চট্টগ্রাম, , সোমবার, ২০ আগস্ট ২০১৮

লোহাগাড়ায় সরকারি খাসজমি থেকে অবৈধ দখল উচ্ছেদ

প্রকাশ: ২০১৮-০৪-০৩ ২১:২৯:২৬ || আপডেট: ২০১৮-০৪-০৩ ২১:২৯:২৬

লোহাগাড়া উপজেলার পদুয়া ইউনিয়নে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব আলমের উপস্থিত নির্দেশে সরকারি খাসজমির উপর কাঁটাতারের দেয়া ঘেড়া ও পাকা দেয়াল অবৈধ দখল উচ্ছেদ করা হয়েছে।

গত ২এপ্রিল দুপুর আনুমানিক ১টায় পদুয়া ইউনিয়নের তেওয়ারিখীল এলাকায় এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হয়। তেওয়ারিখীল এলাকার মৃত জাফর আহমদ সওদাগরের পুত্র নুরুল আলমের অভিযোগের ভিত্তিতে এ অভিযান পরিচালিত হয় বলে সূত্রে জানাগেছে। উপস্থিত এলাকাবাসী ও অভিযোগকারী নুরুল আলমের সাথে কথা বলে জানা যায়, দীর্ঘ চল্লিশ বছর ধরে তিনি ও তাঁর পরিবারের লোকজন এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করে আসছিলেন। হঠাৎ এলাকার কিছু অসাধু লোকজন তাঁর চলাচলের রাস্তায় এসে গত কিছুদিন পূর্বে তারা রাতারাতি কাঁটাতারের ঘেড়া ও পাকা দেয়াল নির্মাণ করে অবৈধভাবে সরকারের জায়গাটি দখল করে নেয়। ফলে অভিযোগকারী তাঁর পরিজনেরা যাতায়াতে দুর্ভোগের সম্মুখীন হন। এব্যাপারে অভিযোগকারী ইউএনও এর শরণাপন্ন হলে তিনি ঐ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে জায়গাটি অবৈধ দখল মুক্ত করেন।

সরেজমিনে দেখা যায় যে, প্রায় ৬০০ফুট রাস্তার মধ্যে মাত্র ১২০ফুট রাস্তা খাসজমির উপর এবং বাকি রাস্তাটির পুরো জায়গাটি নুরুল আলমের পিতার ক্রয়কৃত সম্পত্তির উপর। এছাড়াও দেখা যায় যে, চলাচলের জন্য দীর্ঘদিনের এ রাস্তাটি ছাড়া তাদের বিকল্প অন্যকোন রাস্তা নেই।

পদুয়া ইউনিয়ন ভূমি অফিস সূত্রে পাওয়া তথ্যমতে, পদুয়া মৌজার বি.এস ৩১৬৭০ দাগ শ্রেণী টিলা জমির পরিমাণ ১.০০০০ একর বি.এস ০১নং খাস খতিয়ানভুক্ত যা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে চট্টগ্রাম ডেপুটি কমিশনারের নামে জরিপ আছে। উক্ত দাগের পশ্চিমাংশে উত্তর-দক্ষিণ লম্বা পায়ে হাঁটার ও দীর্ঘদিন যাবৎ চলাচলের একটি রাস্তাও রয়েছে। নালিশী বি.এস ৩১৬৭০ দাগের উত্তরে বি.এস ৩১৬৮৮ দাগ ব্যক্তি মালিকানাধীনে নুরুল আলমের বাড়ী আছে এবং রাস্তার প্রায় ৪৮০ফুট তার মালিকানা জায়গার উপর অবস্থিত।

স্থানীয়সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রাম ডেপুটি কমিশনারের নামে জরিপ থাকা সত্ত্বেও সরকারী খাসজমি দখল করে এলাকার কিছু প্রভাবশালী ও অসাধু ব্যক্তিরা জোটহয়ে এতোদিন আলমের অসহায় পরিবারের কাছ থেকে চাঁদা দাবী করে আসছিল এবং তাদের রাস্তায় চলাচল করতে দিচ্ছিলনা।

লোহাগাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব আলম বলেন আমি এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে এবং তদন্ত সাপেক্ষে জানতে পারি দীর্ঘ ৪০বছর যাবৎ এই রাস্তা দিয়ে নুরুল আলমের পরিবার ও লোকজন চলাচল করে অাসছিল, খাসজমির উপর রাস্তা হিসেবে সবাই চলাচল করতে পারে। কিন্তু সরকারের জায়গায় মানুষের চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে কাঁটা তার ও দেয়াল দিয়ে দখল করে নেওয়া অবৈধ। খাসজমির মালিক গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার, কাঁটা তার এবং পাকা দেয়াল দিয়ে সরকারি খাসজমি দখল করে ভোগ করা অথবা অন্যের চলাচলে বাধা প্রদান করা অবৈধ।

তিনি আরো বলেন আমি এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে এবং তদন্ত সাপেক্ষে সত্যতা পাওয়ায় সরেজমিনে গিয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান, সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য, সাংবাদিক সহ এলাকাবাসীদের উপস্থিতিতে খাসজমির উপর থেকে অবৈধ দখল উচ্ছেদ করি।