চট্টগ্রাম, , শুক্রবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮

মিরসরাইয়ে চিচিংঙ্গার বাম্পার ফলন, দাম ভালো পাওয়ায় কৃষকরাও খুশি

প্রকাশ: ২০১৮-০৬-০৩ ১২:১৭:৫৩ || আপডেট: ২০১৮-০৬-০৩ ১৩:৫৪:৫৯

এম মাঈন উদ্দিন

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে চলতি মৌসুমে চিচিংঙ্গার বাম্পার ফলন হয়েছে। এই সবজি চাষ করে অনেক চাষি স্বাবলম্বী হয়েছেন। এতে করে চিচিংঙ্গা চাষে আরো আগ্রহী হচ্ছেন কৃষকরা।

মিরসরাই কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর মিরসরাইয়ে ১৬টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভায় প্রায় ৯২ হেক্টর জমিতে চিচিংঙ্গা চাষ করা হয়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি চিচিংঙ্গা চাষ করা হয়েছে মিরসরাই সদর, ওয়াহেদপুর, খৈয়াছরা ও দূর্গাপুর ইউনিয়নে। এই ৪ ইউনিয়নে প্রায় ৫০ হেক্টর জমি চিচিংঙ্গা চাষ করা হয়েছে। এছাড়া ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সোনাপাহাড় এলাকায় রাস্তার দুই পাশে সারিবদ্ধভাবে জমিতে চিচিংঙ্গা চাষ করা হয়।

উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে গিয়ে দেখা যায়, বাঁশের তৈরি মাচার নিচে সারিবদ্ধ ভাবে ঝুলছে চিচিংঙ্গা। কৃষকরা চিচিংঙ্গা তুলে ঝুঁড়িতে সাজিয়ে বাজারে বিক্রির উপযোগী করে তুলছেন। এছাড়া চট্টগ্রাম থেকে অনেক সবজি বিক্রেতা চাষিদের উৎপাদিত চিচিংঙ্গা কিনে ট্রাক বোঝাই করছেন।

কথা হয় চট্টগ্রাম থেকে বড়দারোগাহাট বাজারে আসা সবজি ক্রেতা জহির মিয়ার সাথে। তিনি জানান, এই বছর অন্যান্য সবজির তুলনায় চিচিংঙ্গার চাহিদা বেশি রয়েছে। ঠান্ডা তরকারি হিসেবে পরিচিত চিচিংঙ্গা মিরসরাইয়ে ভালো জম্মে বলে তিনি জানান। তাই তিনি সপ্তাহে সোমবার ও বৃহস্পতিবার বড়দারোগাহাট বাজারে সবজি কিনতে বাজারে আসেন।

ওয়াহেদপুর ইউনিয়নের মধ্যম ওয়াহেদপুর গ্রামের কৃষক সাইফুলল্লাহ, বিকাশ ভৌমিক জানান, এই বছর তিনি প্রায় ১৩ হেক্টর জমিতে চিচিংঙ্গা চাষ করেছেন। পাহাড়ী ঢালু জমিতে চিচিংঙ্গা চাষ করে তিনি স্বাবলম্বী হয়েছেন। এখন প্রতি মণ চিচিংঙ্গা তিনি বিক্রি হচ্ছে ১০০০ থেকে ১১০০ টাকা। এছাড়া খুচরা বাজারে প্রতি কেজি চিচিংঙ্গা বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৩৫ টাকায়। মোটামুটি ভালো দাম পাওয়ায় তারা খুশি।
মিরসরাই সদর ইউনিয়নের কৃষক জাফর আলম জানান, গত বছর তিনি ৭ হেক্টর জমিতে চিচিংঙ্গা চাষ করেন। ভালো ফলন পেয়ে তিনি এবছর ১২ হেক্টর জমিতে চিচিংঙ্গা চাষ করেছেন। ফলন ভালো হওয়ায় দামও পেয়েছেন ভালো।

মিরসরাই উপজেলা কর্মকর্তা বুলবুল আহম্মদ জানান, মিরসরাইয়ের বিভিন্ন ইউনিয়নে চিচিংঙ্গার ভালো ফলন হয়েছে। এছাড়া দামও পাচ্ছেন ভালো। ধীরে ধীরে উপজেলায় সবজি চাষে আরো বেশি উৎসাহিত হচ্ছে কৃষকরা।