চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ২১ আগস্ট ২০১৮

কেন মামলা হবে? আন্দোলন করা উচিত !

প্রকাশ: ২০১৮-০৫-১৬ ১৫:৩৪:২৬ || আপডেট: ২০১৮-০৫-১৬ ২২:৪০:০৮

চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় ইফতার সামগ্রী বিতরণের সময় ভিড়ের মধ্যে পদদলনে নয় নারীর নিহত হওয়ার ঘটনায় অবহেলাজনিত মৃত্যুর অভিযোগে উদ্যোক্তা কেএসআরএমের মালিকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

এ ঘটনায় Peaceful Mannan নামে একজন ফেসবুক স্ট্যাটাসটে লিখেন ”কেন মামলা হবে?”

স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো 

কেন মামলা হবে?

কেএসআরএম এর মালিক শাহাজাহান সাহেবের ইফতার সামগ্রী বিতরণ কালে হিটস্ট্রোক করে প্রাণ হারানোর দায় কেন কেএসআরএম মালিকের উপর গিয়ে পড়বে? শাহজাহান সাহেব তো প্রতিবছর লিষ্টভুক্ত প্রতিবেশিকে ইফতার সামগ্রী ও নগদ অর্থ দিয়ে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। সেখানে বাইরের লোক কেন আসবে? কেন তাদেরকে তো মাইকিং করে কেউ ডাকতে যায়নি যে আজকে সাহেব আপনাদের ইফতার সামগ্রী বিতরণ করবে! কেন আপনারা এসে ভীড় জমালেন? ঠেলাঠেলি করে নিজের জীবন বিপন্ন করে দায় চাপাবেন অন্যের ঘাড়ে? কেনই বা এতো বড় একজন শিল্পপতিকে এজহারনামীয় আসামি করে হত্যা মামলা করবেন?

তিনি একজন শীর্ষস্থানীয় শিল্পপতির পাশাপাশি একজন সমাজসেবক। তার অর্জিত সম্পদের যাকাত গরীবদের মাঝে বিলিয়ে দিয়ে আসছে বহুবছর ধরে। তার অনন্য ভূমিকার জন্য ডলুনদী ভাঙ্গন রোদ করা সম্ভব হয়েছে। রাস্তা ঘাট নির্মান, মসজিদ, মাদ্রাসা, এতিমখানাসহ বিভিন্ন সামাজিক সাহায্য সহযোগিতার মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে থাকেন। আমি ছোট বেলা থেকে দান খয়রাত করতে শুনেছি বাট কোনদিন তার দানের বা ত্রান বিতরনের বা সাহায্য সহযোগিতার কোন ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেখিনি। ঘরহীন লোকদের ঘর বানিয়ে দেয়া, বেকার যুবকদের বিদেশ প্রেরণ, নিজম্ব শিল্প প্রতিষ্ঠানে চাকুরি প্রদানসহ বিভিন্ন সামাজিক অবদান নলুয়াবাসী কোনদিন ভুলতে পারবে না। তাহলে নিরবে দানকারী এই শিল্পপতির সব অবদান আজকে কেন প্রশ্নবিদ্ধ হবে?

আমার ব্যক্তিগতভাবে মনে হচ্ছে এটা কোন মামলা দায়ের করা হাছিনা আক্তারের স্বামীর একার কাজ না। এখানে তৃতীয় শক্তির হাতও থাকতে পারে। না হলে এতো বড় একজন শিল্পপতিকে আসামী করে মামলা দায়ের করা কারো পক্ষে সম্ভব নয়। শাহাজাহান সাহেবের সম্মান নষ্ট করার জন্য হয়তো কেউ উস্কানি দিয়েছেন। আবার মুখে রটতেও শুনেছি মামলা করলে বাদী মালমা প্রত্যাহরের করার বিনিময়ে প্রচুর অর্থের লোভে এমন কাজ করেছে।

নলুয়া, ডেমশা, গাটিয়াডেঙ্গাসহ কেএসআরএমে সকল কর্মকর্তার ও কর্মচারিসহ এই উস্কানিদাতা ও মামলা প্রত্যাহারের জন্য আন্দোলন করা উচিত। আন্দোলন, মানববন্ধন, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র ও উস্কানির বিরুদ্ধে রুখে দাড়াতে হবে।

Peaceful Mannan এর ফেসবুক থেকে