চট্টগ্রাম, , শুক্রবার, ১৭ আগস্ট ২০১৮

বর্ণিল আয়োজনে চট্টগ্রামে বর্ষবরণ

প্রকাশ: ২০১৮-০৪-১৪ ১১:২০:৪১ || আপডেট: ২০১৮-০৪-১৪ ২০:০৬:২৮

চট্টগ্রামে নগরজুড়ে নানা আয়োজনে বাংলা নববর্ষকে বরণ করা হচ্ছে। বর্ষবরণের প্রতিটি আয়োজনেই ছিল নানা বয়সী নারী-পুরুষের উপচে পড়া ভিড়। মূল আয়োজন ছিল নগরের ডিসি হিলে। সম্মিলিত পয়লা বৈশাখ উদ্যাপন পরিষদের উদ্যোগে ৪১ বছর ধরে এ আয়োজন করা হচ্ছে।

শনিবার (১৪ এপ্রিল) সকাল ছয়টা ১৫ মিনিটে ডিসি হিলে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান শুরু হয় রক্তকরবীর পরিবেশনা দিয়ে।বিশিষ্ট রবীন্দ্রসংগীতশিল্পী শীলা মোমেনের নেতৃত্বে রক্তকরবীর শিল্পীরা নববর্ষকে আবাহন জানান গানে গানে।ছয়টা ৩৬ মিনিটে তারা পরিবেশন করেন ‘এসো হে বৈশাখ এসো এসো’ গানটি। শিল্পীদের সঙ্গে কণ্ঠ মেলান ডিসি হিলের হাজারো দর্শক-শ্রোতা।এরপর গানের ডালি নিয়ে আসেন সংগীত ভবনের শিল্পীরা।

প্রথম অধিবেশনে গান করবে জয়ন্তী, ছন্দানন্দ, গুরুকুল সংগীত একাডেমি, সুর সাধনা সংগীতালয়, গীতধ্বনি, সৃজামি, ইমন কল্যাণ সংগীত বিদ্যাপীঠ, খেলাঘর ও বংশী শিল্পকলা একাডেমি।

নৃত্য পরিবেশন করবে নটরাজ, স্কুল অব ওরিয়েন্টাল ডান্স, ওড়িশী অ্যান্ড টেগোর ডান্স মুভমেন্ট সেন্টার, গুরুকুল, নৃত্যম একাডেমি, ঘুঙুর নৃত্যকলা কেন্দ্র, সঞ্চারী নৃত্যকলা একাডেমি, নৃত্য নিকেতন, দি স্কুল অব ক্লাসিক অ্যান্ড ফোক ডান্স এবং কৃত্তিকা নৃত্যালয়।

আবৃত্তি করবে বোধন আবৃত্তি পরিষদ, প্রমা আবৃত্তি সংগঠন, স্বরনন্দন প্রমিত বাংলা চর্চা কেন্দ্র ও উচ্চারক আবৃত্তিকুঞ্জ।

দ্বিতীয় অধিবেশন শুরু হবে বেলা দুইটায়।

বৈশাখী উৎসবকে ঘিরে মোমিন রোড, নন্দনকানন, আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ সড়ক, চেরাগি পাহাড় এলাকায় বসেছে বৈশাখী মেলা। যাতে মাটির হাঁড়ি-পাতিল, ব্যাংক, শিশুদের খেলনা, মৌসুমি ফল, গহনা, গৃহস্থালি সামগ্রী, পান্তা-ইলিশ, শরবত, আইসক্রিম ইত্যাদি বিক্রি হচ্ছে।

শিরীষতলায় জমছে বর্ষবরণ, বিকেলে বলীখেলা

ভায়োলিনিস্ট চিটাগাংয়ের শিল্পীরা ‘এসো হে বৈশাখ এসো এসো’ গানটি যখন পরিবেশন করেন তখন সকাল পৌনে আটটা।এর মধ্য দিয়ে শুরু হয় নৈসর্গিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি সিআরবির শিরীষতলায় নববর্ষ উদযাপন পরিষদ চট্টগ্রামের আয়োজনে বর্ষবরণের ১০তম আয়োজন।

প্রিয়তোষ বড়ুয়ার নেতৃত্বে ভায়োলিনিস্টের শিল্পীরা পরিবেশন করেন ‘আলোকের ঝরনাধারা’, ‘ও পলাশ ও শিমুল’ গান দুইটি। তারা হাম্বাজ রাগে নববর্ষকে আবাহন জানান।

প্রথম অধিবেশনে দলীয় পরিবেশনায় অংশ নেবে ২২টি সাংস্কৃতিক সংগঠন। বেলা দুইটায় সাত রাস্তার মোড়ে অনুষ্ঠিত হবে সাহাবউদ্দিনের বলীখেলা। পৌনে তিনটায় থাকবে ঢাকার সমগীত সাংস্কৃতিক প্রাঙ্গণের পরিবেশনা।
বিকেল পৌনে চারটা থেকে একক সংগীত পরিবেশন করবেন নাফিজা শামীম প্রাপ্তি, পাপড়ি ভট্টাচার্য, ইকবাল হায়দার, বিমল বাউল, সনজিত আচার্য ও আবদুর রহিম। জাতীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের আয়োজন।

সকালে অনুষ্ঠান শুরুর সময় হাজারখানেক দর্শক থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে লাখ ছাড়িয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন আয়োজক কমিটির সদস্য নাট্যজন শেখ শওকত ইকবাল।বর্ষবরণকে ঘিরে যথারীতি বসেছে বৈশাখী মেলা। বাঁশ-বেত-তালপাতার তৈরি হাতপাখা, প্লাস্টিকের ঢোল, খেলনা, শোপিস, শরবত ডাব, তরমুজ ইত্যাদি বিক্রি হচ্ছে মেলায়।

উদযাপন পরিষদের সচিব স্বপন মজুমদার জানান, সিআরবিতে বিপুলসংখ্যক পুলিশ, র্য্যাব, আনসার ছাড়াও ২০০ স্বেচ্ছাসেবক দায়িত্ব পালন করছেন।

ডিসি হিল ও সিআরবিতে বর্ষবরণ উৎসবকে ঘিরে ছিল কঠোর নিরাপত্তাব্যবস্থা। সকাল থেকে র্যা ব-পুলিশের কড়া নজরদারি ছিল দুটি অনুষ্ঠানস্থলে। ডিসি হিলের প্রবেশমুখে নিরাপত্তাতল্লাশির ব্যবস্থা করা হয়। মূল ফটকের আগে দুইটি আর্চওয়ে, ভেতরে ওয়াচ টাওয়ার বসানো হয়েছে। পোশাক পরা নারী ও পুলিশ সদস্যের পাশাপাশি সাদা পোশাকের পুলিশ, গোয়েন্দা পুলিশ ও র্য্যব সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন।