চট্টগ্রাম, , শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮

টি-টোয়েন্টি সিরিজে প্রথম মুখোমুখি বাংলাদেশ-আফগানিস্তান

প্রকাশ: ২০১৮-০৬-০৩ ১১:৫৯:৪২ || আপডেট: ২০১৮-০৬-০৩ ১৪:৫৭:৪৪

যুদ্ধ বিধ্বস্থ দেশ হলেও গত কয়েকবছরে ক্রিকেটে নিজেদের ভিত্তি বেশ পোক্ত করে তুলেছে আফগানিস্তান । টেস্ট খেলুড়ে টাইগাররা ওয়ানডে র‌্যাংকিংয়ে তিনঘর উপরে অবস্থান করলেও সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে আফগানদের দুই ঘর পেছনে। টি-টোয়েন্টিতে আট নম্বরে থাকা আফগানিস্তানের বিপক্ষে র‌্যাংকিংয়ের দশ নম্বরে থাকা বাংলাদেশ আজ মাঠে নামছে। দুই দলের এই প্রথমবার আয়োজন হয়েছে টি-টোয়েন্টি সিরিজ।তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টি মাঠে গড়াচ্ছে আজ।

ভারতের দেরাদুনে রাজিব গান্ধী স্টেডিয়ামে খেলা শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ৮টায়। ম্যাচটি সরাসরি সম্প্রচার করবে চ্যানেল আই এবং জিটিভি।

প্রস্তুতি ম্যাচে ৮ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে সাকিবদের কুপোকাত করে ফুরফুরে মেজাজে রয়েছে আফগানিস্তান । সিরিজে আফগানরাই ফেভারিট। ওই ম্যাচে টাইগারদের নির্বিষ বোলিং আর ব্যাটিং বিপর্যয়ের ধারাবাহিকতা থেকে বের হতে না পারে বাংলাদেশকে বাড়তি চাপ নিয়েই প্রথম ম্যাচে মাঠে নামতে হচ্ছে। প্রস্তুতি ম্যাচে ছিলেন না অাফগান দলে ছিলেন না দুই পরীক্ষিত বোলার রশিদ খান বা মুজিবুর রহমান। সেই দলের কাছেই অভিজ্ঞতায় এগিয়ে থাকা সৌ্ম্য-সাব্বির-রিয়াদরা পাত্তা পেল না। মূল ম্যাচে রশিদ-মুজিবুরকে নিয়ে পূর্ণশক্তির আফগানিস্তানের সামনে টিকে থাকতে হলে আরো বেশি কসরত করতে হবে বাংলাদেশকে। ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি বোলিংয়েও টাইগারদের দেখাতে হবে বাড়তি নৈপূন্য। ব্যাটি-বোলিং-ফিল্ডিং- তিন বিভাগেই নিজেদের সেরাটা খেলতে পারলে ফলাফল হয়তো নিজেদের অনুকূলে আনতে পারবে টাইগাররা।

ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে টাইগার অধিনায়ক সাকিব আল হাসানও সে কথাই বললেন। তিন ফরম্যাটের ক্রিকেটের মধ্যে সংক্ষিপ্ত পরিসরের টি-টোয়েন্টি ঘিরেই থাকে অনিশ্চয়তা। যে দলের সবাই যেদিন জ্বলে ওঠে সেদিন সেই জিতবে। আফগানদের সাম্প্রতিক উত্থানকে বড় করেই দেখছেন বাংলাদেশের ক্যাপ্টেন। তিনি বলেন, অনেক সময় কোনো কোনো দলে একসঙ্গে অনেক মেধার সমাবেশ ঘটে। আফগানিস্তানের এই দেলে আছে এরকমই কিছু প্রতিভা। সব দিক থেকেই ওরা ব্যালেন্স একটা দল। ওদের হারাতে হলে আমাদের সেরাটাই দিতে হবে।

সদ্য টেস্ট মর্যাদা পাওয়া আফগানিস্থানে বিপক্ষে মাঠে নামছে বাংলাদেশ চাপের মধ্যে থেকে।। কারণ র‌্যাংকিংয়ে নিজেদের অবস্থান টিকিয়ে রাখতে হলে জিততে হবে সব ম্যাচে, হারলেই আরো পিছিয়ে যাবে টাইগাররা। কিন্তু সাকিবের দলকে চোখ রাঙাচ্ছে আফগান লেগ স্পিনার রশিদ খান। দারুণ ফর্মে আছেন এই বোলার। জয় পেতে হলে তার রুখতে হবে রশিদ খানকে। সাকিব অবশ্য বললেন, রশীদ খানের সাম্প্রতিক পারফরন্সেকে সমীহ করলেও তাকে নিয়ে ভাবছেন। বরং ভাবছেন নিজ দলের সদস্যদের কথা। সবার ভেতর ঢুকানো চেষ্টা করছেন একটা প্রত্যয়। চিততে হলে ভালো খেলতে হবে।

দেরাদুনে রাজীব গান্ধি স্টেডিয়ামের উইকেট পেস সহায়ক হবে ধারণা করেই চার পেসার নিয়ে সফরে গেছে বাংলাদেশ। তবে সর্বশেষ পিচ রিপোর্ট অনুসারে দেরাদুনের উইকেট হবে স্পিনারদেরই বন্ধু। যেখানে আফগান স্পিনাররা পাবে দারুণ সুবিধা। অন্যদিকে টাইগার অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ছাড়াও নাজমুল ইসলাম অপু ও মেহেদী হাসান মিরাজই স্পিনে দলের ভরসা। তবে যাকে ঘিরে টাইগাররা বোলিং আক্রমণের স্বপ্ন দেখেছিল সেই মোস্তাফিজুর রহমান দলে নেই। ইনজুরির কারণে ছিটকে গেছেন এ সিরিজ থেকে। তার পরিবর্তে দলে এসেছেন ছয় বছর আগে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি খেলা পেসার আবুল হাসান রাজু। এছাড়াও পেস বিভাগে রয়েছেন রুবেল হোসেন, তরুণ আবু জায়েদ রাহী ও আবু হায়দার রনি। প্রস্তুতি ম্যাচে বাংলাদেশের ৬ উইকেট ১৪৫ রানের টার্গেট আফগানরা খুব সহজেই টপকে গেছে। যে কারণে সাকিবের দলের বোলিংটাও এখন বড় ভাবনা। যদি উইকেট স্পিন সহায়ক হয় সেইক্ষেত্রে দুই পেসার নিয়েই খেলবে বাংলাদেশ। রুবেলের সঙ্গে তখন দেখা যেতে পারে রাহীকে।

ব্যাটিংয়ের ওপনার তামিম ইকবালের সঙ্গে দেখা যাবে লিটন কুমার দাসকে। এরপর তিন মুশফিকুর রহীম, চারে সাকিব আল হাসান, পাঁচে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, ছয়ে সাব্বির রহমান, সাতে মোসাদ্দেক হোসেন, আটে মেহেদী হাসান মিরাজ অথবা আরিফুল হক। তবে ব্যাটিংয়ে বেশি গুরুত্ব দিলে দলে সুযোগ পেতে পারেন সৌম্য সরকার। মূলত দলের ভরসা টপ ও মিডল অর্ডার। তামিম ইকবাল নিদাহাস ট্রফিতে ইনজুরিতে পড়েছিলেন। তারপর তার আর মাঠে নামা হয়নি। যদিও বিশ্ব একাদশের হয়ে খেলেছেন ইংল্যান্ডে। সেখানে তার ব্যাট থেকে আসে ৮ বলে ২ রান। এরপর বাকি ৪ জনই ফর্মে আছেন। দীর্ঘদিন মাঠে ফিরে মোসাদ্দেক প্রস্তুতি ম্যাচে ৩৮ রান করে ফর্মের ইঙ্গিত দিয়েছেন।

এ ম্যচে সাকিবের সামনে রয়েছে রেকর্ড গড়ার হাতছানি থাকছে এ ম্যাচে। ৩ জুনের প্রথম টি-টোয়েন্টি বাংলাদেশ দলের ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের জন্য বিশেষ এক উপলক্ষ। আর মাত্র ২ উইকেট পেলেই মাত্র তৃতীয় ক্রিকেটার হিসেবে সব ফরম্যাট মিলিয়ে ৫০০ উইকেট ও ১০,০০০ রানের মাইলফলক ছুঁয়ে ফেলবেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার। তার আগে শহীদ আফ্রিদি ও জ্যাক ক্যালিসও এই রেকর্ড গড়েছিলেন।সবাইকে ছাড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ এখন সাকিবের সামনে। কারণ বাঁহাতি স্পিন অলরাউন্ডারের আগে দক্ষিণ আফ্রিকার জ্যাক ক্যালিস ৪২০ ম্যাচে এবং পাকিস্তানের শহীদ আফ্রিদি ৪৭৭ ম্যাচে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১০ হাজার রান ও ৫০০ উইকেটের ডাবল ছুঁয়েছিলেন। কিন্তু সাকিব মাত্র ২৯৯টি ম্যাচ খেলেছেন। ফলে সাকিবের সামনে মাত্র ৩০০ ম্যাচেই রেকর্ড গড়ার হাতছানি।

সম্ভাব্য বাংলাদেশ দল:
তামিম ইকবাল, লিটন দাস, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), মাহমুদুল্লাহ, সাব্বির রহমান, মোসাদ্দেক হোসেন, মেহেদি হাসান মিরাজ, আবু হায়দার, রুবেল হোসেন, নাজমুল ইসলাম।

সম্ভাব্য আফগানিস্তান দল:
আজগর স্ট্যানিকজাই (অধিনায়ক), নাজিব তারাকাই, মোহাম্মদ শাহজাদ, মুজিব উর রহমান, নাজিবুল্লাহ জাদরান, শফিকুল্লাহ শাদাক, মোহাম্মদ নবি, রশিদ খান, গুলবদিন নায়েব, শারাফুদ্দিন আশরাফ, আফতাব আলম।