চট্টগ্রাম, , শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮

ঈদ বাজার : এক ছাতার নিচে সব বাজার ‘রাজস্থান’

প্রকাশ: ২০১৮-০৬-০২ ১৫:০৯:৪৯ || আপডেট: ২০১৮-০৬-০২ ১৫:০৯:৪৯

আখতার হোসাইন:

ঈদকে সামনে রেখে নগরীর বিপনী বিতান গুলোতে ক্রেতাদের ভিড় দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিভিন্ন বিপনী বিতান গুলোতে পন্যের দাম অতিমাত্রায় হাকডাক করে বলা এবং ক্রেতাদের চাহিদার অতিরিক্ত দামের কারণে সাধারণ দোকানের চেয়ে ব্রান্ডিং এবং একদামে বিক্রির দোকানে ভিড় লক্ষনীয়। রমজানের রোজা নিয়ে অতি গরমের অতিষ্ঠ ক্রেতারা এক ছাতার নিচ থেকেই কেনাকাটা শেষ করতে বেশী আগ্রহী। এমন শপিং সেন্টার পছন্দ করতে গিয়ে নগরীর রিয়াজ উদ্দিন বাজারের প্যারামাউন্ট সিটিতে সুবিশাল শো-রুম নিয়ে প্রতিষ্ঠিত রাজস্থানকে বেচে নিচ্ছে ক্রেতা সাধারণ।

রাজস্থানে ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী কাপড়ের বিশাল সমাহার। দামও ক্রেতাদের সাধ্যের মধ্যে থাকায় দিনরাত ক্রেতাদের ভিড় লক্ষণীয়। প্যারামাউন্ট সিটির লেভেল-৩ এর পাঞ্জাবী, শিরোয়ানী, পায়জামা ও জোতার বিশাল সমাহার নিয়ে রাজস্থানের বিশাল শো-রুম ঘুরে দেখা যায় তরুন-তরুনী, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও সাধারণ ক্রেতাদের উপছে পড়া ভিড়। তার একটু সামনে রয়েছে জোতা, সেন্ডেল ও ব্যাগের বিশাল সমাহার। পাশাপাশি রয়েছে রাজস্থান লুঙ্গির বিশাল কালেকশন। লেভেল-২ এ রয়েছে ঈদ স্পেশাল কালেকশান সমৃদ্ধ বিশাল বাচ্চাদের কাপড়ের শো-রুম। তার মুখামুখি রয়েছে জেন্টস এর অপর শো-রুম।

প্যারামাউন্ট সিটির নিচে রয়েছে জেন্টস ও লেডিসদের নতুন নতুন বাহারী কাপড়ের সমাহার। এখানেও শার্ট, টি-শার্ট, থ্রী পিচ, লেহেঙ্গা, গাউন, বারারা, ডয়মন্ড সিল্ক, ফ্লোর টাচ, বয়েল প্রিন্ট, বারবীসহ নানা রকমের নিত্য নতুন পোশাক কিনতে তরুন-তরুণীরা ভিড় করছে। গভীর রাত পর্যন্ত ক্রেতাদের ভিড় থাকে বলে জানান রাজস্থানের পরিচালক আবু কাউসার।

দেখা গেছে টেরীবাজার ইমাম ম্যানশনে সুবিশাল রাজস্থানে দিন-রাত ক্রেতাদের ভিড় অপর দিকে নাসিরাবাদ মিমি সুপার মার্কেটের বিপরীত কেবিএইচ প্লাজায়ও রয়েছে দৃষ্টি নন্দন বিশাল রাজস্থানের শো রুম।

পরিচালক আবু কাউসার আরো বলেন, বাংলাদেশ এখন মধ্য আয়ের দেশ। মানুষের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির পাশাপাশি চাহিদা এবং রুচিও পরিবর্তন হয়েছে। অধিকাংশ ক্রেতা ব্রান্ডিং এবং একদামে বস্ত্র কিনতে আগ্রহি। তাছাড়া সারা মার্কেট ঘুরাঘুরি না করে এক জায়গা থেকে ছোট-বড়, ছেলে-মেয়ে সবার বাজার করতে আমাদের এখানে চলে আসছে। তিনি বলেন, আমাদের পণ্য গুলোর কোয়ালিটি নিয়ে ক্রেতারা সন্তুষ্ট। আমরা পণ্য ক্রয়ের ১সপ্তাহের মধ্যে ফেরত বা বদলানো ব্যবস্থা রেখেছি। আবার দামের দিক দিয়ে কোথাও আমাদের চেয়ে কম রেটে পণ্য পাওয়া গেলেও আমরা ডেমারেজ দিতে প্রস্তুত। তিনি ক্রেতাদেরকে একই ছাতার ভিতর থেকে ঈদের সমস্ত কেনাকাটা করার জন্য রাজস্থানে চলে আসার আহবান জানান।