেকে ফিরেই এশিয়া কাপের প্রস্তুতি। আর তারপরেই বিশ্বকাপের মত একটি বিগ আসর। তার আগে এমন হার পরবর্তী সিরিজ গুলোতেও সাকিব-তামিমদের উপর চাপ তৈরি করবে।

বলা যায় বিশ্বকাপের আগে এমন সিরিজগুলোর জয় টাইগারদের মধ্যে আত্মবিশ্বাসের জন্ম দেবে। কিন্তু একের পর এক হার তাদের আত্মবিশ্বাসের জায়গাটাকে আরো দুর্বল করে দিচ্ছে।

টাইগারদের জন্য নিয়োগ করা হয়েছে ইংলিশ কোচ স্টিভ রোডসকে। নতুন কোচের আশা বাংলাদেশকে বিশ্বকাপের ফাইনালে নিয়ে যেতে। কিন্তু নতুন কোচের স্বপ্ন আর টানা ব্যর্থতা নিয়ে বাংলাদেশ বিশ্বকাপে কতটা ভালো করবে তাই এখন দেখার অপেক্ষা।- ঢাকাটাইমস